এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > পৌরসভার প্রশাসক দায়িত্বে তৃনমূলের দুই নেতা, নেত্রী, জোর বিতর্ক

পৌরসভার প্রশাসক দায়িত্বে তৃনমূলের দুই নেতা, নেত্রী, জোর বিতর্ক

লোকসভা নির্বাচনে বালুরঘাট লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী অর্পিতা ঘোষকে পরাজিত হতে হয়েছে। যার পরেই এই খারাপ ফলাফলের জন্য দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা তৃণমূলের সভাপতির পদ থেকে বিপ্লব মিত্রকে সরিয়ে সেইখানে অর্পিতা ঘোষকে দায়িত্ব দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

আর এরপরই দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার তৃনমূলের সংগঠনের হাল ধরা বিপ্লব মিত্রের বিজেপিতে যোগ দেওয়ার জল্পনা শুরু হয়। আর এরপরই গত 24 জুন নিজের অনুগামীদের নিয়ে দিল্লিতে গিয়ে গেরুয়া শিবিরের পতাকা নিজের হাতে তুলে নেন সেই বিপ্লব মিত্র।

আর তারপর থেকেই দক্ষিণ দিনাজপুর জেলায় রাজনৈতিক উত্থান-পতনের প্রবল আশঙ্কা তৈরি হয়। দিল্লি থেকে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা পরিষদ, গঙ্গারামপুর ও বুনিয়াদপুর পৌরসভা বিজেপির দখলে চলে আসবে বলে বিপ্লব মিত্র হুঙ্কার ছাড়লেও বাস্তবে অন্য পরিস্থিতি তৈরি হয়।

দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা তৃণমূলের সভানেত্রী অর্পিতা ঘোষের ক্যারিশমায় দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা পরিষদের যে সমস্ত সদস্যরা বিজেপিতে নাম লিখিয়েছিলেন, তাদের মধ্যে তিনজন ফের তৃণমূলে ফিরে আসেন। ফলে এখন তৃণমূল দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা পরিষদে সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করেছে। আর এই পরিস্থিতিতে এবার বিপ্লব মিত্রের বিরুদ্ধে অর্পিতা ঘোষ আরও যাতে প্রবল ভাবে লড়তে পারে তার জন্য তাকে বালুরঘাট পৌরসভার প্রশাসক করা হল।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

আপনার মতামত জানান -

সূত্রের খবর, গত বছর 23 অক্টোবর বালুরঘাট পৌরসভা তৃণমূল পরিচালিত বোর্ড তার মেয়াদ উত্তীর্ণ করে। আর তারপরেই দীর্ঘ নয় মাস ধরে সেখানে সদর মহকুমা শাসক ঈশা মুখোপাধ্যায় প্রশাসক পদে থেকে উন্নয়নের কাজ পরিচালনা করছিলেন। কিন্তু এবার সেই ইশাদেবীর পাশাপাশি এই বালুরঘাট পৌরসভার প্রশাসক পদে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা তৃণমূলের সভানেত্রী অর্পিতা ঘোষ এবং বালুরঘাট বিধানসভার প্রাক্তন বিধায়ক শঙ্কর চক্রবর্তীকে নিয়োগ করল রাজ্য সরকার।

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, বালুরঘাট পৌরসভাতে বিপ্লব মিত্রের প্রভাবমুক্ত করতেই অর্পিতা ঘোষকে সেই প্রশাসক পদে বসিয়ে তৃণমূল ঘরে বাইরের সমস্ত পরিস্থিতিকে সামাল দিতে চাইছে। কিন্তু ইতিমধ্যেই এই ঘটনা নিয়ে শাসকদলের বিরুদ্ধে রাজনীতির অভিযোগ তুলতে শুরু করেছে বিরোধীরা। বাম এবং বিজেপির অভিযোগ, পুরসভার নির্বাচন না করে নাগরিকদের গণতান্ত্রিক অধিকার কেড়ে নেওয়া হল।

অন্যদিকে এর বিরুদ্ধে তারা আদালতের দ্বারস্থ হবেন বলেও হুঁশিয়ারি দিয়েছেন দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা বিজেপির সভাপতি শুভেন্দু সরকার। তবে এই প্রসঙ্গে অর্পিতা ঘোষ অবশ্য বলেন, “এসডিওর সঙ্গে অন্যতম প্রশাসক হিসেবে আমাদের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। কিন্তু মূল দায়িত্বে এসডিওই থাকবেন।”

তবে অর্পিতা দেবী মুখে যাই বলুন না কেন, শাসকদলের পক্ষ থেকে বালুরঘাট পৌরসভাকে বিজেপি নেতা বিপ্লব মিত্রের প্রভাবমুক্ত করতেই যে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা তৃণমূলের সভানেত্রী তথা বিপ্লব মিত্রের ঘোর বিরোধী অর্পিতা ঘোষকে পৌরসভার প্রশাসক পদে বসানো হল, সেই ব্যাপারে একপ্রকার নিশ্চিত প্রায় সকলেই।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!