এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > জানুয়ারিতে আবারও উপনির্বাচন হচ্ছে ধরে নিয়ে বিজেপিকে মাত দিতে ঘুটি সাজানো শুরু তৃণমূলের

জানুয়ারিতে আবারও উপনির্বাচন হচ্ছে ধরে নিয়ে বিজেপিকে মাত দিতে ঘুটি সাজানো শুরু তৃণমূলের

ছয় মাস আগে লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির যে জনপ্রিয়তা রাজ্যে ছিল, তা যে দিনকে দিন কমতে শুরু করেছে, তা বিধানসভা উপনির্বাচনের ফলাফলের মধ্যে দিয়েই প্রকাশ পেয়ে গিয়েছে। করিমপুরকে বাদ রাখলেও খড়গপুর এবং কালিয়াগঞ্জ লোকসভায় বিজেপিকে প্রচুর ভোটে লিড পাইয়ে দিয়েছিল। কিন্তু এই দুই বিধানসভা উপনির্বাচনে কার্যত পর্যুদস্ত হতে হয়েছে গেরুয়া শিবিরকে। যেখানে ফুটে গিয়েছে ঘাসফুল।

আর রাজ্যের সদ্যসমাপ্ত 3 বিধানসভা উপনির্বাচনে তিনটিতেই বিজেপিকে হারিয়ে তৃণমূল কংগ্রেস সাফল্য লাভ করায়, এখন নিজেদের নেক্সট টার্গেটের দিকেই নজর দিতে শুরু করল তৃণমূল ভবনের ম্যানেজাররা। বস্তুত, এই তিন বিধানসভা উপনির্বাচনে জয়ের পর তৃণমূল এখন টার্গেট করেছে, আগামী 2021 এর বিধানসভা নির্বাচনকে। ইতিমধ্যে এই ব্যাপারে ঘুটি সাজাতে শুরু করেছে তারা।

তবে তার আগে আলিপুরদুয়ারের ফালাকাটা বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচনকে কেন্দ্র করে দলীয় স্তরে প্রস্তুতি শুরু করে দিল ঘাসফুল শিবির। প্রসঙ্গত, কিছুদিন আগেই ফালাকাটার তৃণমূল বিধায়ক অনিল অধিকারীর মৃত্যু হয়েছে। ফালাকাটার উন্নয়নে অনিলবাবুর ভূমিকা যে অপরিহার্য, তা এক বাক্যে স্বীকার করে নেয় শাসক-বিরোধী সমস্ত রাজনৈতিক দলই।

ফলে সেই অনিলবাবুর অবর্তমানে তার ছেড়ে যাওয়া এই কেন্দ্রে আগামী জানুয়ারি মাসে উপনির্বাচন হতে পারে ভেবে, এখন থেকেই প্রস্তুতি শুরু করে দিতে চাইছে তৃণমূল কংগ্রেস। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা বলছেন, উত্তরবঙ্গের কালিয়াগঞ্জে তৃণমূলের জয়ের পেছনে প্রধান ফ্যাক্টর হিসেবে কাজ করেছিল এনআরসি। এই এনআরসি ইস্যুতে বিজেপির বিরুদ্ধে প্রচার করে তৃণমূল তাদের জয় নিশ্চিত করেছিল।

ফলে সীমান্তবর্তী জেলা হিসেবে পরিচিত আলিপুরদুয়ারের ফালাকাটা বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচনে তৃণমূল বিজেপির বিরুদ্ধে আরও ভালো করে প্রচার করে নিজেদের জয়ের দিকে এগিয়ে যেতে পারে বলে মত রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের। কিন্তু পৌরসভা থেকে বিধানসভা, এমনকি পঞ্চায়েত সমস্ত জায়গায় প্রয়াত অনিল অধিকারী উন্নয়নের রূপকার হিসেবে তৃণমূলকে সাফল্য পাইয়ে দিলেও গত লোকসভা নির্বাচনে ফালাকাটা বিধানসভায় এগিয়ে থাকতে দেখা গিয়েছিল ভারতীয় জনতা পার্টিকে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

প্রায় 27 হাজার ভোটে লিড পেয়ে এখানে তৃণমূলকে পিছনে ফেলে দিয়েছিল গেরুয়া শিবির। তাই সেদিক থেকে এবারের উপনির্বাচনে ফালাকাটায় বিজেপি কোনোভাবে দাগ কাটতে পারে কিনা, সেদিকেও নজর রয়েছে বিশ্লেষকদের। তবে একাংশ বলছেন, কালিয়াগঞ্জের লোকসভা ভোটে বিজেপি প্রার্থী দেবশ্রী চৌধুরী 57 হাজার ভোট পেয়েছিলেন। কিন্তু তারপরও বিধানসভা উপনির্বাচনে কার্যত পর্যুদস্ত হতে হয়েছে বিজেপির কমল চন্দ্র সরকারকে।

তাই ফালাকাটাতেও প্রয়াত তৃণমূলের অনিল অধিকারীর উন্নয়নকে দেখে এখানে তৃণমূল প্রার্থীকেই সমর্থন করবেন সাধারন মানুষ বলে দাবী তৃণমূল ঘনিষ্ঠ মহলের। ইতিমধ্যেই ঘরে বসে না থেকে উপনির্বাচন হবে ধরে নিয়ে নিজেদের প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। এদিন এই প্রসঙ্গে আলিপুরদুয়ার জেলা তৃণমূলের সভাপতি মৃদুল গোস্বামী সংবাদমাধ্যমের সামনে মুখ খোলেন।

তিনি বলেন, “প্রার্থী নিয়ে আমাদের কোনো মাথাব্যথা নেই। রাজ্য নেতৃত্বই প্রার্থী ঠিক করবে। আমাদের লক্ষ্য শুধু সদ্যসমাপ্ত তিনটি বিধানসভা উপনির্বাচনের মতো ফালাকাটাতেও দলের জয়ের হ্যাটট্রিক বাজিমাত করা। আমরা সেই লক্ষ্যেই এগোচ্ছি।” কিন্তু তিন বিধানসভা উপনির্বাচনের পর আগামী ফালাকাটা বিধানসভা উপনির্বাচনেও যদি তৃণমূল জয়লাভ করে, তাহলে তো তাদের ব্যাকফুটে পড়ে যেতে হবে? তারা কি এই বিধানসভা উপনির্বাচনের জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছে না?

এদিন এই প্রসঙ্গে আলিপুরদুয়ার জেলা বিজেপির সাধারণ সম্পাদক নারায়ন মণ্ডল বলেন, “কালিয়াগঞ্জ বিধানসভা উপনির্বাচনের ফল দেখে তৃণমূল ফালাকাটাতেও জয়ের খোয়াব দেখছে। লোকসভা ভোটে ফালাকাটায় আমরা যে লিড পেয়েছি, তাতে বিধানসভা উপনির্বাচনে আমাদেরই জয় হবে।” তবে বিজেপি মুখে একথা বললেও, কাজে ঠিক কতটা তারা লোকসভার ট্রেন্ড ধরে রাখতে পারে, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

তবে এখনও পর্যন্ত এই ফালাকাটা বিধানসভার উপনির্বাচনের দিন ঘোষণা হয়নি। কিন্তু সেই দিন ঘোষণার আগে যেভাবে তৃণমূল পথে নেমে নিজেদের ভোটব্যাঙ্ক শক্ত করতে উদ্যোগী হয়েছে, তাতে শেষপর্যন্ত কবে ভোটের ঘোষণা হয় এবং ভোটবাক্সে কারা শেষ হাসি হাসে! সেদিকেই নজর গোটা রাজনৈতিক মহলের।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!