এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > প্রাকৃতিক দুর্যোগকে উপেক্ষা করে মেঝেতে শুয়ে রাত কাটালেন তৃণমূল বিধায়ক – সৌজন্যে দিদিকে বলো

প্রাকৃতিক দুর্যোগকে উপেক্ষা করে মেঝেতে শুয়ে রাত কাটালেন তৃণমূল বিধায়ক – সৌজন্যে দিদিকে বলো

লোকসভা নির্বাচনের পর দলের জনসংযোগে ঘাটতি রয়েছে, তা উপলব্ধি করে প্রশান্ত কিশোরের প্ল্যানে “দিদিকে বলো” প্রকল্প করে সাধারণ মানুষের দুয়ারে দলের জনপ্রতিনিধি থেকে দলীয় নেতাদের পাঠিয়ে দিচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যেখানে তৃণমূলের সেই জনপ্রতিনিধিরা সাধারণ মানুষের অভাব অভিযোগ শোনার পাশাপাশি দলীয় কর্মীর বাড়িতে রাত্রিবাসও করছেন।

যা দেখে বিধায়ক থেকে মন্ত্রীদের কাছে পেয়ে আপ্লুত হচ্ছেন সাধারণ মানুষ। কিন্তু এবার সেই দিদিকে বলো কর্মসূচিতে গিয়ে সাধারণ মানুষের সাথে মিশে কার্যত মেঝেতে শুয়েই রাত কাটাতে দেখা গেল নবদ্বীপের তৃণমূল বিধায়ক পুন্ডরীকাক্ষ সাহাকে। সূত্রের খবর, শনিবার দুপুর থেকে মায়াপুর বামুনপুকুর দু’নম্বর পঞ্চায়েতের চরকাষ্টশালী গ্রামের তিন থেকে পাঁচ নম্বর বুথের বিভিন্ন এলাকায় ঘোরেন নবদ্বীপের এই তৃণমূল বিধায়ক।

আর সেখানেই প্রতিটি বাড়িতে গিয়ে হেঁটে হেঁটে দিদিকে বলো কার্ড বিতরণ এবং সাধারন মানুষের অভাব অভিযোগ শোনেন তিনি। এদিকে বিধায়ককে এত কাছে পেয়ে গ্রামবাসীরাও তাদের সমস্ত অভাব অভিযোগ জানাতে শুরু করেন।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

এদিন বিধায়ককে পেয়ে স্থানীয় বাসিন্দা জাকির শেখ বলেন, “আমাদের গ্রামে গীতাঞ্জলি সহ বেশকিছু প্রকল্পে নতুন বাড়ি হয়েছে। কিন্তু আর্সেনিকমুক্ত জলের সংযোগ বাড়ানো প্রয়োজন।” আর স্থানীয় বাসিন্দার এই কথা শুনেই নবদ্বীপের পঞ্চায়েত সমিতির কর্মাধক্ষ তাপস ঘোষকে গোটা বিষয়টি দেখবার জন্য নির্দেশ দেন পুন্ডরীকাক্ষ সাহা।

এদিকে বিগত বাম সরকারের আমলে সিপিএমের ক্যাডাররা পাট্টা দিলেও দীর্ঘদিন সেই পাট্টা সংশোধনের জন্য আবেদন করেও সুরাহা মিলছে না বলে বিধায়কের কাছে অভিযোগ করেন চাদু শেখ নামে আরেক বাসিন্দা। আর তড়িঘড়ি যাতে এই সমস্যা মেটানো যায়, তা নিয়ে সেখান থেকেই জেলা প্রশাসনের আধিকারিকদের সঙ্গে কথা বলেন নবদ্বীপের তৃণমূল বিধায়ক।

অন্যদিকে স্থানীয় বাসিন্দা হারু শেখের রেশন কার্ডের সমস্যা এবং আজহার শেখের ছেলে প্রতিবন্ধী হলেও প্রতিবন্ধী ভাতা না পাওয়ার সমস্যা বিধায়কের কাছে তুলে ধরা হলে তাও অবিলম্বে মেটানো হবে বলে আশ্বাস দেন তিনি।এদিকে সবার সমস্ত অভাব অভিযোগ শুনে শনিবার রাতে দলের এক কর্মীর গীতাঞ্জলি প্রকল্পে পাওয়া অসমাপ্ত ঘরের মেঝেতে বালিশ ছাড়াই মাদুর পেতে শুয়ে রাত্রিবাস করতে দেখা গেল নবদ্বীপের তৃণমূল বিধায়ক পুন্ডরীকাক্ষ সাহাকে।

আর বিধায়কের এই সহজ-সরল জীবন দেখে কার্যত হতবাক স্থানীয় বাসিন্দারা। এদিকে রবিবার গ্রাম ছাড়ার আগে এই তৃণমূল বিধায়ক বলেন, “মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সাধারণ মানুষের কথা ভেবে এই কর্মসূচির আয়োজন করেছেন। তিনি সব মানুষের মঙ্গল চান। তার পরিকল্পনা অনুযায়ী দলের প্রতিটি বিধায়ককে গ্রামের মানুষের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তোলার কাজ করতে হচ্ছে। আমরা দিদির এই চিন্তাধারাকে সকল করবই।” আর বিধায়ককে কাছে পেয়ে এবং সেই বিধায়কের সহজ-সরল জীবন দেখে কার্যত খুশি স্থানীয় বাসিন্দারা।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!