এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মেদিনীপুর > মুখ্যমন্ত্রীর সফর নিয়ে প্রচার করতে গিয়ে গ্রামবাসীদের হাতে প্রহৃত তৃণমূল নেতারা! উত্তেজনা চরমে

মুখ্যমন্ত্রীর সফর নিয়ে প্রচার করতে গিয়ে গ্রামবাসীদের হাতে প্রহৃত তৃণমূল নেতারা! উত্তেজনা চরমে

যত দিন যাচ্ছে, ততই যেন সাধারণ মানুষের ক্ষোভের মুখে পড়তে হচ্ছে রাজ্যের শাসকদলের নেতা-নেত্রীদের। একসময় রাজ্যে একাধিপত্য থাকা তৃণমূল লোকসভা নির্বাচনে খুব একটা ভালো ফল করতে পারেনি। বিজেপির থেকে আসন বেশি হলেও সদ্যসমাপ্ত নির্বাচনে রাজ্যে গেরুয়া শিবিরের উত্থান তৃণমূলের চিন্তার ভাঁজ অনেকটাই বাড়িয়ে দিয়েছে।

আর এহেন একটা পরিস্থিতিতে দিদিকে বলো কর্মসূচি হোক বা জনসংযোগ কর্মসূচি, প্রায় বিভিন্ন জায়গায় গিয়ে সাধারণ মানুষের অভাব, অভিযোগ শুনতে তৃণমূল নেতা নেত্রীরা মানুষের দুয়ারে পৌছলেও তাদেরকে সাধারন মানুষের তরফে যেভাবে নানা কথা শুনতে হচ্ছে, তাতে রীতিমত বিপর্যস্ত ঘাসফুল শিবির। এবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সফরকে কেন্দ্র করে বীরসিংহ গ্রামে সভা করতে গিয়ে ক্ষোভের মুখে পড়তে হল তৃণমূল নেতাদের।

জানা গেছে, ঈশ্বরচন্দ্র বিদ্যাসাগরের 200 তম জন্মদিবস উদযাপন উপলক্ষে আগামী 26 সেপ্টেম্বর বীরসিংহ গ্রামে আসার কথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। আর তারই প্রস্তুতি হিসেবে রবিবার বিকেলে ঘাটাল থানার বীরসিংহ ভগবতী হাইস্কুলে তৃণমূল নেতারা গ্রামবাসীদের নিয়ে একটি সভার আয়োজন করে। আর এই সভা উপলক্ষ্যে বিকেল সাড়ে তিনটের সময় সেখানে স্থানীয় তৃণমূল নেতারা উপস্থিত হতেই তাদের দেখে গ্রামবাসীরা রীতিমতো ক্ষোভে ফেটে পড়েন।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, বীরসিংহ গ্রামের উন্নয়নের ক্ষেত্রে যে প্রতিশ্রুতি দেওয়া হয়েছিল, তার কোনোটাই করা হয়নি। কেন্দ্রীয় বাসস্ট্যান্ড অচল হয়ে পড়েছে। বিদ্যাসাগরের সম্পত্তি বেদখল হয়ে যাচ্ছে। আর এখানে বিদ্যাসাগরের জন্ম দিবস পালন করবার জন্য কয়েক লক্ষ টাকা খরচ করা হচ্ছে।

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এখানে

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

এদিকে গ্রামবাসীদের ক্ষোভের মুখে পরে এলাকাবাসীর হাতে তৃণমূল নেতাদের মার পর্যন্ত খেতে হয় বলেও জানা যায়। আর এই সুযোগেই তৃণমূলের দলীয় কার্যালয়ে বিজেপি তাদের পতাকা লাগিয়ে সেই কার্যালয়টি দখল করে নেয় বলে অভিযোগ ওঠে। এদিকে এই গোটা ঘটনায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে এলাকায় বিশাল পুলিশবাহিনী পৌঁছে যায়। তাহলে কি সারা বছর তারা যে প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল, তা পূরণ না করায় মুখ্যমন্ত্রী আসার আগে সাধারন মানুষের সঙ্গে কথা বলায় সাধারণ মানুষের ক্ষোভের মুখে পড়তে হল তৃণমূল নেতাদের!

এদিন এই প্রসঙ্গে ঘাটাল ব্লক তৃণমূল সভাপতি তথা ঘাটাল পঞ্চায়েত সমিতির সহ সভাপতি দিলীপকুমার মাঝি বলেন, “আসলে বিজেপি উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে গোটা ঘটনায় গন্ডগোল পাকানোর চেষ্টা করেছে।” অন্যদিকে এই ঘটনার সঙ্গে বিজেপির কোনো সম্পর্ক নেই। গ্রামে উন্নয়ন হয়নি। তাই গ্রামবাসীরা ক্ষোভে ফেটে পড়েছেন বলে জানান ঘাটাল উত্তর মন্ডলের বিজেপির সভাপতি বিশ্বজিৎ জানা।

সব মিলিয়ে যত দিন যাচ্ছে, ততই উন্নয়ন না হওয়ার ইস্যুতে তৃণমূল নেতাদের যেভাবে সাধারণ মানুষের বিক্ষোভের মুখে পড়তে হচ্ছে, তাতে অদূর ভবিষ্যতে যে তৃণমূলকে এর জন্য করুণ অবস্থার শিকার হতে হবে, সেই ব্যাপারে নিশ্চিত সমালোচক মহল।

আপনার মতামত জানান -
Top