এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > তৃণমূল নেতা খুনে আটক মুকুল ঘনিষ্ঠের ভাই সহ 3 অনুগামী

তৃণমূল নেতা খুনে আটক মুকুল ঘনিষ্ঠের ভাই সহ 3 অনুগামী

গত সোমবার নবমীর রাতে দলীয় কার্যালয়ে দুষ্কৃতীদের গুলিতে খুন হন পাঁশকুড়া ব্লক তৃণমূলের কার্যকরী সভাপতি তথা পাঁশকুড়া পঞ্চায়েত সমিতির সহ-সভাপতি কুরবান শা। আর এই ঘটনার পরই এলাকাজুড়ে তীব্র চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে। কে বা কারা এই তৃণমূল নেতাকে খুন করল, তা নিয়ে শুরু হয় জোর জল্পনা।

জানা যায়, নবমীর রাতে চারজন ব্যক্তির সঙ্গে মাইশোরা বাজারে নিজের অফিসে বসে ছিলেন তৃণমূলের পঞ্চায়েত সমিতির এই সহ-সভাপতি। অভিযোগ, রাত দশটার সময় তিনটি বাইক করে 7 জন দুষ্কৃতী এসে কুরবান শার অফিসে ঢুকে বাকি চারজনকে রিভলবার উচিত চুপ থাকার হুমকি দেন।

এদিকে এই ঘটনার পরই কুরবান শা যখন টেবিলের আড়ালে লুকাতে যান, ঠিক তখনই দুষ্কৃতীরা তার মাথায় পরপর বেশ কয়েকটি গুলি করে বাইক নিয়ে চম্পট দেয় বলে খবর। এদিকে এই ঘটনার পর তড়িঘড়ি কুরবান শার অনুগামীরা স্থানীয় এক চিকিৎসককে ডেকে আনলে চিকিৎসক পঞ্চায়েত সমিতির সহ সভাপতি কুরবান শাকে মৃত বলে ঘোষণা করে। এদিকে এই ঘটনার পরই গত মঙ্গলবার সেই নিহত তৃণমূল নেতার পরিবারের তরফে আনিসুর রহমান সহ চারজনের বিরুদ্ধে পাঁশকুড়া থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়।

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এখানে

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

 

সূত্রের খবর, ইতিমধ্যেই এই ঘটনায় আনিসুর রহমানের ভাই তথা পাঁশকুড়া পৌরসভার 15 নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আশিকুর রহমান সহ আনিসুর রহমানের ঘনিষ্ঠ আরও 2 জনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। জানা গেছে, এই আনিসুর রহমান বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত। ফলে তৃণমূল নেতা খুনের ঘটনায় তার নামে এফআইআর এবং তার ভাইকে ইতিমধ্যে গ্রেপ্তার করার ঘটনায় বিজেপির অন্দরে যে অস্বস্তি শুরু হয়েছে, সেই ব্যাপারে নিশ্চিত সমালোচক মহল।

এদিন এই প্রসঙ্গে নিহত তৃণমূল নেতা কুরবান শার দাদা আফজল শা বলেন, “আমাদের সন্দেহ আনিসুর ভাইকে খুন করিয়েছে। আমরা সিআইডি তদন্ত চাই।” তবে খুনের উদ্দেশ্য এখনও বলা যাচ্ছে না। তদন্ত প্রক্রিয়া শুরু করা হয়েছে বলে জানান পূর্ব মেদিনীপুরের পুলিশ সুপার। এদিকে তৃণমূল নেতা খুনের ঘটনায় এই ব্যাপারে বিজেপির বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠলেও তা সম্পূর্ণরূপে অস্বীকার করেছে গেরুয়া শিবির।

এদিন এই প্রসঙ্গে বিজেপি নেতা সিন্টু সেনাপতি বলেন, “বিজেপি একটা শৃংখলাবদ্ধ দল। এই দল খুনের রাজনীতিকে সমর্থন করে না। আমাদের দলের কারও বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠলে তা দেখার জন্য আইন রয়েছে। আইনের উর্দ্ধে কেউ নয়।” তবে যেভাবে তৃণমূলের কুরবান শা খুনের ঘটনায় বিজেপির অস্বস্তি বাড়িয়ে বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত আনিসুর রহমানের ভাই সহ সেই আনিসুর রহমানের অনুগামীরা গ্রেপ্তার হলেন, তাতে বিজেপি এবং মুকুল রায়ের অস্বস্তি যে বাড়ল, সেই ব্যাপারে একপ্রকার নিশ্চিত ওয়াকিবহাল মহল।

আপনার মতামত জানান -
Top