এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > এবার তৃণমূল সাংসদের সমর্থন ছিনিয়ে নিতে তাঁদের বাড়ি বাড়ি যাবে গেরুয়া শিবিরের একাংশ!

এবার তৃণমূল সাংসদের সমর্থন ছিনিয়ে নিতে তাঁদের বাড়ি বাড়ি যাবে গেরুয়া শিবিরের একাংশ!

 

2019 সালের সদ্য সমাপ্ত লোকসভা নির্বাচনে সারাদেশে যেমন মোদি ঝড় বয়ে গিয়েছে, ঠিক তেমনই বাংলাতেও সেই ঝড় প্রত্যক্ষ করা গেছে। তৃণমূলের চিন্তা বাড়িয়ে দিয়ে আঠারোটি আসন নিজেদের দখলে নিয়েছে গেরুয়া শিবির। আর তারপর বাংলায় 22 টি আসন পাওয়া তৃণমূল কিভাবে নিজেদের সমর্থন ফিরে পাবে, তা নিয়ে নানা চেষ্টা চালাচ্ছে। আর এই পরিস্থিতিতে এবার 22 জন তৃণমূল সাংসদের সমর্থন পেতে এক কৌশলী পদক্ষেপ নিতে চলেছে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ।

বস্তুত, নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলে ইতিমধ্যেই তাদের বিরোধিতার কথা জানিয়ে দিয়েছে তৃনমূল কংগ্রেস। তবে এবার দেশের সমস্ত সাংসদদের সমর্থন নিতে এই রাম মন্দির নির্মাণ এবং নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল পাস করার জন্য সকলের দুয়ারে দুয়ারে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিল বিশ্ব হিন্দু পরিষদ।

জানা গেছে, আগামী 25 থেকে 13 নভেম্বর “সাংসদ সম্পর্ক অভিযান” নামে একটি বিশেষ কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। যেখানে আগামী 1 থেকে 6 ডিসেম্বর বাংলার এমপিদের বাসভবনে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে এই হিন্দুত্ববাদী সংগঠন। তবে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ বিজেপিকে নিজেদের ঘরের লোক মনে করে তাদের সাংসদদের সমর্থন নিতে চাইছে না। আর তাইতো বিরোধী দলের সাংসদদের বাসভবনে যাওয়ার উদ্যোগ নিয়ে পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূলের 22 জন সাংসদের বাসভবনে গিয়ে এই দুটি ইস্যুতে তাদের সমর্থন নেওয়ার চেষ্টা করবে বিশ্ব হিন্দু পরিষদ।

বিশ্লেষকরা বলছেন, যদি তৃণমূল সাংসদের বাসভবনে গিয়ে বিজেপি ঘনিষ্ঠ এই সংগঠন রাম মন্দির এবং নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল ইস্যুতে সহযোগিতা চায়, তাহলে তা অত্যন্ত নজিরবিহীন ঘটনায় পরিণত হবে। যদি তৃণমূল এতে প্রকাশ্যে “না” করে দেয়, তাহলে জনমানসে তৃণমূলের গতিবিধি নিয়ে প্রশ্ন চিহ্ন দেখা দিতে পারে। আবার অপরদিকে তৃণমূল যদি এতে সমর্থন জানায়, তাহলে সেই সমস্ত তৃণমূল সাংসদের ভূমিকা নিয়ে দলের অন্দরে উঠতে শুরু করবে প্রশ্ন। ফলে বিজেপি ঘনিষ্ঠ বিশ্ব হিন্দু পরিষদের কৌশলী নীতি এখন তৃণমূল কংগ্রেসকে ঘরে-বাইরে প্রবল ভাবে বিপাকে ফেলতে পারে বলে মত রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের।

 

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

 

এদিন এই প্রসঙ্গে বিশ্ব হিন্দু পরিষদের সর্বভারতীয় সহ সম্পাদক শচীন্দ্রনাথ সিংহ বলেন, “দেশজুড়ে রাম মন্দির ও সিএবির সমর্থনে আমরা লাগাতার কর্মসূচি নেব। মন্দির তৈরির কাজ শুরু করতে এমপিদের সহযোগিতা চাওয়া হবে। পাশাপাশি বাংলাদেশ, পাকিস্তান, আফগানিস্তান থেকে বিতাড়িত শরণার্থীদের ভারতীয় নাগরিকত্ব প্রদান নিশ্চিত করতেও তাদের সমর্থন চাওয়া হবে। বাংলার অবিজেপি জনপ্রতিনিধিদের কাছেও সাহায্য চাইতে যাব। এক্ষেত্রে তারা আগের অবস্থানে অনড় থেকে বিরোধিতা করলে ভিএইচপির তরফেও বাংলা-দিল্লিতে নাগাড়ে প্রতিবাদ কর্মসূচি নেওয়া হবে।”

কিন্তু যদি তাদের কাছে বিশ্ব হিন্দু পরিষদের তরফে এই প্রস্তাব আসে, তাহলে তারা কী করবেন! এদিন এই প্রসঙ্গে তৃণমূলের লোকসভার দলনেতা সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “এদিন লোকসভার কার্যউপদেষ্টা কমিটিতে ছটি নিয়ে আলোচনা হয়েছে। যেখানে রাম মন্দির ও সিএবি সংক্রান্ত কোনো বিলের উল্লেখ নেই। এই বিষয়ে তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেবেন। সেই মতো সংসদে আমরা দলের প্রতিনিধিত্ব করব।”

তবে তৃণমূল সহ বিজেপি বিরোধী রাজনৈতিক দলের সাংসদরা বিশ্ব হিন্দু পরিষদের তরফে আসা প্রস্তাবের পরিপ্রেক্ষিতে কি কৌশল নেয়, এখন সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!