এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > বিস্ফোরক অভিযোগ মালদা জেলা তৃণমূল সভাপতির অনুগামীদের বিরুদ্ধে

বিস্ফোরক অভিযোগ মালদা জেলা তৃণমূল সভাপতির অনুগামীদের বিরুদ্ধে

গত সোমবার দুপুরে তৃণমূলের শ্রমিক সংগঠনের একটি সভা ছিল মালদার বৈষ্ণবনগর থানার ভগবানপুরের চাঁদনি চক এলাকায় । সভায় উপস্থিত ছিলেন জেলা তৃণমূলের শীর্ষ নেতৃত্বের একাংশ। আর সেখানেই দলের অঞ্চল কার্যকরী সভাপতি। এলাকার স্থানীয় মানুষজনদের থেকে পাওয়া খবর অনুসারে, তৃণমূল নেতা অসিতবরণ বসু ঘনিষ্ঠ ব্লক সভাপতি নালেপ আলি ছিলেন ঐ সভার প্রধান আহ্বায়ক। জানা যাচ্ছে এই নালেপ আলি দলের জেলা সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন বিরোধী। উক্ত সভায় মোয়াজ্জেম গোষ্ঠীর কাউকেই ডাকা হয়নি বলে জানা যায়। এদিন সভার সূচনা পর্বেই মোয়াজ্জেম ঘনিষ্ঠ ভগবানপুরের অঞ্চল তৃণমূলের কার্যকরী সভাপতি মণিরুল ইসলাম এই বিষয় টি উত্থাপন করে প্রশ্ন করেন । আর তখনই নালেপ আলি ও তাঁর লোকজন লাঠি ও লোহার রড নিয়ে মণিরুলের উপর ঝাঁপিয়ে পড়েন। রডের আঘাতে মাথা ফেটে যায় মণিরুল ইসলামের। ঘটনায় আক্রান্ত মণিরুলের বক্তব্য অনুযাই , তিনি এলাকার ৬টি বুথের আহ্বায়ক। তাঁর বাড়ির পাশেই সভা অথচ তাঁদের কাউকে সভায় ডাকা হয়নি। দলীয় শীর্ষ নেতৃত্ব বারবার বলেছে সবাইকে মিলেমিশে কাজ করতে হবে। তিনি সভায় গিয়ে সেকথা বলতেই নালেপ ও তাঁর লোকজনেরা তাঁর উপর হামলা চালায়। অভিযোগের সুরেই মণিরুল ইসলাম বললেন এলাকায় নিজের ইচ্ছামতো কাজ করছেন নালেপ। দলের জেলা সভাপতিকেও গুরুত্ব দিচ্ছেন না। এদিকে সমস্ত ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে নিয়ে মোয়াজ্জেম হোসেন বললেন, “বৈষ্ণবনগর এলাকায় নালেপ আলিকে ব্লক সভাপতি হিসাবে কেউ মানতে পারছেন না। তিনি নিজের খেয়ালখুশিতে দল চালাচ্ছেন। এদিনও তিনি নিজের ইচ্ছায় সভা ডাকেন, যেখানে সব কর্মী-সমর্থককে ডাকা হয়নি। গোটা ঘটনা খতিয়ে দেখে দলের শীর্ষনেতা শুভেন্দু অধিকারীকে রিপোর্ট পাঠানো হবে। এধরনের ঘটনা বরদাস্ত করা হবে না।”

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!