এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > তৃণমূল বিধায়ক ঘনিষ্ঠ জেলা পরিষদের জয়ী প্রার্থীকে মারধরে আঙ্গুল উঠল দলেরই অন্য গোষ্ঠীর দিকে

তৃণমূল বিধায়ক ঘনিষ্ঠ জেলা পরিষদের জয়ী প্রার্থীকে মারধরে আঙ্গুল উঠল দলেরই অন্য গোষ্ঠীর দিকে

জেলায় জেলায় তীব্র গোষ্টীদ্বন্দ্বে লিপ্ত হয়ে সমস্যায় জর্জরিত শাসকদল তৃনমূল কংগ্রেস। এবারে ঘটনাস্থল খানাকুলের বলপাইয়ের খুনিয়াচক এলাকা। অভিযোগ, রবিবার সন্ধ্যায় এই এলাকা থেকে নিজের বাড়ির দিকে ফিরছিলেন খানাকুলের তৃনমূল বিধায়কের প্রতিনিধি তথা জেলা পরিষদের বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় জয়ী প্রার্থী রমেন প্রামানিক। সেইসময়ই তাঁকে দলেরই কয়েকজন মিলে মারধর করে তাঁর কাছ থেকে মোবাইল ও কিছু গুরুত্বপূর্ন কাগজপত্র ছিনিয়ে নেয়।মারধরের জেরে খানাকুল গ্রামীন হাসপাতালে চিকিৎসা করাতে হয় রমেনবাবুকে।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে।

এদিন রমেন প্রামানিক বলেন, “উদ্দেশ্যপ্রনোদিত ভাবে আমাকে মারা হয়েছে। ঘটনার কথা দলকে জানিয়েছি।” জানা গেছে দলেরই অপর একটি গোষ্টীর সাতজনের বিরুদ্ধে অভিযোগও দায়ের করেছেন এই বিধায়ক প্রতিনিধি। তবে রমেন প্রামানিকের বিরুদ্ধে এলাকায় বিভিন্ন লোককে প্রতিশ্রুতি দিয়ে টাকা তোলার অভিযোগ করা হয়েছে অপর গোষ্টীর তরফে। বলপাই এলাকার তৃনমূল কর্মী ময়না মল্লিক বলেন, “জেলা পরিষদ আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় জেতার পর এলাকা থেকে টাকা তোলার জন্যেই গ্রামবাসীরা প্রতিবাদ করেছে। আমাদের এই ঘটনায় কোনো যোগ নেই।”

অন্যদিকে তাঁর বিরুদ্ধে টাকা তোলার সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন রমেন প্রামানিক। এদিকে দলেরই একটি গোষ্টী অপর গোষ্টীর সাথৈ এই বিবাদে জড়িয়ে পড়ায় তার কারন জানতে খানাকুলের বিধায়ক ইকবাল আহমেদকে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, “ঘটনার কথা আমার জানা নেই।”  সব মিলিয়ে শাসকদলের গোষ্টীদ্বন্দ্বে অভিযোগ পাল্টা অভিযোগে সরগরম খানাকুল।

 

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!