এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > তৃণমূল কংগ্রেসের পার্টি অফিসে আগুন দেওয়ার অভিযোগ উঠল বিজেপির বিরুদ্ধে – জেনে নিন বিস্তারিত

তৃণমূল কংগ্রেসের পার্টি অফিসে আগুন দেওয়ার অভিযোগ উঠল বিজেপির বিরুদ্ধে – জেনে নিন বিস্তারিত

লোকসভা নির্বাচনের পর থেকেই রাজ্যের বিভিন্ন এলাকায় কোথাও পার্টি অফিস দখল, আবার কোথাও বা পার্টি অফিসে হামলা চালানোকে কেন্দ্র করে সংঘর্ষে জড়াতে দেখা গিয়েছিল শাসক দল তৃণমূল এবং বিরোধী দল বিজেপিকে। সময় নদীর স্রোতের গতিতে চললেও অবস্থার পরিবর্তন হচ্ছে না কিছুতেই।

এবার পান্ডুয়া ব্লকের শিখিরা-চাপতা গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় তৃণমূলের দলীয় কার্যালয় পুড়িয়ে দেওয়াকে কেন্দ্র করে তীব্র উত্তেজনার সৃষ্টি হল। জানা যায়, রবিবার ভোররাতে এই অঞ্চলের বেলে এবং হরিদাসপুরে তৃণমূলের দুটি অস্থায়ী পার্টি অফিস সম্পূর্ণরূপে ভস্মীভূত হয়ে গিয়েছে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, শনিবার রাতেও ওই দুটি পার্টি অফিসে তৃণমূলের নেতাকর্মীরা বসেছিলেন। কিন্তু গভীর রাতে হঠাৎ সেই পার্টি অফিস থেকে ধোঁয়া বের হতে দেখে স্থানীয়রা চিৎকার শুরু করেন। আর এরপরই সবাই মিলে সেই আগুন নেভানোর চেষ্টা করলেও তা সফলতা পায়নি। যার ফলে তৃণমূলের সেই দুটি পার্টি অফিসই সম্পূর্ণরূপে পুড়ে ছাই হয়ে গিয়েছে। আর এই ঘটনা নিয়েই এবার শুরু হয়েছে রাজনৈতিক চাপানউতোর। তৃণমূলের দাবি, কিছুদিন আগেই বিজেপি ছেড়ে এই এলাকায় অনেকে তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন। আর তারফলেই রাগে বিজেপি তাদের পার্টি অফিস পুড়িয়ে দিয়েছে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

এদিন এই প্রসঙ্গে পান্ডুয়া পঞ্চায়েত সমিতির তৃণমূলের সভাপতি সঞ্জয় ঘোষ বলেন, “প্রতিহিংসা থেকেই আমাদের দুই দলীয় অফিস বিজেপির দুষ্কৃতীরা পুড়িয়ে দিয়েছে। ওই অঞ্চলে বিজেপি থেকে অনেকে সম্প্রতি আমাদের দলে এসেছিল। এটা সেই রাগেই প্রকাশ। আমরা এলাকায় প্রতিবাদ মিছিল করেছি। মানুষও এই ঘটনার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন।” অন্যদিকে তৃণমূলের এই অভিযোগ সম্পূর্ণরূপে অস্বীকার করেছেন বিজেপি নেতৃত্ব।

এদিন এই প্রসঙ্গে হুগলি সাংগঠনিক জেলা বিজেপির সভাপতি সুবীর নাগ বলেন, “আমাদের নেতিবাচক রাজনীতি করার প্রয়োজন হয় না। তৃণমূলের নিজেদের মধ্যে গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের জেরেই এই পার্টি অফিস পুড়েছে। কার দখলে পার্টি অফিস থাকবে, তা নিয়েই মূলত বিবাদ।”

রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, একটা রাজনৈতিক দলের পার্টি অফিস যখন ভস্মীভূত হয়েছে, তা নিয়ে রাজনৈতিক তরজা অবশ্যই থাকবে। কিন্তু যেভাবে লোকসভা নির্বাচনের পর থেকেই পার্টি অফিস দখল ও পার্টি অফিসে হামলা চালানোর ঘটনা ঘটছে, তাতে বঙ্গ রাজনীতি যে ক্রমশ অস্থিরতার দিকে এগোচ্ছে, সেই ব্যাপারে নিশ্চিত প্রায় সকলেই।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!