এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > এবার তৃণমূল নেত্রীর পুজো উদ্বোধনও সশরীরে খুঁটিয়ে দেখলেন পিকে! আবারও কি কোনো বড় পরিকল্পনা?

এবার তৃণমূল নেত্রীর পুজো উদ্বোধনও সশরীরে খুঁটিয়ে দেখলেন পিকে! আবারও কি কোনো বড় পরিকল্পনা?


অনেকদিন আগেই তিনি তার কাজ শুরু করে দিয়েছেন। লোকসভা নির্বাচনে রাজ্যে তৃণমূলের ভরাডুবির পর ভোটগুরু প্রশান্ত কিশোরকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁর দলের রণনীতিকারের দায়িত্ব দিয়েছেন। তবে সাম্প্রতিককালে তার সঙ্গে তৃণমূলের দূরত্ব হয়েছে বলে বিভিন্ন মহলের তরফে দাবি করা হলেও সেই সমস্ত কিছুতে জল ঢেলে দিয়ে মহালয়ার সন্ধ্যায় তৃণমূল নেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রীর গলায় চণ্ডীপাঠ শুনে রীতিমতো তাজ্জব বনে গেলেন প্রশান্ত কিশোর।

সূত্রের খবর, শনিবার সন্ধ্যায় তৃণমূল নেত্রী মমতা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে তৃণমূলের দলীয় মুখপাত্র জাগো বাংলার উৎসব সংখ্যার প্রকাশ অনুষ্ঠানে উপস্থিত হন ভোটগুরু প্রশান্ত কিশোর।

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

তবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যখন মঞ্চে বক্তব্য রাখতে উঠলেন, তখন সেদিকেই নজর ছিল অতিথিদের আসনে বসে থাকা প্রথম সারির প্রশান্ত কিশোরের। আর তৃণমূল নেত্রীর এই বক্তব্য তারিয়ে তারিয়ে উপভোগ করছিলেন ভোটগুরু। হাতে খাতা পেন, নিয়ে কিছুটা রাজনীতি ঘেষা তৃণমূল নেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই বক্তব্য নোট করতেও দেখা যাচ্ছিল তাকে। আর এরপরই মঞ্চ থেকে নেমে কত সংখ্যক জাগো বাংলা কাগজ, সপ্তাহে কতদিন ছাপা হয় তার ইতিহাস প্রশান্ত কিশোরকে জানিয়ে দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

জাগো বাংলার মঞ্চ থেকে নেমেই প্রশান্ত কিশোরকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই ইশারা দেন যে, এবার পুজো উদ্বোধনের জন্য বেরোতে হবে। এমন ব্যস্ততাময় মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে প্রশান্ত কিশোরের হয়ত বা চেনা। কিন্তু কলকাতায় এসে সেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সাথে একের পর এক পুজোতে গিয়ে মমতা বন্দোপাধ্যায়ের মুখ থেকে বক্তব্য শুনে কিছুটা অন্য তৃনমূল নেত্রীকে দেখলেন ভোটগুরু।

আর এই পুজো উদ্বোধন করতে করতে এক সময় ব্যস্ত মুখ্যমন্ত্রী প্রশান্ত কিশোরকে জিজ্ঞেস করেন, “ভালো লাগলো আপনার?” উত্তরে পিকে বলেন, “হ্যাঁ, দারুন।” বস্তুত, তৃণমূলের রণনীতিকার হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই “দিদিকে বলো” কর্মসূচি চালু করে দিয়ে গোটা তৃণমূল দলকে জনসংযোগে পাঠিয়ে দিতে সক্ষম হয়েছেন প্রশান্ত কিশোর। সেদিক থেকে তৃণমূলের এতদিন কারোরই হাফ ছেড়ে নিঃশ্বাস নেওয়ার সময় ছিল না। তবে বাংলা ও বাঙালির সব থেকে শ্রেষ্ঠ উৎসব দুর্গাপূজোতে রাজনীতি কিছুটা ব্রাত্য থাকায় সেই পুজোতে তৃণমূলের কর্মসূচি ঠিক কি হয়, তার জন্য এবার কলকাতায় থেকে সেদিকেই মনোনিবেশ করবেন ভোটগুরু প্রশান্ত কিশোর বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!