এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > তৃণমূল কর্মীকে মারধরের অভিযোগ বিজেপির বিরুদ্ধে, জোর শোরগোল রাজ্যে

তৃণমূল কর্মীকে মারধরের অভিযোগ বিজেপির বিরুদ্ধে, জোর শোরগোল রাজ্যে

সারা রাজ্যে যখন শাসকদলের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসের অভিযোগ তুলছে বিরোধীরা, যখন বিভিন্ন জায়গায় রাজ্যের প্রধান বিরোধী দল হয়ে ওঠা বিজেপি নেতা কর্মীদের ওপর হামলার অভিযোগ উঠছে শাসকদলের বিরুদ্ধে এবং তাকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত হয়ে উঠছে রাজ্য রাজনীতি, ঠিক তখনই এ যেন উলটপুরান ঘটল দীর্ঘদিন ধরে রাজনৈতিক সন্ত্রাসে উত্তপ্ত থাকা লালগড়ের নেতাইয়ে।

শাসকদলের অভিযোগ, তাদের দলের এক আহত কর্মীকে দেখতে গিয়ে বিজেপির হাতে আক্রান্ত হয়েছেন তৃণমূলের বিনপুর এক নম্বর ব্লকের সভাপতি সহ দুই তৃণমূল কর্মী। জানা গেছে, গত রবিবার ষষ্ঠ দফার ভোট চলার সময় নেতাইয়ের পাশের একটি গ্রামে ঝামেলা শুরু হয়। আর সেই সময়ই তৃণমূলের এক কর্মীকে কুড়ুল দিয়ে আঘাত করার অভিযোগ ওঠে বিজেপির বিরুদ্ধে। আর এরপরই শাসকদলের সেই আক্রান্ত কর্মীকে ঝাড়গ্রাম সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এখানে

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

আর সোমবার দলের সেই আক্রান্ত কর্মীকে দেখতে যান বিনপুর 1 নম্বর ব্লক তৃণমূল সভাপতি শ্যামল মাহাতো সহ আরও দুই তৃণমূল কর্মী। অভিযোগ, আক্রান্ত কর্মীর সঙ্গে দেখা করে বেরোনোর পথেই বিনপুর 1 ব্লক তৃণমূল সভাপতি শ্যামল মাহাতোর উপর হামলা চালানো হয়। এমনকি তাকে গাড়ি থেকে ফেলে দিয়েও মারধর করা হয় বলে জানা গেছে।

অন্যদিকে শ্যামল মাহাতোর সঙ্গী আরও দুইজন তৃনমূল কর্মীকেও মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তৃণমূল কর্মী ষষ্ঠী ধীবর বর্তমানে ঝাড়গ্রাম সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আর রাজ্যের সর্বত্র যখন শাসকদলের বিরুদ্ধে বিজেপি নেতা কর্মীদের হেনস্তা করার অভিযোগ উঠছে, ঠিক তখনই শাসক দলের নেতা কর্মী আক্রান্ত হওয়ার অভিযোগ গেরুয়া শিবিরের বিরুদ্ধে ওঠায় সরগরম হয়ে উঠেছে নেতাই এলাকা।

তবে বিজেপির তরফে অবশ্য এই গোটা ঘটনাটি অস্বীকার করা হয়েছে। তাদের দাবি, আসলে এটা তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বেরই ফসল।

আপনার মতামত জানান -
Top