এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > পুরসভা নির্বাচনে লড়ার জন্য নয়া রণকৌশল তৃণমূলের, পেছনে প্রশান্ত কিশোরের ভূমিকা

পুরসভা নির্বাচনে লড়ার জন্য নয়া রণকৌশল তৃণমূলের, পেছনে প্রশান্ত কিশোরের ভূমিকা

 

লোকসভা নির্বাচনে 42 এ 42 স্লোগান তুলে 22 টি আসনেই আটকে যেতে হয়েছে রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসকে। যেখানে ভারতীয় জনতা পার্টি 18 টি আসন দখল করে তৃণমূলের ঘাড়ে নিশ্বাস ফেলতে শুরু করেছেন। আর লোকসভায় এই ফলাফলের পরেই বিজেপি 2021 এর বিধানসভা নির্বাচনকে টার্গেট করে রেখেছিল। তবে তার আগে আগামী 2020 সালে রাজ্যের একাধিক পৌরসভার নির্বাচনে বিজেপির প্রভাব মুক্ত করতে এখন ঘুটি সাজাতে শুরু করেছে ঘাসফুল শিবির। যে নির্বাচনকে এখন “মিনি বিধানসভা নির্বাচন” হিসেবে ধরে নিয়েই এগিয়ে যেতে শুরু করেছে তৃণমূল কংগ্রেস।

জানা গেছে, আগামী বছর রাজ্যের 107 টি পৌরসভা এবং কলকাতা পৌরনিগমের নির্বাচন রয়েছে। যে নির্বাচন আগামী বিধানসভা নির্বাচনের আগে শাসক-বিরোধী সমস্ত রাজনৈতিক দলের কাছেই অ্যাসিড টেস্ট হিসেবে পরিণত হবে বলে দাবি রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের। তবে সদ্য সমাপ্ত লোকসভায় পৌরসভা ভিত্তিক ফলাফলে যা দেখা গেছে, তাতে শহরাঞ্চলে তৃণমূল বিজেপির কাছে বেশিরভাগ জায়গাতেই পরাজিত হয়েছে।

তাই আগামী বছর পৌরসভা নির্বাচনে তৃণমূলের জনভিত্তি কোন পর্যায়ে রয়েছে, তা এখন থেকেই জেনে নিতে চাইছেন তৃণমূলের রননীতিকার প্রশান্ত কিশোর। সূত্রের খবর, ইতিমধ্যেই এই ব্যাপারে একটি সমীক্ষা চালিয়ে স্থানীয় সমস্যা, কাউন্সিলরদের ভাবমূর্তি স্থানীয়দের অভিযোগ এবং সেই এলাকাগুলিতে বিজেপির কতটা প্রভাব রয়েছে, সেই ব্যাপারে জানতে শুরু করেছে প্রশান্ত কিশোরের টিম।

আর এই সমীক্ষা আগামী 2020 সালের ফেব্রুয়ারি মাসের মধ্যেই শেষ করার লক্ষ্যমাত্রা রাখা হয়েছে। তবে এই সমীক্ষা চালানোর পাশাপাশি এখন থেকে বুথভিত্তিক সংগঠনে জোর দেওয়ার জন্য তৃণমূল নেতৃত্বকে নির্দেশ দিয়েছেন প্রশান্ত কিশোর। যেখানে প্রতি ওয়ার্ডে একটি করে দল তৈরি করে তাদের উপর বিশেষ দায়িত্ব দেওয়ার কথা বলা হয়েছে।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

 

পাশাপাশি প্রত্যেক ওয়ার্ড সভাপতিকে পাঁচ থেকে কুড়ি জনের নাম জমা দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তবে প্রশান্ত কিশোর এই নির্দেশ অনেকদিন আগে দেওয়াতে ইতিমধ্যেই সেই কাজ শুরু করে দিয়েছে তৃণমূলের নেতৃত্বরা বলে খবর। আর এই পরিস্থিতিতে এবার পৌরসভা নির্বাচনে দলীয় সংগঠনকে শক্তিশালী করা আর অন্যদিকে স্থানীয় ইস্যু এবং বিদায়ী কাউন্সিলরদের ভাবমূর্তি কতটা ভালো রয়েছে, তা গোপন সমীক্ষার মধ্যে দিয়ে যাচাই করে নিতে চাইছে প্রশান্ত কিশোরের টিম বলে মত বিশ্লেষকদের।

অনেকে বলছেন, এবারের পৌরসভা নির্বাচন তৃণমূলের কাছে অগ্নিপরীক্ষার সামিল। কেননা পৌরসভায় যদি বিজেপি লোকসভার মত সাফল্য পেয়ে যায়, তাহলে বিধানসভা দখল করা তাদের পক্ষে অত্যন্ত সহজ কাজ হবে। আর তাই যে সমস্ত পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে, সেই সমস্ত এলাকায় দলের নেতৃত্বদের দেগে সঠিক ব্যক্তিকে এবার প্রার্থী করতে উদ্যোগী হবে তৃণমূল কংগ্রেস। কারণ দলের ভাবমূর্তির ওপর এই নির্বাচন অনেকটাই নির্ভর করছে।

তাই সেদিক থেকে বিজেপি কুপোকাত করতে একদিকে যেমন দলীয় সংগঠন শক্তিশালী করা দরকার, ঠিক তেমনই স্বচ্ছ ভাবমূর্তির লোককে পৌরসভায় প্রার্থী করা দরকার বলে মত বিশ্লেষকদের। আর তাই সেই কথা অনুধাবন করেই প্রশান্ত কিশোরকে দিয়ে তৃণমূল গোপনে গোপনে এই সমীক্ষা চালাতে শুরু করেছে। তবে তৃণমূলের তরফে গোপন সমীক্ষা চালানো হলেও বিজেপির স্রোত আটকানো যায় কিনা, এখন সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!