এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > খড়্গপুরে মাফিয়ারাজ ফিরিয়ে আনতে চাইছে তৃণমূল! দিলীপ ঘোষের অভিযোগে টালমাটাল রাজ্য – রাজনীতি

খড়্গপুরে মাফিয়ারাজ ফিরিয়ে আনতে চাইছে তৃণমূল! দিলীপ ঘোষের অভিযোগে টালমাটাল রাজ্য – রাজনীতি

সদ্যসমাপ্ত লোকসভা নির্বাচনে খড়্গপুরের প্রাক্তন বিধায়ক দিলীপ ঘোষ মেদিনীপুর লোকসভা কেন্দ্র থেকে জয়যুক্ত হয়েছেন। তাই তার ছেড়ে যাওয়া আসনে সম্প্রতি অনুষ্ঠিত হতে চলেছে উপনির্বাচন। তৃণমূল-বিজেপি দুজনের পক্ষেই এই নির্বাচন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। তৃণমূলের কাছে যেমন এটা প্রেস্টিজ ফাইট, অপরদিকে পদ্মফুল শিবিরের কাছে গড় রক্ষার লড়াই। তাই খড়গপুর বিধানসভা উপনির্বাচন বাংলার রাজনীতিতে যে টানটান উত্তেজনা তৈরি করবে, সে বিষয়ে প্রায় প্রত্যেকেই একমত।

কিন্তু গত রবিবার খড়্গপুরে একটি সভায় গিয়ে বিজেপির রাজ্য সভাপতি তথা খড়্গপুরের প্রাক্তন বিধায়ক দিলীপ ঘোষ দাবি করেন, খড়্গপুরে মাফিয়ারাজ ফিরিয়ে আনতে চাইছে তৃণমূল। সম্প্রতি 5 দিনের ব্যবধানে শহরের দুই জায়গায় গুলি চলে। আর এই বিষয় তুলে ধরেই দীলিপ ঘোষ বলেন, “যেভাবে জঙ্গলমহলের ভোটে জেতার জন্য মাওবাদীদের জাগিয়ে তোলার চেষ্টা চলছে, ঠিক একইভাবে খড়্গপুরে মাফিয়ারাজ ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করছে তৃণমূল। তাই আবার শহরে গুলির লড়াই শুরু হয়েছে।”

দিলীপবাবু আরও বলেন, “শহরের মানুষ এইসব পছন্দ করে না। তাই বিধানসভা ভোটে আমাকে জিতিয়েছিলেন। এই শহরে মাফিয়া রাজ একটা চরম পর্যায়ে গিয়েছিল। এক সময় মাফিয়া খুনের ঘটনায় আমাকে ফাসিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করা হয়েছিল। কিন্তু পারেনি। খড়্গপুরে এখন শান্তি ফিরেছে। মাফিয়া রাজ একেবারে বন্ধ হয়ে গেছে। তাই মানুষ আত্মবিশ্বাসী হয়েছে। তাই লোকসভা ভোটে আবার আমাকে প্রায় 45 হাজার ভোটে এগিয়ে দিয়েছেন। তবে তৃণমূল যতই চেষ্টা করুক, তা সফল হবে না। মানুষের শান্তি বিনষ্ট হতে দেব না।”

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

অন্যদিকে দিলীপ ঘোষ এদিনের সভা থেকে সন্ত্রাস ছাড়া তৃণমূলের জেতার অন্য কোনো পথ নেই বলে তৃণমূলকে যে তারা কখনই তা করতে দেবে না, তাও নিজের বক্তব্যের মধ্যে দিয়ে তিনি বুঝিয়ে দেন। এদিন দলীয় সভা করার পাশাপাশি খড়গপুর গ্রামীণ এলাকায় ওয়ালিপুরে জনতার দরবার কর্মসূচিতে যোগ দেন বিজেপি সাংসদ দিলীপ ঘোষ।

প্রসঙ্গত, এই মেদিনীপুর লোকসভা নির্বাচনে একমাত্র এই বিধানসভা কেন্দ্রেই তৃণমূল এগিয়ে ছিল। তাই তৃণমূলের কাছ থেকে এই আসন ছিনিয়ে নিতে জনসংযোগের রাস্তা বেছে নিয়েছেন দিলীপবাবু। এদিন স্থানীয় বাসিন্দারা তার সঙ্গে দেখা করে নানা সমস্যার কথা তুলে ধরেন। নানান দাবিও জানান তারা। বালি খাদান নিয়েও সাংসদের কাছে সরব হন অনেকে।

তবে এদিন খড়গপুর শহরের বিভিন্ন বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে দিলীপ ঘোষ সেই সমস্ত এলাকার বাসিন্দাদের সঙ্গে কথা বলেন। চায়ের দোকানের আড্ডায় বসলে সমস্ত জায়গার অনেকেই তার সঙ্গে দেখা করেন। এদিন একটি স্বাস্থ্য শিবিরের উদ্বোধন করেন দিলীপবাবু। যদিও দিলীপ ঘোষের বক্তব্যের বিরোধিতা করে তৃণমূল কংগ্রেস।

এদিন এই প্রসঙ্গে খড়গপুর শহর কমিটির সভাপতি তথা পৌরসভার কাউন্সিলর রবিশংকর পান্ডে বলেন, “তৃণমূল মাফিয়ারাজকে সমর্থন করে না। তৃণমূলের সঙ্গে কোনো মাফিয়ারাও নেই। খড়গপুর শহরে মাফিয়ারা এখন দীলিপবাবুর দলেই রয়েছে। তবে আমরা এই শহরে মাফিয়া ব্যবহার করতে দেব না।”

রবিবাবুর দাবি, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উন্নয়নকে হাতিয়ার করেই আগামী দিনে আমরা খড়গপুর বিধানসভা জিতব। কিন্তু আগামী দিনে খড়গপুর বিধানসভা রাজ্য রাজনীতির যে আকর্ষণের কেন্দ্র হতে চলেছে, সে বিষয়ে প্রায় সকলেই একমত। তাই এই নির্বাচনে শেষ পর্যন্ত কে শেষ হাসি হাসে, সেদিকেই নজর সকলের।

Top
error: Content is protected !!