এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে লাগাম দিতে নজিরবিহীন ভাবে দুই শীর্ষ নেতার ডানা ছাঁটল শাসকদল

গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে লাগাম দিতে নজিরবিহীন ভাবে দুই শীর্ষ নেতার ডানা ছাঁটল শাসকদল

রাজ্যের শাসকদলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের ছবিটা প্রায় গোটা রাজ্যজুড়েই একরকম। আর স্থানীয় নেতৃত্ত্বের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব নিয়ে বারবার অস্বস্তিতে পড়তে হয়েছে শাসকদলের শীর্ষনেতৃত্ত্বকে। খোদ দলনেত্রী বারবার কড়া হুঁশিয়ারি দিলেও কাজের কাজ প্রায় কিছুই হয় নি। আর তাই এবার দলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব বাগে আনতে কড়া পদক্ষেপের পথে হাঁটল রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস। কিছুদিন আগেই, পুরসভার কিছু কাজে ঠিকাদারদের বরাত পাওয়াকে কেন্দ্র করে তীব্র বিবাদ লাগে উত্তর দমদম পুরসভার পুরপ্রধান কল্যাণ কর ও উপ-পুরপ্রধান শেখ নাজিমুদ্দিনের মধ্যে। এইসময় উপ-পুরপ্রধান নিজের অফিসে ঢুকতে গেলে বাধা দেয় পুরপ্রধানের অনুগামীরা। ফলে দুই শিবিরের মধ্যে হাতাহাতি লেগে যায়। ঘটনার প্রতিবাদে উপ-পুরপ্রধানের অনুগামীরা রাস্তা অবরোধ করে, পাল্টা নিমতা থানায় গিয়ে বিক্ষোভ দেখায় পুরপ্রধান শিবির। এইভাবে দলীয় গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে আসার খবর পেয়ে তড়িঘড়ি থানায় পৌঁছান সাংসদ সৌগত রায়, কিন্তু অভিযোগ তাঁকেও হেনস্থা করা হয়।

এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে, প্রচন্ড ক্ষিপ্ত সৌগতবাবু জানান, পৌরসভার অন্দরে যে এমনটা হতে পারে, তা ভাবা যায় না। এই ঘটনা অত্যন্ত লজ্জার, কয়েকজন দুষ্কৃতী ভাইস চেয়ারম্যানের ওপর হামলা করেছে, আমরা লজ্জিত। সৌগতবাবুর এইরকম কড়া মন্তব্যের পরেই আশা করা গিয়েছিল এই ঘটনায় কড়া পদক্ষেপ নিতে চলেছে তৃণমূল কংগ্রেস। সমগ্র ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে, শাসকদল সাংসদ সৌগত রায়ের নেতৃত্বে একটি কমিটি গঠন করে, সেই কমিটি কড়া ভাষায় উত্তর দমদম পুরসভার পুরপ্রধান ও উপ-পুরপ্রধান বদলের পক্ষে সুপারিশ করে। সেই রিপোর্টার পর্যালোচনা করতে আজ খাদ্যভবনে একটি শীর্ষস্তরের বৈঠক হয় – যেখানে উপস্থিত ছিলেন খাদ্যমন্ত্রী তথা উত্তর ২৪ পরগনা জেলা তৃণমূলের নেতা জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক, উত্তর দমদমের প্রাক্তন বিধায়ক তথা মন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্য, সাংসদ সৌগত রায় প্রমুখ। সেই বৈঠকেই সৌগতবাবুদের দেওয়া রিপোর্টকে মান্যতা দিয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় উত্তর দমদম পুরসভার পুরপ্রধান ও উপ-পুরপ্রধানকে বরখাস্ত করা হবে। সেখানে নতুন পুরপ্রধান পদে সুবোধ চক্রবর্তী ও উপ-পুরপ্রধান পদে লোপমুদ্রা দত্ত চৌধুরী দায়িত্ত্ব পেতে চলেছেন। নতুন দায়িত্ত্বপ্রাপ্তদের ১৫ দিন অন্তর বৈঠক করে সহমতের ভিত্তিতে কাজ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে দলের পক্ষ থেকে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!