এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > সংগঠনকে আরও চনমনে করতে 15 তারিখ বড়সড় পদক্ষেপ তৃণমূল নেত্রীর

সংগঠনকে আরও চনমনে করতে 15 তারিখ বড়সড় পদক্ষেপ তৃণমূল নেত্রীর

লোকসভা নির্বাচনে দলের ভরাডুবির পর দফায় দফায় সমস্ত জেলা নেতৃত্বকে নিয়ে বসে সংগঠনকে সাজানোর চেষ্টা করেছিলেন তৃণমূল নেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। ভোটগুরু প্রশান্ত কিশোরের পরিকল্পনামাফিক “দিদিকে বলো” কর্মসূচি করে দলের সমস্ত জনপ্রতিনিধি থেকে শুরু করে পদাধিকারীদের সাধারণ মানুষের সঙ্গে জনসংযোগ করতে নির্দেশ দিয়েছিলেন তিনি। সেইমত রাজ্যের প্রতিটি জেলাতেই “দিদিকে বলো” কর্মসূচি চলছিল।

তবে পুজোর মরসুমে রাজনৈতিক কর্মসূচিকে কিছুটা বাদ রেখে সবাই সেই পুজোর আনন্দে মেতে উঠেছিল। কিন্তু পুজো মেটার সাথে সাথেই এবার ফের দলীয় সংগঠনকে চাঙ্গা করার কাজে নেমে পড়লেন তৃণমূল সুপ্রিমো। সূত্রের খবর, আগামী মঙ্গলবার প্রতিটি ব্লক ও টাউন সভাপতি এবং জেলা সভাপতিদের নিয়ে তৃণমূল ভবনে একটি বৈঠকের ডাক দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বেলা আড়াইটা থেকে শুরু হওয়া এই বৈঠকে যেমন থাকার কথা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের, ঠিক তেমনই ভোটগুরু প্রশান্ত কিশোরের থাকার কথা রয়েছে বলে বিশ্বস্ত সূত্রে খবর।

পাশাপাশি এই বৈঠকে থাকার কথা রয়েছে তৃণমূলের রাজ্য সভাপতি সুব্রত বক্সি, মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় এবং তৃণমূল যুবর সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের। রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, রাজ্যে যখন দিনকে দিন বিজেপির প্রভাব বাড়ছে, ঠিক তখনই রাজনৈতিক কর্মসূচি বাদ দিয়ে এক মুহূর্তও নিজেদের সময় নষ্ট করতে চাইছে না তৃণমূল কংগ্রেস। আর তাইতো এবার পুজোর মরসুম শেষ হওয়ার সাথে সাথেই কালীপুজোর আগে রাজনৈতিক কর্মসূচি বেঁধে দিয়ে দলকে চাঙ্গা করতে চাইছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

তৃনমূলের একাংশ বলছেন, দলনেত্রী চান দলের নেতাকর্মীরা যাতে আরো বেশি করে জনসংযোগে নামে। আর তাই এবার ব্লক সভাপতিদের বৈঠকে ডেকে নিচুতলার মানুষদের সাথে আরও বেশি করে জনসংযোগে যাওয়ার জন্য তাদের নির্দেশ দেবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পাশাপাশি বিজেপির নেতৃত্বাধীন কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলনে নামতে দলকে কর্মসূচি বেঁধে দিতে পারেনি তৃনমূলের সর্বাধিনায়িকা বলে মনে করছে একাংশ।

সূত্রের খবর, আগামী 18 অক্টোবর কেন্দ্রীয় সরকারি সংস্থাগুলোকে বিক্রির প্রতিবাদে শিয়ালদা থেকে ফেয়ারলি প্লেসের অফিসের সামনে পর্যন্ত মিছিল করার কথা রয়েছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। তবে দলের পদাধিকারীদের নিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পুজোর মরসুমের পর এই বৈঠকের পেছনে ভোট রাজনীতির গন্ধ পাচ্ছেন বিশ্লেষকরা।

কেননা কিছুদিন পরেই রাজ্যের 105 টি পৌরসভার নির্বাচন রয়েছে। বিধানসভা নির্বাচনের আগে যা শাসক-বিরোধী সব পক্ষের কাছেই অ্যাসিড টেস্ট হিসেবে পরিচিত। তাই সেদিক থেকে বিজেপির বাড়বাড়ন্তে যাতে সেই সমস্ত পৌরসভাগুলি নিজেদের দখলে রাখা যায়, তার জন্য এখন থেকেই দলের পদাধিকারীদের ডেকে এই বৈঠকে জনসংযোগ করার জন্য বার্তা দিতে চান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

সব মিলিয়ে আগামীকাল তৃণমূল ভবনে রাজ্যের সমস্ত ব্লক সভাপতি, টাউন সভাপতি এবং জেলা সভাপতিদের নিয়ে তৃণমূল নেত্রীর বৈঠক থেকে ঠিক কি উঠে আসে, সেদিকেই তাকিয়ে সকলে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!