এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > তৃণমূল ছাত্র পরিষদের দুই গোষ্ঠীর সংঘর্ষের মাঝখানে পড়ে ফের আহত হলেন উপাচার্য

তৃণমূল ছাত্র পরিষদের দুই গোষ্ঠীর সংঘর্ষের মাঝখানে পড়ে ফের আহত হলেন উপাচার্য

তৃণমূল ছাত্র পরিষদের দুই গোষ্ঠীর সংঘর্ষের মাঝখানে পড়ে ফের আহত হলেন উপাচার্য।ঘটনাটি ঘটেছে কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের দফতরের সামনে।কলেজ সূত্রে খবর, সোমবার উপাচার্যের দফতরের সামনেই  দুপক্ষের মধ্যে তুমুল সংঘর্ষ-ভাঙচুর চলে।

অভিযোগ, সংস্কৃত বিভাগের পিএইচডি-র তালিকা থেকে কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের সাধারণ সম্পাদক লগ্নজিতা চক্রবর্তী-সহ আট জনের নাম বাদ দেওয়ার চেষ্টা হয়েছিল বলে।সিন্ডিকেটের সিদ্ধান্ত নেয় প্রকাশিত প্রাথীর নামের তালিকায় কিছু রদবদল করে নতুন ভাবে প্রকাশিত হবে তালিকা। কিন্তু সোমবার তালিকা প্রকাশ না হওয়ায় লগ্নজিতা এবং অন্য পড়ুয়ারা এ বিষয়ে কথা বলবার জন্য উপাচার্যের সঙ্গে দেখা করতে যান।অভিযোগ উপাচার্য তাদের সাথে দেখা না করেই তারা অবস্থান বিক্ষোপে বসেন।সন্ধ্যায় সেখানে আসেন লগ্নজিতার বিরোধী গোষ্ঠীর নেতা আব্দুল কাইয়ুম মোল্লা এবং মণিশঙ্কর মণ্ডল।উপাচার্যকে অবরোধের মধ্যে থেকে তাঁরা বার করে নিয়ে যাওয়ার সময় তাঁদের বিরুদ্ধে অবরোধকারীদের ব্যাপক মারধর করার অভিযোগ উঠেছে।

এ দিনের ঘটনার পরে ছড়িয়ে পড়ে একটি ভিডিও। তাতে দেখা যায়, উপাচার্যের দফতরের সামনে ধস্তাধস্তির মধ্যে কাঁদছেন লগ্নজিতা। রয়েছেন উপাচার্য সোনালি চক্রবর্তী বন্দ্যোপাধ্যায় এবং সহ উপাচার্য (অর্থ) মীনাক্ষী রায়। লগ্নজিতার অভিযোগ ‘‘উপাচার্য কাইয়ুম, মণিশঙ্করদের ডেকে এনেছিলেন। ওরা প্রচুর বহিরাগতকে নিয়ে এসে অবস্থানকারীদের মেরেছে।’’ কাইয়ুমের বক্তব্য, ‘‘উপাচার্যকে আটকে রাখা হয়েছিল। আমরা সুষ্ঠু ভাবে তাঁকে বার করে এনেছি।’’ উপাচার্য অবশ্য বলেন, ‘‘আমি কেন ডাকব? ধস্তাধস্তিতে আমারই পিঠে আঘাত লেগেছে।’’

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!