এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > দুই তৃণমূল নেতার বাড়িতে হামলা, মূক-বধির মহিলার শ্লীলতাহানি, অভিযোগ বিজেপির বিরুদ্ধে

দুই তৃণমূল নেতার বাড়িতে হামলা, মূক-বধির মহিলার শ্লীলতাহানি, অভিযোগ বিজেপির বিরুদ্ধে

লোকসভা নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশের পর যত দিন যাচ্ছে, ততই রাজ্য রাজনীতিতে সংঘর্ষের খবর শিরোনামে উঠে আসতে শুরু করেছে। এতদিন রাজ্য রাজনীতিতে যে সমস্ত সংঘর্ষের খবর উঠে আসত, তার বেশিরভাগেই শাসক দল তৃণমূলের বিরুদ্ধে বিজেপি সরব হত। কিন্তু এবার অবস্থার পরিবর্তন হতে শুরু করেছে। দিকে দিকে শাসক দল তৃণমূলই বিজেপির বিরুদ্ধে হামলার অভিযোগ তুলছে।

আর এবার জয়পুর থানার থলিয়া গ্রাম পঞ্চায়েতের ভাতেঘড়ি পশ্চিমপাড়া এলাকায় বিজয় মিছিল থেকে ফেরার পথে দুই তৃণমূল নেতার বাড়িতে হামলার অভিযোগ উঠল বিজেপির বিরুদ্ধে। জানা গেছে, গত রবিবার বিকেলে বিজেপির পক্ষ থেকে জয়পুরের সেহাগোড়ী থেকে বিনলাকৃষ্ণবাটি পর্যন্ত একটি বিজয় মিছিলের আয়োজন করা হয়েছিল।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

তৃণমূলের পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়, বিজেপি তাদের এই বিজয় মিছিল চলার সময় তাদের দলীয় কার্যালয়ে গেরুয়া আবির দিয়ে দেয়। পরবর্তীতে রাতের দিকে তৃণমূলের বুথ সভাপতি নিরঞ্জন হাইত এবং তৃণমূল কর্মী সুনীল প্রামাণিকের বাড়িতে হামলা চালানো এবং মহিলাদের শ্লীলতাহানীরও অভিযোগ ওঠে বিজেপির বিরুদ্ধে। আর এতেই উত্তেজনার সৃষ্টি হয় এলাকায়।

ইতিমধ্যেই এই ব্যাপারে বিজেপির বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে জয়পুর থানায় তৃণমূলের পক্ষ থেকে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। এদিন এই প্রসঙ্গে স্থানীয় তৃণমূলের বুথ সভাপতি নিরঞ্জন হাইত বলেন, “বিজেপি কর্মীরা আমাকে মারধর করতে আসলে আমার মূক ও বধির দিদি বাধা দিতে গেলে তাকে ওরা মারধর করে। এমনকি আমার ছয় মাসের নাতিকেও ছুড়ে ফেলে দেওয়ার চেষ্টা করে। আমি যদি গ্রাম না ছাড়ি তাহলে আমাকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকিও দেওয়া হয়েছে। আমরা থানায় অভিযোগ জানিয়েছি।”

একইভাবে এই ঘটনায় বিজেপির বিরুদ্ধে সরব হয়ে জেলা যুব তৃনমূলের সভাপতি সুকান্ত পাল বলেন, “আসলে লোকসভা ভোটে বিজেপি এই এলাকা থেকে 1900 ভোটে হেরে গিয়েছে। আর সেই কারণেই তারা আমাদের নেতা কর্মীদের মারধর করছে। অবিলম্বে আমরা দোষীদের গ্রেপ্তার করার দাবি জানাচ্ছি।”

তবে তৃণমূলের তোলা এই অভিযোগকে সম্পূর্ণরূপে অস্বীকার করেছে গেরুয়া শিবির। এদিন এই প্রসঙ্গে জেলা বিজেপির সাধারণ সম্পাদক প্রত্যূষ মন্ডল বলেন, “এটা সম্পূর্ণই পারিবারিক বিবাদ। এর সঙ্গে রাজনীতির কোনো সম্পর্ক নেই। আসলে ফায়দা লোটার জন্য বিজেপিকে এসব ঘটনায় জড়ানো হচ্ছে।” সব মিলিয়ে এবার তৃণমূল বনাম বিজেপির অভিযোগ পাল্টা অভিযোগে সরগরম জয়পুর।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!