এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > পুজোর মুখেও তৃনমূলের গোষ্টীদ্বন্দ্ব অব্যাহত-গুলিতে মৃত যুবকর্মী, গ্রেপ্তার দুই, থমথমে এলাকা

পুজোর মুখেও তৃনমূলের গোষ্টীদ্বন্দ্ব অব্যাহত-গুলিতে মৃত যুবকর্মী, গ্রেপ্তার দুই, থমথমে এলাকা

পুজোর মুখে গোটা বাংলাকে উৎসবমুখর করে তুলতে যখন দলীয় কর্মীদের নির্দেশ দিচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী ঠিক তখনই ক্ষমতার আধিপত্যের জন্য প্রবল সংঘর্ষ বাধল শাসকদলের দুই গোষ্টীর মধ্যে। যা নিয়ে বর্তমানে তীব্র চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে পরশুড়ার শ্যামপুর অঞ্চলে। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, দীর্ঘদিন ধরেই এই এলাকায় শাসকদলের দুই বিবাদমান গোষ্টীর লড়াই চলছিল। কিন্তু পঞ্চায়েতের দখল নিয়ে সম্প্রতি সেই লড়াইয়ের মাত্রা আরও বৃদ্ধি পায়। সূত্রের খবর, আজ পরশুড়া মহকুমায় পঞ্চায়েত সমিতির স্থায়ী সমিতি গঠন হওয়ার কথা ছিল। যা নিয়ে গত মঙ্গলবার রাতে তৃনমূল ও তৃনমূল যুবর মধ্যে একটি গন্ডগোলের সৃষ্টি হয়। আর সেইসময়ই যুব তৃনমূল কর্মী শেখ মঞ্জুর আলি গুলিবিদ্ধ হন।

এদিকে দলীয় কর্মীর গায়ে গুলি লাগায় সকলে মিলে তাকে পরশুড়া ব্লক প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি করে। সেখান থেকে পরে আরামবাগ মহকুমা হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয় তাকে। এদিকে তৃনমূলের দুই গোষ্টীর এই বিবাদে সেদিনই এলাকা থেকে গ্রেপ্তার করা হয় আবু হুড়াই এবং শেখ মুন্তাজ নামে দুই ব্যাক্তিকে। গতকাল ধৃতদের আরামবাগ আদালতে তোলা হলে বিচারক দুজনকেই চারদিনের পুলিশি হেফাজতের নির্দেশ দেন। পাশাপাশি আইনশৃঙ্খলায় বিঘ্ন ঘটতে পারে বলে সেখানকার স্থায়ী সমিতি গঠনের প্রক্রিয়া আপাতত বাতিল করা হয়েছে বলে জানান আরামবাগের মহকুমাশাসক লক্ষ্মী বি তেন্নেরু। কিন্তু কে গুলি করল তাঁকে?

এদিন এই প্রশ্নের উত্তরে গুলিবিদ্ধ তৃনমূল কর্মী মঞ্জুল শেখ বলেন, “আমরা যুব সংগঠন করি। তৃনমূলের পারভেজ রহমানের অনুগামীরাই আমাকে গুলি করেছে।” অন্যদিকে একই অভিযোগ করে সেই পারভেজ রহমানের দিকেই আঙুল তুলেছেন তৃনমূল যুবর পরশুড়া ব্লক সভাপতি মিসাবউদ্দিন ওরফে খোকন মল্লিক।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

তবে এই ঘটনায় নিজের বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন হুগলির তৃনমূলের সংখ্যালঘু সেলের চেয়ারম্যান তথা প্রাক্তন বিধায়ক পারভেজ রহমান। কিন্তু এইভাবে আর কতদিন এই গোষ্টীদ্বন্দ্ব চলবে! এই নিয়ে উঠেছে প্রশ্ন। এদিন এই প্রশ্নের উত্তরে জেলা তৃনমূলের কার্যকরী সভাপতি তথা মন্ত্রী অসীমা পাত্র বলেন, “শ্যামপুরের ঘটনা দল বরদাস্ত করে না। দুজন গ্রেপ্তার হয়েছে। পুরো ঘটনার তদন্ত করতে বলা হয়েছে।” সব মিলিয়ে উৎসবের আগে এবার শাসকদলের গোষ্টীদ্বন্দ্বে রক্ত ঝড়ল শ্যামপুরে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!