এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > উলটপুরান রাজ্যে, তৃনমূল নেতার কাছ থেকে নেওয়া জরিমানার টাকা উপভোক্তাদের হাতে ফেরালেন বিজেপির সভাপতি

উলটপুরান রাজ্যে, তৃনমূল নেতার কাছ থেকে নেওয়া জরিমানার টাকা উপভোক্তাদের হাতে ফেরালেন বিজেপির সভাপতি

এবার তৃণমূল নেতার কাছ থেকে নেওয়া জরিমানার টাকা ভুক্তভোগী উপভোক্তাদের হাতে ফিরিয়ে দিলেন নারায়ণগড় মধ্য মণ্ডলের বিজেপি সভাপতি শুভাশিস মহাপাত্র। জানা গেছে, নারায়ণগড়ের বাখরাবাদ পঞ্চায়েতের খালিনা বুথে আবাস যোজনা 24 জন উপভোক্তার মধ্যে কেউই দ্বিতীয় কিস্তির টাকা পাননি।

গত 2018 সালে পঞ্চায়েত নির্বাচনের আগে এই উপভোক্তাদের নাম পাঠানোর সময় ওই বুথের পঞ্চায়েত সদস্য ছিলেন সুশান্ত ধল। লোকসভার ফলাফল প্রকাশের পরই দ্বিতীয় কিস্তির টাকা চেয়ে তার বাড়িতে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন উপভোক্তারা। আর এরপরই বিজেপি নেতৃত্বের উপস্থিতিতে সেই পঞ্চায়েত সদস্যের বিরুদ্ধে জরিমানা ধার্য করা হয়। যেখানে বেলদা থানায় বসে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় যে, সুশান্ত ধল উপভোক্তা পিছু পাঁচ হাজার করে মোট 29 জনকে এক লক্ষ 45 হাজার টাকা ফেরত দেবেন।

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রাম, হোয়াটস্যাপ, ফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

আর এই টাকা বিলির দায়িত্ব পান বিজেপির তপন প্রধান। কিন্তু তিনি গত 16 জুন অনুপস্থিত থাকলে বিজেপির নারায়ণগড় মধ্য মন্ডলের সভাপতি শুভাশিস মহাপাত্রর কাছে সেই টাকা জমা পড়ে বলে জানা গেছে। যেখানে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় যে, দ্বিতীয় কিস্তির টাকা গ্রাহকদের ব্যাংক অ্যাকাউন্টে ঢুকে যাওয়ার পরই উপভোক্তাদের জরিমানার টাকা দেওয়া হবে।

ইতিমধ্যেই অধিকাংশ উপভোক্তার ব্যাংক অ্যাকাউন্টে দ্বিতীয় কিস্তির টাকা ঢুকে গেলেও উপভোক্তারা সেই টাকা পাননি বলে অভিযোগ। আর এরপরই গত 30 জুলাই এই ব্যাপারে পোস্টার পড়লে এলাকায় তীব্র চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। এদিকে এই ঘটনার পর এদিন সেই টাকা ফেরত দিয়ে বিজেপির নারায়ন ঘরের মধ্যে মন্ডলীর সভাপতি শুভাশিস মহাপাত্র বলেন, “আমরা টাকাটা আত্মসাৎ করার জন্য নিইনি। মানুষকে ফিরিয়ে দেওয়ার জন্যই নিয়েছিলাম। এদিন 7 জনের হাতে টাকা তুলে দিলাম। বাকি এক লক্ষ দশ হাজার টাকা তপন প্রধান সহ দলের অন্য নেতাদের হাতে দিয়েছি।”

অন্যদিকে এই প্রসঙ্গে তপন প্রধান বলেন, “এদিন জরিমানার কিছু টাকা ফিরিয়ে দেওয়া হয়েছে। বাকি টাকাও দ্রুত ফিরিয়ে দেওয়া হবে। তবে উপভোক্তাদের বাড়ি তৈরির দায়িত্ব আমাদের নয়।” এদিকে এই ব্যাপারে পাল্টা বিজেপির বিরুদ্ধে সরব হতে দেখা গেছে তৃণমূলকে।

এদিন এই প্রসঙ্গে নারায়ণগড় ব্লক তৃণমূল সভাপতি মিহির চন্দ্র বলেন, “মানুষের চাপে পড়েই টাকা ফেরত দেওয়া হয়েছে। কিন্তু গরিব মানুষের বাড়ি তৈরির দায়িত্ব নেবেন কে!” সব মিলিয়ে এবার যেন কাটমানি ইস্যুতে একটু উল্টো চিত্র দেখা গেল বঙ্গ রাজনীতিতে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!