এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > স্থানীয় দাবি মেনে প্রদীপ সরকারকে খড়্গপুরে প্রার্থী করায়, জয় শুধু সময়ের অপেক্ষা দাবি শাসকদলের

স্থানীয় দাবি মেনে প্রদীপ সরকারকে খড়্গপুরে প্রার্থী করায়, জয় শুধু সময়ের অপেক্ষা দাবি শাসকদলের

 

2016 সালে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ এই খড়গপুর বিধানসভা কেন্দ্র থেকে জয়লাভ করেন। আর তারপরই তিনি সারা রাজ্যে দলকে দিয়ে তৃণমূলের ঘাড়ে নিঃশ্বাস ফেলাতে শুরু করেছিলেন। তবে তৃণমূলও সুযোগ খুঁজছিল, কিভাবে দিলীপ ঘোষকে পরাস্ত করা যায়। সেইমত লোকসভা নির্বাচনে তারা গুটিও সাজিয়েছিল। তবে মেদিনীপুর লোকসভা কেন্দ্রে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ প্রার্থী হয়ে নিজের জয় নিশ্চিত করে নিয়েছেন।

আর তাই তার ছেড়ে যাওয়া আসন খড়গপুর বিধানসভা কেন্দ্রে এবার উপ-নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। তাই তৃণমূলের টার্গেট, এবার এই কেন্দ্রে যেন-তেন প্রকারেণ জয়লাভ করা। কিন্তু দিলীপ ঘোষের গড় বলে পরিচিত খড়গপুরে জয়লাভ করতে গেলে স্থানীয় প্রার্থী দিয়েই যে বিজেপিকে কুপোকাত করতে হবে, সেই ব্যাপারে নিশ্চিত ছিল রাজনৈতিক মহল।

সেইমত দলীয় স্তরে একাধিক প্রার্থী নিয়ে আলোচনা হলেও খড়গপুর পৌরসভার তৃণমূলের চেয়ারম্যান প্রদীপ সরকারের সমর্থনে সেখানকার একাধিক তৃণমূল কাউন্সিলর দলের কাছে আবেদন জানিয়েছিলেন। যার ফলে গত বৃহস্পতিবার তৃণমূলের তরফে খড়গপুর বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচনের জন্য দলীয় প্রার্থী হিসেবে প্রদীপ সরকারের নাম ঘোষণা করা হয়।

আর প্রদীপবাবুর নাম ঘোষণার সাথে সাথেই তাঁর পৌরসভার অফিসের সামনে এসে কর্মী, সমর্থকরা তাঁকে অভিনন্দন জানাতে শুরু করেন। তৃণমূলের অনেকে দাবি করছেন, প্রদীপ সরকার প্রার্থী হওয়ায় এখন এই খড়গপুর বিধানসভা কেন্দ্রে তাদের জয়লাভ শুধুই সময়ের অপেক্ষা।

কিন্তু বিশ্লেষকদের একাংশ বলছেন, যেখানে দিলীপ ঘোষের মতো দোর্দণ্ডপ্রতাপ বিজেপি নেতা রয়েছেন, সেখানে তৃণমূলকে কি অত সহজেই ময়দান ছেড়ে দেবে গেরুয়া শিবির! বস্তুত, 2016 সালে বিজেপি এই কেন্দ্র জেতার পর সদ্যসমাপ্ত মেদিনীপুর লোকসভা কেন্দ্রে দিলীপ ঘোষের পাওয়া সমর্থন গেরুয়া শিবিরের আত্মবিশ্বাস আরও বাড়িয়ে দিয়েছে। ফলে স্থানীয় প্রার্থী হিসেবে খড়গপুর পৌরসভার চেয়ারম্যান প্রদীপবাবুকে তৃণমূল প্রার্থী করলেও লড়াই অত সহজ হবে না বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

তবে তিনি প্রার্থী হওয়ায় দলের নেতাকর্মীরা যে অনেকটাই উজ্জীবিত, তা জেলা তৃণমূল নেতৃত্ব থেকে শুরু করে ঘাসফুল শিবিরের অন্যান্যদের কথাতেই প্রমাণ হয়ে গেল। এদিন এই প্রসঙ্গে জেলা তৃণমূলের সভাপতি অসিত মাইতি বলেন, “শুভেন্দুবাবুর সঙ্গে কথা বলে নির্বাচন পরিচালনা কিভাবে হবে, তা ঠিক করা হবে। ঐক্যবদ্ধভাবে সবাই কাজে নেমে পড়বেন।”

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এখানে

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

এদিকে এই প্রসঙ্গে খড়গপুর শহর তৃণমূলের সভাপতি রবিশংকর পান্ডে বলেন, “দল যাকে প্রার্থী করেছে, আমরা সবাই তাঁর হয়ে কাজ করব।” একইভাবে এই খড়গপুর পৌরসভার কাউন্সিলর তথা সিআইসি সদস্য তৈমুর আলি খান বলেন, “জনগণ প্রদীপবাবুকে প্রার্থী চেয়েছিলেন। আমরা কাউন্সিলররা দলের কাছে আবেদন করেছিলাম, যাতে তাঁকে প্রার্থী করা হয়। দলনেত্রী সেই আবেদন রেখেছেন। এজন্য আমরা তাঁর কাছে কৃতজ্ঞ। প্রদীপবাবুর জয় শুধু সময়ের অপেক্ষা।”

তবে এই কেন্দ্রে প্রার্থী হওয়ার ব্যাপারে ইচ্ছা থাকা খড়গপুর পৌরসভার কাউন্সিলর তথা জেলা তৃণমূলের সাধারণ সম্পাদক দেবাশীষ চৌধুরী বলেন, “দল প্রার্থী করেছে, সেখানে আমার কি বলার আছে! আমি এই ব্যাপারে কোনো মন্তব্য করব না।” তবে দেবাশিসবাবু মুখে কিছু না বললেও, ভেতরে যে তাঁর অভিমান হয়েছে, সেই ব্যাপারে নিশ্চিত সমালোচক মহল।

কিন্তু যে যাই বলুক না কেন, খড়গপুর বিধানসভা উপনির্বাচনে স্থানীয় নেতৃত্বের দাবি মত প্রদীপ সরকার প্রার্থী হওয়ায় তৃণমূল শিবির যে অত্যন্ত খুশি, তা তাদের আচার-আচরণে প্রমাণ হয়ে যাচ্ছে। তবে শেষ পর্যন্ত বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের ছেড়ে যাওয়া আসনে তৃণমূল প্রদীপ সরকারকে দিয়ে তাদের জয় কতটা নিশ্চিত করাতে পারে, এখন সেদিকেই তাকিয়ে সকলে।

 

চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়াতে — খুব শীঘ্রই আসছে — খড়গপুর উপনির্বাচনে সম্ভাব্য ফলাফল

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!