এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > জোট প্রস্তাবে কি উত্তর দিলো তৃণমূলকে – কংগ্রেস? জেনে নিন

জোট প্রস্তাবে কি উত্তর দিলো তৃণমূলকে – কংগ্রেস? জেনে নিন

2011 সালে রাজ্যে পালাবদলের পর থেকেই সারা রাজ্যে বিরোধীশূন্য করার ডাক দিয়েছিলেন তৃণমূল নেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু তার এই বিরোধীশূন্য করার ডাক যে ভবিষ্যতে কাল হয়ে দাঁড়াবে, তা বুঝতে পারেনি কেউই। আর তাই তো ক্ষমতায় আসার পর থেকে বিরোধী দল কংগ্রেসের জনপ্রতিনিধিদেরকে নিজেদের দিকে টেনে যেভাবে বিরোধীদলের আধিপত্যকে ক্ষুন্ন করার চেষ্টা করেছিল তৃণমূল, ঠিক একইভাবে এখন নিজেদের ভুল বুঝতে পেরে বিজেপিকে রুখতে সেই কংগ্রেসকে পাশে পেতে মরিয়া তারা।

সূত্রের খবর, এবার কালিয়াগঞ্জ বিধানসভার উপনির্বাচনে কংগ্রেসের সমর্থন চাইল তৃণমূল। উত্তর দিনাজপুর জেলায় ‘দিদিকে বলো’ এবং দলের জনসংযোগ কর্মসূচি নিয়ে মঙ্গলবার রায়গঞ্জে দলের জেলা কার্যালয়ে বৈঠক করেন জেলা তৃণমূল সভাপতি কানাইয়ালাল আগরওয়াল। আর সেখানেই তিনি বলেন, ‘‘কালিয়াগঞ্জ বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচনে বিজেপিকে রুখতে দলের তরফে কংগ্রেসের সমর্থন চাওয়া হচ্ছে। প্রয়োজনে আমি জেলা কংগ্রেস নেতৃত্বের সঙ্গে আলোচনায় বসতেও প্রস্তুত রয়েছি।’’

তবে যেভাবে রাজ্যে বিজেপির বাড়বাড়ন্ত হয়েছে, তাতে সেই বিজেপিকে রুখতে এবার একদা প্রতিপক্ষ কংগ্রেসকে পাশে চাইছে তৃণমূল। কিন্তু তৃণমূলের তরফে সহযোগিতার হাত বাড়ানোর জন্য আবেদন করা হলেও অতীতের সমস্ত ঘটনা ভুলে গিয়ে কি তৃণমূলের সঙ্গে জোট করবে কংগ্রেস? প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছিল। আর সেই প্রশ্ন উঠতেই স্পষ্ট ভাষায় উত্তর দিনাজপুর জেলা কংগ্রেসের সভাপতি মোহিত সেনগুপ্ত জানিয়ে দিয়েছেন যে তাঁরা এই উপনির্বাচনে কংগ্রেস তৃণমূলকে সমর্থন করবে না।

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রাম, হোয়াটস্যাপ, ফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

এদিন তিনি বলেন, ‘‘কালিয়াগঞ্জ বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচনে প্রমথনাথবাবুর মেয়েকে দাঁড় করানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে কংগ্রেস। পরাজিত হওয়ার আশঙ্কায় তৃণমূল এখন কংগ্রেসের কাছে সমর্থন চাইছে।’’ অন্যদিকে জেলা কংগ্রেস সভাপতি মোহিত সেনগুপ্তর এহেন দাবি মানতে নারাজ রাজ্যের শাসক দল।

এদিন এই প্রসঙ্গে উত্তর দিনাজপুর জেলা তৃণমূল সভাপতি কানাইয়ালাল আগরওয়াল পাল্টা বলেন, ‘‘গত লোকসভা নির্বাচনে কালিয়াগঞ্জ বিধানসভা কেন্দ্রে তৃণমূল ৬১ হাজার ও কংগ্রেস ১৮ হাজার ভোট পেয়েছে। কিন্তু ওই কেন্দ্র এলাকা থেকে বিজেপি তৃণমূলের থেকে ৫৪ হাজার ভোট বেশি পেয়েছে। তাই বিজেপিকে রুখতে কংগ্রেসের তৃণমূলকে সমর্থন না করে কাকে সুবিধা করে দিতে চাইছে, তা জনগণ বিচার করবে।’’ তবে তৃণমূল এসব যুক্তি দিয়ে কোনও লাভ হবে না বলে জানিয়ে দিয়েছেন কংগ্রেসের মোহিত সেনগুপ্ত।

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, এক সময় এই তৃণমূলের পক্ষ থেকে কংগ্রেসকে শেষ করে দেওয়ার জন্য হুংকার ছাড়া হয়েছিল। ফলে এখন বিজেপিকে রোখবার জন্য তৃণমূল কংগ্রেসকে পাশে চাইলেও কংগ্রেস যে তাতে রাজি হবে না, তা অত্যন্ত স্বাভাবিক। তবে শেষ পর্যন্ত তৃণমূলের তরফে বিজেপিকে রুখতে কংগ্রেসকে পাশে পাওয়ার জন্য কোনো কৌশল গ্রহণ করা হয় কিনা, এখন সেদিকেই তাকিয়ে সকলে।

প্রসঙ্গত, গত ২০১৬ সালে কালিয়াগঞ্জ বিধানসভা কেন্দ্রে কংগ্রেসের টিকিটে পুনর্নির্বাচিত হন প্রমথনাথ রায়। তবে দীর্ঘদিন তিনি অসুস্থ থাকার পর প্রায় দু’মাস আগে তাঁর মৃত্যু হয়। তাই এবার সেই শূন্যস্থান পূরণ করার জন্য কালিয়াগঞ্জ বিধানসভা কেন্দ্রে উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!