এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > 57 হাজারে পিছিয়ে থাকা কালিয়াগঞ্জে জয়ই পুরভোটে তৃণমূলকে এককভাবে ক্ষমতার স্বপ্ন দেখাচ্ছে

57 হাজারে পিছিয়ে থাকা কালিয়াগঞ্জে জয়ই পুরভোটে তৃণমূলকে এককভাবে ক্ষমতার স্বপ্ন দেখাচ্ছে

উপনির্বাচনকে যদি সকল রাজনৈতিক দল কোয়ার্টার ফাইনাল ধরে, তাহলে সেমিফাইনাল আগামী পৌরসভা নির্বাচন। আর তারপরই ফাইনাল পর্ব অনুষ্ঠিত হবে, 2021 এর বিধানসভা নির্বাচন। ইতিমধ্যেই কোয়ার্টার-ফাইনালে উত্তীর্ণ হয়েছে শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস। এবার তাদের টার্গেট, আগামী পৌরসভা নির্বাচনে সেমিফাইনাল পর্ব। যে পর্বে উত্তর দিনাজপুর জেলার প্রায় সমস্ত পৌরসভাতেই ভালো ফল করতে উদ্যোগী হয়েছে ঘাসফুল শিবির।

জানা গেছে, সামনের বছরেই উত্তর দিনাজপুর জেলার ইসলামপুর, কালিয়াগঞ্জ এবং ডালখোলা পৌরসভার নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। ইতিমধ্যেই এই পৌরসভা এলাকায় দলের স্বপক্ষে যেমন প্রচার করা শুরু করেছেন তৃণমূলের নেতাকর্মীরা, ঠিক তেমনই স্বচ্ছ ভাবমূর্তি ব্যক্তিদের প্রার্থী করে যাতে জয় নিশ্চিত করা যায়, তার জন্য রণকৌশল চালাচ্ছে ঘাসফুল শিবির। বস্তুত, অতীতে এই তিন পৌরসভার নির্বাচন হলেও সেখানে তৃণমূল কংগ্রেস ক্ষমতা দখল করতে পারেনি।

পরবর্তীতে বিরোধীদলের টিকিটে জেতা কাউন্সিলরদের ভাঙ্গিয়ে নিজেদের দলে এনে তিন পৌরসভায় নিজেদের কর্তৃত্ব বজায় রেখেছে শাসক দল। তাই এই পরিস্থিতিতে সামনের নির্বাচনে যাতে পৌরসভা ভালো করে প্রথম থেকেই কর্তৃত্ব ধরে রাখা যায়, তার চেষ্টায় মরিয়া তৃণমূল কংগ্রেস। বিশেষজ্ঞদের মতে, এই তিন পৌরসভা তৃণমূলের দখলে যাওয়ার ব্যাপারে আশাবাদী জেলা নেতৃত্ব।

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এখানে

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

কেননা সদ্য সমাপ্ত হয়েছে এই জেলার একটি বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচন। যেখানে জয়লাভ করেছেন তৃণমূলের প্রার্থী তপন দেব সিংহ। অনেকে ভেবেছিলেন, এই উপনির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেস দাগ কাটতে পারবে না। কিন্তু বিগত লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির টিকিটে রায়গঞ্জ থেকে জেতা দেবশ্রী চৌধুরী কালিয়াগঞ্জ 57000 লিড পেলেও তাকে দমিয়ে দিয়ে 2000 এর বেশি কিছু ভোটে এখানে জয়লাভ করেছেন তৃণমূল প্রার্থী। পাশাপাশি বিগত দিনে এই কালিয়াগঞ্জ কেন্দ্র কংগ্রেসের দখলে থাকলেও, এবার সেখানে ফুটে গিয়েছে ঘাসফুল।

ফলে সেদিক থেকে কালিয়াগঞ্জে বিরোধী রাজনৈতিক দলকে কুপোকাত করে তৃণমূলের সাফল্য পাওয়া পৌরসভা নির্বাচনেও সাফল্য এনে দেবে বলে মত বিশেষজ্ঞদের। এদিন এই প্রসঙ্গে উত্তর দিনাজপুর জেলা তৃণমূলের সভাপতি কানাইলাল আগরওয়াল বলেন, “উন্নয়নের কাজের নিরিখেই আগামী দিনে তিনটি পৌরসভা তৃণমূলের দখলে আসবে। যে কোনোদিন পুরভোট হলে তৃণমূল ভালো ভল করবে। এখন আমাদের লক্ষ্য পৌরসভা নির্বাচন।”

তিনি স্পষ্ট করে দেন, “তাই সংগঠনকে মজবুত করা হবে। জানুয়ারিতে ডোর টু ডোর ক্যাম্পেনিং করা হবে। জনপ্রতিনিধিদের টিকিট তারাই পাবেন, যাদের স্বচ্ছ ভাবমূর্তি রয়েছে। তাই কারও সম্পর্কে খারাপ রিপোর্ট দিলে তিনি যে স্তরেরই নেতা হোন না কেন, তাকে দল প্রার্থী করবে না।” বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আগামী বিধানসভা নির্বাচনের আগে সদ্যসমাপ্ত বিধানসভা উপনির্বাচনে তৃণমূল সাফল্য পাওয়ার পর, যদি আগামী পৌরসভা নির্বাচনে সাফল্য না পায়, তাহলে তা তাদের পক্ষে অত্যন্ত চাপের হবে।

তাই এখন থেকে উত্তর দিনাজপুর জেলার পৌরসভা নির্বাচনকে লক্ষ্য করে তৃণমূল তাদের ঘুটি সাজাতে শুরু করেছে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত কালিয়াগঞ্জ বিধানসভার মত এই জেলার পৌরসভাগুলো দখল করতে তৃণমূল সক্ষম হয়, নাকি তাদের বাধ সাধে বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো! সেদিকেই তাকিয়ে সকলে। কেননা, উপনির্বাচনে ধাক্কা খাওয়ার পর বিজেপি যে কার্যত এখন খোঁচা খাওয়া বাঘ – সে কথা মেনে নিচ্ছে প্রায় সকল রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞই। ফলে, উত্তরবঙ্গ এখন এক জমজমাট রাজনৈতিক লড়াইয়ের দিকে তাকিয়ে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!