এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মেদিনীপুর > গরিব শ্রমিকদের ব্যবহার করে ক্ষমতায় এসে তাদের ভুলে গিয়েছে! বিস্ফোরক অভিযোগে বিদ্ধ শাসকদল

গরিব শ্রমিকদের ব্যবহার করে ক্ষমতায় এসে তাদের ভুলে গিয়েছে! বিস্ফোরক অভিযোগে বিদ্ধ শাসকদল

সম্প্রতি মেদিনীপুরে হয়ে গেল তৃণমূলের জনসমাবেশ। আর সেই মেদিনীপুরেই তৃণমূলের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠল যে যাদের ব্যবহার করে তৃণমূল ক্ষমতায় এল দরকার মিটে যেতেই তাদের ভুলে গেছে। এই অভিযোগ জানিয়েছেন মেদিনীপুর পুর সাফাই শ্রমিকরা।

 

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে।

ঘটনার সূত্রপাত পুর-কর্মীদের ধর্মঘটে। অস্থায়ী ও ঠিকাকর্মীদের ন্যূনতম দশ হাজার টাকা বেতন, ওই হারে দীর্ঘদিন কর্মরতদের বর্ধিত বেতন দেওয়া, কর্মরত অবস্থায় মৃত কর্মীর পরিবারের একজনকে স্থায়ী চাকরি দেওয়া – সহ বেশ কিছু দাবিতে আন্দোলন ও  তৎপরবর্তী ধর্মঘটের জেরে টানা সাতদিন সাফাই বন্ধ থাকায় আবর্জনার পাহাড় ভ্যাট ছাপিয়ে এসে পড়ছে রাস্তায়। সব মিলিয়ে শহর মেদিনীপুরে এখন এক অস্বাস্থ্যকর পরিবেশ। শনিবার মেদিনীপুরে সভায় যোগ দিতে এসেছিলেন পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম। তাঁকে পুরসভায় সাফাই ধর্মঘট চলার বিষয়টি জানানো হয়। বিস্তারিত জেনে এমকেডিএ-র কর্তাদের প্রয়োজনীয় নির্দেশ দিয়ে জানিয়ে দেন রবিবার থেকে এমকেডিএ শহরে সাফাই শুরু করবে। সেই মতো রবিবার থেকে শহরে সাফাই শুরু হয়েছে। পুরো শহরে সাফাই চালানোর পরিকাঠামো পর্ষদের নেই। ফলে, সঙ্কট পুরোপুরি কাটছে না।

এদিকে পুর-শ্রমিক সংগ্রাম কমিটির ডাকা বন্ধের মুখ্য দাবীগুলি না মিটলে আজ সোমবারও পুরসভার সামনে শ্রমিক-কর্মচারীদের অবস্থান-বিক্ষোভ চলবে বলে জানিয়েছে কমিটি। পুর-শ্রমিক সংগ্রাম কমিটির নেতা তপন মুখোপাধ্যায়ের কথায় “এমকেডিএ- কে দিয়ে কী ভাবে পুরো শহর সাফাই করা যায় দেখি। যুক্তিসঙ্গত দাবিতে ধর্মঘট হচ্ছে। দাবিপূরণ না- হলে ধর্মঘট প্রত্যাহারের প্রশ্নই নেই।’’ সিটু নেতা সারদা চক্রবর্তী বলেন আন্দোলনের দাবী ন্যায্য। তাই এ বিষয়ে তারা পুরোপুরি ভাবে সমর্থন করছেন পুর-শ্রমিক সংগ্রাম কমিটিকে।

 

Top
error: Content is protected !!