এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > তোলা না পেয়ে বন্দুকের বাঁট দিয়ে ব্যবসায়ীকে বেধড়ক পেটালেন দাপুটে তৃণমূল নেতার ভাই!

তোলা না পেয়ে বন্দুকের বাঁট দিয়ে ব্যবসায়ীকে বেধড়ক পেটালেন দাপুটে তৃণমূল নেতার ভাই!

2011 সালে ক্ষমতায় আসার পরই তোলাবাজদের দাপট রুখতে দলমত নির্বিশেষে রাজনৈতিক রং না দেখে দোষীদের গ্রেপ্তারের আদেশ দিয়েছিলেন তৃণমূল নেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এমনকি দলীয় স্তরেও তোলাবাজদের কোপের মুখে যাতে কাউকে অসুবিধেয় না পড়তে হয়, তার ব্যাপারে সকলকে সতর্ক করে দিয়েছিলেন তিনি।

কিন্তু নেত্রীর সেই বার্তা যে একাংশের কানে এখনও পৌঁছয়নি, তা ফের প্রমাণ হয়ে গেল। এবার তোলা না পেয়ে এক ব্যবসায়ীকে বন্দুকের বাট দিয়ে মারধরের অভিযোগ উঠল খড়দহ ব্লক তৃণমূলের সভাপতির ভাইয়ের বিরুদ্ধে। জানা যায়, সন্দীপ ঘোষ নামে এক ব্যবসায়ীর কল্যাণী এক্সপ্রেসওয়ে আরপাটনা মোড়ে একটি রেস্তোরাঁ রয়েছে।

গত শনিবার রাত 11টার সময় সেই সন্দীপ ঘোষ এবং তার বন্ধু রনবীর দাম বাইক চেপে বাড়ি ফেরার সময় রাস্তায় তার পথ আটকে দেয় সফি মোহাম্মদ পুরকাইত এবং তার দলবল। আর সেখানেই তারা সেই সন্দীপ ঘোষ নামে ওই ব্যবসায়ীকে বন্দুকের বাট দিয়ে ব্যাপক মারধর করে পালিয়ে যায় বলে অভিযোগ উঠেছে।

এদিকে এই ঘটনার পরই আহত সেই ব্যবসায়ীকে প্রাথমিক চিকিৎসা করা হয় কিন্তু আশ্চর্যজনকভাবে সন্দীপ ঘোষ নামের ওই ব্যবসায়ীকে যে ব্যক্তি বন্দুকের বাট দিয়ে মেরেছে, তার পরিচয় খোঁজ করতে গিয়ে দেখা যায় তিনি খড়দহ ব্লক তৃণমূল সভাপতি শুকুর আলী পুরোকাইতের ভাই সফি মহম্মদ পুরকাইত। কিন্তু ঠিক কী কারণে সন্দীপ ঘোষকে আঘাত করলেন তিনি! যেখানে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তথা তৃণমূল দল প্রায়শই তোলাবাজদের রেয়াত না করার কথা বলে, সেখানে ব্লক তৃণমূলের সভাপতি ভাইয়ের এহেন আচরণ কেন!

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

অভিযোগ , এর আগে ব্যবসায়ী সন্দীপ ঘোষের কাছ থেকে লক্ষাধিক টাকা নিয়েছিলেন সেই সফি মহম্মদ পুরকাইত। সম্প্রতি সেই ব্যবসায়ীর রেস্তোরাঁর কাছে একটি নির্মাণের কাজ শুরু হওয়ায় ইমারত সামগ্রী তার কাছ থেকে নিতে হবে বলে সন্দীপ ঘোষকে হুমকি দিয়েছিল সফি মহম্মদ। কিন্তু সন্দীপবাবু তা নিতে অস্বীকার করায় তার কাছ থেকে 1 লক্ষ টাকা তোলা চেয়েছিলেন’ ব্লক তৃণমূল সভাপতির ভাই। কিন্তু তাতেও ব্যবসায়ী সন্দীপ ঘোষ রাজি না হওয়ায় তার ওপর এই হামলা চালালেন সফি মহম্মদ বলে দাবি একাংশের।

এদিন এই প্রসঙ্গে ব্যবসায়ী সন্দীপ ঘোষ বলেন, “এলাকার মানুষ সফি মহম্মদের তোলাবাজিতে অতিষ্ঠ। প্রত্যেক ব্যবসায়ীর কাছ থেকে সে তোলা আদায় করে। এখানে অলিখিত নিয়ম, তার কাছ থেকেই ইমারতি সামগ্রী নিতে হবে। এক লক্ষ টাকা তোলা না দেওয়াতেই সে দলবল নিয়ে আমার উপর হামলা চালিয়েছে। আমি থানায় লিখিত অভিযোগ জানিয়েছি।”

এদিকে খড়দহ ব্লক তৃণমূলের সভাপতির ভাই সফি মহম্মদের বিরুদ্ধে এই অভিযোগ ওঠায় কিছুটা হলেও বিপাকে পড়েছে তৃণমূল। এদিন এই প্রসঙ্গে অভিযুক্তের দাদা তথা খড়দহ ব্লক তৃণমূল সভাপতি সুকুর আলী পুরকাইত বলেন, “এ নিয়ে আমার কিছু বলার নেই। থানায় গেলেই প্রকৃত ঘটনা জানতে পারবেন।” তাহলে কি অভিযুক্তের দাদা এখন চাপে পড়ে ভাইয়ের সমস্ত দোষকে নিজের গা থেকে ঝেড়ে ফেলতে চাইছেন!

আর তাই তিনি কিছু জানেন না বলে ব্যাপারটিকে এড়িয়ে গেলেন! তবে যে যাই বলুন না কেন, যেভাবে এক ব্যবসায়ীর কাছ থেকে তোলা চেয়ে না পাওয়ায় ব্লক তৃণমূলের সভাপতির ভাই সেই ব্যবসায়ীকে বন্দুকের বাট দিয়ে মেরেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে, তাতে তৃণমূল যে কিছুটা হলেও এখানে অস্বস্তিতে পড়বে, সেই ব্যাপারে নিশ্চিত বিশেষজ্ঞরা।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!