এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > বিজেপির হাত থেকে দেশের সংবিধান, যুক্তরাষ্ট্র কাঠামো ও গণতন্ত্র রক্ষার দাবিতে রাজ্যজুড়ে বৃহত্তর আন্দোলনে তৃণমূল

বিজেপির হাত থেকে দেশের সংবিধান, যুক্তরাষ্ট্র কাঠামো ও গণতন্ত্র রক্ষার দাবিতে রাজ্যজুড়ে বৃহত্তর আন্দোলনে তৃণমূল

লোকসভা নির্বাচনের দিন যত এগিয়ে আসছে, ততই কেন্দ্র বনাম রাজ্যের সংঘাত তীব্র থেকে তীব্রতর হচ্ছে। সম্প্রতি কলকাতার পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারের বাড়িতে সিবিআই হানার ঘটনা নিয়ে রীতিমত সেই কেন্দ্রের বিরুদ্ধেই সোচ্চার হয়ে রাস্তায় ধরনায় বসে পড়তে দেখা গিয়েছিল তৃণমূল নেত্রী তথা বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। আর তিন দিন ধরনা শেষে অবশেষে তা তুলে নেওয়ার কথা ঘোষণা করেন মুখ্যমন্ত্রী।

পরবর্তীতে রাজ্যের সমস্ত জেলায় এই ধরনা কর্মসূচি করার কথা ঘোষণা করে তৃণমূল কংগ্রেস। আর দলীয় নেতৃত্বের তরফে এহেন নির্দেশ পেয়ে এবার গেরুয়া শিবিরের বিরুদ্ধে মাঠে নামলেন রাজ্যের শাসকদলের নেতা মন্ত্রীরা। সূত্রের খবর, শুক্রবার দুপুরে সল্টলেকের সিবিআই দপ্তরের সিজিও কম্প্লেক্সের সামনের রাস্তায় একটি অবস্থান বিক্ষোভ করল তৃণমূল কংগ্রেস।

যেখানে উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় বিধায়ক তথা রাজ্যের দমকলমন্ত্রী সুজিত বসু, বিধান নগর পুরসভার মেয়র পারিষদ, দক্ষিন দমদম পুরসভার চেয়ারম্যান ইন কাউন্সিল সহ বেশ কয়েকজন কাউন্সিলর। আর দুপুর দুটো থেকে বিকেল সাড়ে চারটে পর্যন্ত চলা এই অবস্থান-বিক্ষোভে কেন্দ্রের শাসক দল বিজেপির বিরুদ্ধে প্রবল কটাক্ষ করতে দেখা যায় রাজ্যের দমকলমন্ত্রীকে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

অন্যদিকে গতকাল থেকেই কাকদ্বীপে দুদিন ব্যাপী কেন্দ্রের বিজেপি সরকারের বিরুদ্ধে একটি গণঅবস্থান কর্মসূচি শুরু করা হল। এদিন সেখানে উপস্থিত ছিলেন বিধায়ক তথা রাজ্যের সুন্দরবন উন্নয়ন মন্ত্রী মন্টুরাম পাখিরা, বিধানসভা ভিত্তিক শাসকদলের সমস্ত ব্লক ও অঞ্চলের নেতৃত্বরা। এদিন এইখানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে রাজ্যের মন্ত্রী মন্টুরাম পাখিরা বলেন, “সারা ভারত জুড়ে যখন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সকল বিরোধী দলের কাছে গ্রহণযোগ্য হয়ে উঠছেন, তখনই ভয় পেয়ে আমাদের মুখ্যমন্ত্রীকে হেনস্তা করার জন্য উঠেপড়ে লেগেছে বিজেপি সরকার। আর তাই আমাদের এই প্রতিবাদ কর্মসূচি।”

এদিকে বৃহস্পতিবারই উলুবেরিয়া বাগান্ডায় বিজেপির সভার বিরুদ্ধে পাল্টা সভা করে সেখানে গেরুয়া শিবিরের বিরুদ্ধে তোপ দাগতে দেখা যায় হাওড়া গ্রামীণ তৃণমূলের জেলা সভাপতি তথা বিধায়ক পুলক রায়কে। সিবিআইকে বিজেপির খাঁচাবন্দি তোতাপাখি বলেও কটাক্ষ করতে দেখা যায় তাঁকে।

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, লোকসভা নির্বাচনের আগে বঙ্গ রাজনীতিতে এইরকম আরও বেশকিছু কর্মসূচির সাক্ষী হয়ত বা থাকতে হবে আমাদের সকলকেই। কেন্দ্রের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়ে দেশের গণতন্ত্র ও সংবিধানকে প্রতিষ্ঠার দাবিতে এবার নিজের মেট্রো চ্যানেলের অবস্থান-বিক্ষোভকে সারা রাজ্যে ছড়িয়ে দিয়ে কেন্দ্র বিরোধী আন্দোলন গড়ে তুলতে চান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে শেষ পর্যন্ত এই চেষ্টায় ঠিক কতটা সার্থক হন তিনি এখন সেদিকেই তাকিয়ে সকলে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!