এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > তৃণমূল নেত্রী ধর্না মঞ্চে ঝড় তুললেও দেখা নেই যুবরাজের, ক্রমশ বাড়ছে রাজনৈতিক গুঞ্জন

তৃণমূল নেত্রী ধর্না মঞ্চে ঝড় তুললেও দেখা নেই যুবরাজের, ক্রমশ বাড়ছে রাজনৈতিক গুঞ্জন

রাজ্য রাজনীতিতে বরাবরই শিরোনামে থাকেন তিনি। কিন্তু এবার বিজেপি বিরোধিতায় জাতীয় রাজনীতিতেও শিরোনামে চলে এসেছেন সেই তৃণমূল নেত্রী তথা বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সম্প্রতি কলকাতা পুলিশের কমিশনার রাজীব কুমারের বাড়িতে সিবিআই হানা নিয়ে অসন্তোষ প্রকাশ করে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়ে দেশের গণতন্ত্র ও সংবিধান প্রতিষ্ঠার দাবিতে জাতীয় রাজনীতিতে তোলপাড় তুলে দিয়ে কলকাতায় ধর্মতলার মেট্রো চ্যানেলে ধরনায় বসে পড়েন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

জানা যায়, মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার আগে গত 2006 সালে টানা 26 দিন এই মেট্রো চ্যানেলে রাজ্যের বিগত বাম সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলনে বসে রাজ্য রাজনীতিতে তোলপাড় তুলে দিয়েছিলেন তৎকালীন বিরোধী নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পর আর তেমনভাবে কোনো ধরনা, আন্দোলন বা অনশনে দেখা যায়নি তাঁকে। তবে এবার লোকসভা নির্বাচনের আগে কেন্দ্রের বিজেপি সরকারকে সরাতে ফের রাস্তায় নামলেন তিনি।

আর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই আন্দোলনে যখন দেশের সমস্ত বিজেপি বিরোধী দলের হেভিওয়েট নেতা-নেত্রীরা তাঁর পাশে থাকার চেষ্টা করছেন, ঠিক তখনই তৃণমূলের অঘোষিত নাম্বার টু হিসেবে পরিচিত যুব তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সভাপতি তথা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রিয় ভাইপো অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ই নেই তৃণমূলের সেই ধরনা মঞ্চে।

যা নিয়ে বড় প্রকারের একটি প্রশ্নচিহ্ন তৈরি হয়েছে শাসক দলের অন্দরে। একাংশের মতে, বিগত বাম সরকারের আমলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দীর্ঘ অনশনে তাঁর ভাইপো তথা বর্তমানে তৃণমূল যুব কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় সব সময় তাঁর পাশে ছিলেন। আর এবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় যখন কেন্দ্রের বিজেপি সরকারকে উৎখাত করতে রাস্তায় নেমে ধরনায় বসেছেন, ঠিক তখনই সেই ধরনা মঞ্চের ছায়াও কেন মাড়াচ্ছেন না অভিষেক?

প্রকাশ্যে এই ব্যাপারে শাসক দলের নেতাকর্মীরা কিছু বলতে না পারলেও দলের অঘোষিত নম্বর 2 এর অনুপস্থিতি ক্ষোভের সৃষ্টি করছে তাঁদের অনেকেরই মনের মধ্যে। এদিকে দলনেত্রীর বিক্ষোভ ধরনায় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় কেন তার পাশে নেই এদিন সেই প্রসঙ্গে তৃণমূল ও অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে আক্রমন করে প্রদেশ কংগ্রেসের প্রাক্তন সভাপতি অধীর চৌধুরী বলেন, “আসলে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় আতঙ্কে ভুগছেন।

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রাম, হোয়াটস্যাপ, ফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

তিনি বুঝতে পেরেছেন যে সামনে বিপদ আসছে।” অন্যদিকে অধীর চৌধুরীর এহেন মন্তব্যকে সমর্থন করেন বিজেপির কেন্দ্রীয় মন্ত্রী রবিশংকর প্রসাদ। সত্যিই তো তাই! জাতীয় রাজনীতি যখন এহেন গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় মোড় নিচ্ছে, ঠিক তখনই কেন পিসির পাশে দেখা যাচ্ছে না তারই ভাইপো অভিষেককে!

এদিকে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের অন্তর্ধান রহস্যের যখন তীব্র জল্পনা ছড়িয়ে পড়ছে সব মহলে, ঠিক তখনই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এবারের মেট্রো চ্যানেলের সেই ধরনা মঞ্চে তাঁরই পাশে দেখা গেল সেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়েরই বোনের মেয়ে মুন্নিকে। আর যে মুন্নিকে নিয়েই এখন তীব্র জল্পনা ছড়িয়ে পড়েছে তৃণমূলের অন্দরে।

অনেকে বলছেন, বিগত বাম আমলে সিঙ্গুর আন্দোলন থেকেই প্রিয় ভাইপো অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে রাজনীতির রণাঙ্গনে নামিয়ে এনেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর এবারে তাহলে কি মুখ্যমন্ত্রী হয়ে সেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজের বোনের মেয়ে মুন্নিকে ধরনা মঞ্চে নিজের পাশে রেখে ভবিষ্যতে গেরুয়া শিবিরের বিরুদ্ধে সেই মুন্নিকে নিয়েই লড়াইয়ের বার্তা দিলেন!

কিন্তু মুন্নি থাকলেও অভিষেক কোথায় গেল! কেন গেরুয়া শিবিরের বিরুদ্ধে নেত্রীর লড়াইয়ে তৃণমূল যুব কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সভাপতি একবারও মঞ্চে এলেন না! তা নিয়ে ইতিমধ্যেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে তৃণমূলের নিচুতলার কর্মী-সমর্থকদের মনে। এখন এই প্রশ্নকে চাপা দিতে এবং অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ঠিক কবে প্রকাশ্যে আসেন তারই অপেক্ষায় রয়েছেন সকলে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!