এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > কথা দিয়েও কথা রাখেনি দল, নির্দল হিসাবেই দলকে বার্তা দিতে চান দাপুটে তৃণমূলনেত্রী

কথা দিয়েও কথা রাখেনি দল, নির্দল হিসাবেই দলকে বার্তা দিতে চান দাপুটে তৃণমূলনেত্রী

আসন্ন পঞ্চায়েত নির্বাচনে স্ক্রুটিনি ও মনোনয়ন প্রত্যাহার পর্ব মিটতেই রাজ্যজুড়ে নজিরবিহীনভাবে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ের খবর আসছে শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের হয়ে। কিন্তু তারমাঝেও গোঁজকাঁটা ও অভ্যন্তরীণ বিদ্রোহে জেরবার শাসকদল। দলের একের পর এক দাপুটে নেতা-নেত্রী ভালো কাজ করেও টিকিট পান নি দলীয় গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের কারণে, আর তাই দাঁড়িয়ে পড়ছেন নির্দল হিসাবে। কথা দিয়েও কথা না রাখায় এবার বড়সড় বিদ্রোহের মুখে বাঁকুড়া তৃণমূল কংগ্রেস। বাঁকুড়ার দাপুটে তৃণমূল নেত্রী অনুপমা মণ্ডল জানিয়েছেন, বাঁকুড়া জেলা পরিষদের ২৬ নম্বর আসনে দলের নির্দেশেই মনোনয়ন জমা দিয়েছিলেন তিনি। এমনকি ‘তৃণমূল প্রার্থী’ হিসাবে দেওয়াল লিখন ও প্রচারও শুরু হয়ে গিয়েছিল। ‘ভালো কাজের’ সুবাদে প্রার্থী হিসেবে তাঁর নাম জেলা নেতৃত্বকে সুপারিশ করেছিল বাঁকুড়া দুনম্বর ব্লকের পুরন্দরপুর, মানকানালি এবং জুনবেদিয়া অঞ্চলের দলীয় নেতৃত্ব, এমনকি তাঁদের সুপারিশ মেনেও নিয়েছিল জেলা নেতৃত্ব।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

কিন্তু তারপরেই অঘটন! অভিযোগ, কথা দিয়েও কথা রাখেনি দল। দলের অন্তর্দ্বন্দ্বের কারণেই সেখানে অনুপমাদেবীর জায়গায় ‘দলীয় প্রতীক’ পান সোনাই মুখোপাধ্যায়। তীব্র ‘অপমানিত’ অনুপমাদেবী সিদ্ধান্ত নেন – পিছিয়ে আসার কোনো প্রশ্নই নেই আর। এই ‘অপমানের’ বদলা তিনি নির্বাচনে নির্দল হিসাবে লড়েই নেবেন। অনুপমাদেবীর আরো দাবি, স্থানীয় স্তরের নেতা-কর্মীদের আপত্তি উড়িয়ে সোনাই মুখোপাধ্যায়কেই ‘জোর করে’ দল প্রার্থী হিসাবে বেছে নেয়, ফলে তীব্র ক্ষোভে ফুঁসছেন স্থানীয় নেতা-কর্মীরা। সূত্রের খবর, তৃণমূল প্রার্থী সোনাইবাবুকে হারাতে আসরে নামবেন তৃণমূল নেতা-কর্মীরাই। ফলে সবমিলিয়ে তীব্র অস্বস্তিতে শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!