এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > বর্ধমান > দলীয় নেতৃত্বের উপর আস্থা হারিয়েছে – প্রকাশ্যে জানিয়ে জল্পনা বাড়ালেন এই তৃণমূল বিধায়ক!

দলীয় নেতৃত্বের উপর আস্থা হারিয়েছে – প্রকাশ্যে জানিয়ে জল্পনা বাড়ালেন এই তৃণমূল বিধায়ক!

তৃণমূলের নেতা মন্ত্রীদের বিরুদ্ধে ক্ষোভের আঁচ অনেক জায়গাতেই পাওয়া গেছে। কিন্তু এবার দলের অন্দরেই এই ক্ষোভের প্রকাশ হলো। এই মুহূর্তে পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল যথেষ্ট চাপে রয়েছে বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা। একদিকে সারদা আর একদিকে নারদা তদন্ত তৃণমূলকে বেশ কোণঠাসা করে তুলেছে বলে মনে করছে সংশ্লিষ্ট মহল। ঠিক এই অবস্থায় দাঁড়িয়ে তৃণমূলের নেতা মন্ত্রীদের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করলেন বর্ধমান উত্তর কেন্দ্রের তৃণমূল কংগ্রেস বিধায়ক নিশীথ মালিক। যা নিয়ে ইতিমধ্যেই শাসকদলের মধ্যে শুরু হয়েছে তুমুল বিতর্ক!

বর্ধমান উত্তর কেন্দ্রের তৃণমূল কংগ্রেস বিধায়ক নিশীথ মালিক, কয়েকদিন আগে তৃণমূলের জয় হিন্দ বাহিনীর কমিটি গঠনের ঘোষণা করতে গিয়ে রীতিমত বিস্ফোরক মন্তব্য করে বসেন। তিনি বলেন, লোকসভা ভোটে দলের বিপর্যয়ের কারণ, একমাত্র দলীয় নেতাদের দম্ভ ও অহংকার। তিনি আরও বলেন, সংগঠনের নেতাদের কাছে এ বিষয়ে নালিশ করেও কোনো লাভ হয়নি। তৃণমূল কংগ্রেসের মূল সংগঠন বা কোন শাখা সংগঠনের দ্বারা বাংলার কর্তৃত্ব লাভ হবে না। তা দখল করবে একমাত্র জয় হিন্দ বাহিনী।

নিশীথবাবুর এহেন বিস্ফোরক মন্তব্য শুনে রীতিমত হকচকিয়ে গেছে রাজনৈতিক মহল। সকলেই প্রায় একবাক্যে মেনে নেন – গোটা তৃণমূল পরিবারটা দাঁড়িয়ে আছে, দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পরিকল্পনা ও রণকৌশলের উপরে। সেখানে, সেই ‘মাদার সংগঠনের’ উপরেই চূড়ান্ত অনাস্থা এইভাবে প্রকাশ্যে জানানো মানে কি সরাসরি ‘বিদ্রোহ’ ঘোষণা নয়! তবে নিশীথবাবুর বিস্ফোরক কথাবার্তা শুধু সেখানেই থেমে থাকে নি। তিনি আরও বলেন, তৃণমূল নেতাদের দম্ভ ও অহংকার একটা সময় দলের অবস্থা শোচনীয় করে তুলেছিল!

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

তবে একই সঙ্গে তিনি জানান, লোকসভা ভোটে জয়ের আশা ছিল না। কিন্তু সেই জায়গা থেকে ঘুরে দাঁড়িয়েছে তৃণমূল, আর সেটা সম্ভব হয়েছে সম্পূর্ণ জয় হিন্দ বাহিনীর জন্যই। লোকসভা ভোটের রেজাল্ট এর পর অধিকাংশ নেতা কর্মীরা মনোবল হারিয়ে রাজনীতি থেকে সরে দাঁড়িয়েছিলেন। সেই জায়গা থেকে নিশীথবাবু তাদের ব্যক্তিগতভাবে রাজনীতির ময়দানে আনার চেষ্টা চালিয়ে গেছেন বলে কবি করেন। কিন্তু, এই ব্যাপারে তিনি কোন রাজ্য স্তরের নেতা বা নেত্রীকে পাশে পাননি বলে অভিযোগ করেন। যা নিয়ে রীতিমত সরগরম রাজনৈতিক মহল!

এদিন বিধায়ক নিশীথ মালিক পরিষ্কার করে বলেন, বিজেপি ও সিপিএম এর যৌথ আক্রমণের হাত থেকে বাংলাকে একমাত্র বাঁচাতে পারে জয় হিন্দ বাহিনী। তবে দলীয় বিধায়ক নিশীথ মালিকের এই বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে এখনো পর্যন্ত তৃণমূল নেতৃত্বের তরফ থেকে কোনো রকম প্রতিক্রিয়া জানানো হয়নি। এদিকে, রাজনৈতিক মহলের দাবি, এই ঘটনায় গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের আঁচ ক্রমশ তীব্র হচ্ছে। যা আবারও তৃণমূল কংগ্রেসকে আতান্তরে ফেলতে পারে।

রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের দাবি, গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব না কমাতে পারলে পরবর্তীতে রাজনৈতিক জমি ধরে রাখা তৃণমূলের পক্ষে যথেষ্ট চাপের হবে। কিন্তু, দলীয় বিধায়ক হয়েও যেভাবে তিনি প্রকাশ্যেই দলের মাদার বা মূল সংগঠনের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিয়ে, একটি শাখা সংগঠনের হয়ে আওয়াজ তুলেছেন, তাতে অনেকেরই কপাল গেছে কুঁচকে! বিশেষ করে, নিজের ক্ষোভের নিশানায় দলীয় নেতৃত্বকেও যেখানে তিনি রেয়াত করেননি। আর তাই, নিশীথবাবুকে নিয়ে ক্রমশ জল্পনা বাড়ছে শাসকদলের অন্দরেই!

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!