এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মালদা-মুর্শিদাবাদ-বীরভূম > পুরসভার চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে পুলিশ সুপারের কাছে অভিযোগ হেভিওয়েট তৃণমূল কাউন্সিলরের, তীব্র অস্বস্তি অনুব্রত-গড়ে

পুরসভার চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে পুলিশ সুপারের কাছে অভিযোগ হেভিওয়েট তৃণমূল কাউন্সিলরের, তীব্র অস্বস্তি অনুব্রত-গড়ে

আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের কাছে বিজেপির উত্থান যত না মাথাব্যথার কারণ হবে তার থেকে অনেক বেশি গুন অস্বস্তি বাড়াবে দলীয় গোষ্ঠীকোন্দল বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা। এই নিয়ে দলের শীর্ষনেতারা তো বটেই – স্বয়ং দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ইতিমধ্যেই বহুবার প্রকাশ্যে কড়া বার্তা দিয়েছেন।

কিন্তু, সেই গোষ্ঠীকোন্দল কমার তো কোনও লক্ষনই নেই – উপরন্তু তা যেন উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে। আর সেই গোষ্ঠীদ্বন্দ্বকে আরও গতি দিয়ে এবার অনুব্রত-গড় বলে খ্যাত গুসকরা পুরসভার প্রাক্তন চেয়ারম্যান বুর্দ্ধেন্দু রায়ের বিরুদ্ধে সরাসরি পুলিশ সুপারের কাছে অভিযোগ দায়ের করলেন দলেরই প্রাক্তন কাউন্সিলার নিত্যানন্দ চট্টোপাধ্যায়।

সূত্রের খবর, প্রায় বছর দুয়েক আগে বুর্দ্ধেন্দুবাবু সরাসরি দুই কাউন্সিলারকে অপহরণের অভিযোগ এনেছিলেন নিত্যানন্দবাবুর বিরুদ্ধে। যার পরিপ্রেক্ষিতে পুলিশি তদন্ত শুরু হয় নিত্যানন্দবাবুর বিরুদ্ধে। এমনকি, পাসপোর্ট অফিস থেকে শোকজ করা হয় তাঁকে। নিত্যানন্দবাবুর দাবি ছিল, উক্ত ঘটনার সঙ্গে তিনি কোনোমতেই যুক্ত ছিলেন না।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

আর তাই তিনি বুর্দ্ধেন্দুবাবুকে সেই অভিযোগ তুলে নিতে অনুরোধ করেন। কিন্তু, কোনো অবস্থাতেই রাজি হন নি বুর্দ্ধেন্দুবাবু। ফলে, নিত্যানন্দবাবুর পাসপোর্ট বাজেয়াপ্ত হয়ে যায়। আর এতেই প্রবল ক্ষুব্ধ নিত্যানন্দবাবু এবার অভিযোগ জানালেন পুলিশ সুপারের কাছে। তাঁর স্পষ্ট বক্তব্য, যে কাউন্সিলরদের নিয়ে অভিযোগ, তাঁরাই আদালতে গোপন জবানবন্দিতে জানিয়েছেন – ঘটনায় আমি জড়িত ছিলাম না।

নিত্যানন্দবাবুর আরও অভিযোগ, আমাকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর চেষ্টা চলছে। তাই শেষমেশ পুলিশ সুপারের কাছে অভিযোগ জানাতে বাধ্য হলাম। যদিও, এই ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করতে নারাজ চেয়ারম্যান। নিত্যানন্দবাবুকে একজন ‘সিনিয়র লিডার’ বলে ব্যাপারটি এড়িয়ে গেছেন তিনি। তবে, মেয়াদ উত্তীর্ন পুরসভায় দুই শীর্ষনেতার এই কাদা ছোঁড়াছুড়ি যে রীতিমত অস্বস্তি বাড়িয়েছে শাসকদলের – তা মেনে নিচ্ছেন সকলেই।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!