এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > ফের তৃনমূলের বিরুদ্ধে বোমা ফাটালেন মুকুল রায়, বড়সড় অস্বস্তিতে শাসকদল

ফের তৃনমূলের বিরুদ্ধে বোমা ফাটালেন মুকুল রায়, বড়সড় অস্বস্তিতে শাসকদল

অনেকদিন হয়ে গেল, তিনি তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান করেছেন। আর গেরুয়া শিবিরে নাম লেখানোর পর থেকেই প্রাক্তন দল তৃণমূল কংগ্রেস ও প্রাক্তন নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে বিভিন্ন ইস্যুতে বিস্ফোরক মন্তব্য করতে দেখা গেছে বঙ্গ বিজেপির চাণক্য মুকুল রায়কে।

আর এই মুকুলবাবুর হাত ধরেই এবারের লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি বাংলায় ব্যাপক সাফল্য পেয়েছে। কিন্তু তার প্রধান টার্গেট আগামী 2021 সালে বিধানসভা নির্বাচন। আর তাই এখন থেকেই ক্রমাগত তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে আক্রমণ শানাতে শুরু করেছেন তিনি। আর তাই এবার নিজের প্রাক্তন দল সম্পর্কে বিস্ফোরক মন্তব্য করতে দেখা গেল বঙ্গ বিজেপির এই হেভিওয়েট নেতাকে।

বস্তুত, এদিন বিগত 2013 সালে হাওড়া সদর লোকসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচনে বিজেপির প্রার্থী না দেওয়ার পেছনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে বিজেপির সমঝোতার কথা তুলে ধরেন তিনি। মুকুল রায় বলেন, “2013 সালের উপ-নির্বাচনে প্রার্থী দিয়েছিল বিজেপি। কিন্তু তখন আমি যে দল করতাম, সেই তৃণমূলের নির্দেশে আমি রাজনাথ সিংহকে প্রার্থী প্রত্যাহারের অনুরোধ করেছিলাম। আর তাই বিজেপি প্রার্থীপদ প্রত্যাহার করেছে।”

আর মুকুল রায়ের এখানেও দাবি ঘিরেই এবার রাজনৈতিক মহলে শুরু হয়েছে চাঞ্চল্য প্রসঙ্গত গত 2009 সালের লোকসভা নির্বাচনে সিপিএম এর হাত থেকে হাওড়া লোকসভা কেন্দ্রটি নিজেদের দখলে রাখে তৃণমূল। কিন্তু মেয়াদ ফুরানোর আগেই এখানকার তৃণমূল সাংসদ অম্বিকা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রয়াত হন। আর এরপর গত 2013 সালে এখানে ফের উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। যেখানে তৃণমূলের প্রার্থী হন বিশিষ্ট ফুটবলার প্রসূন বন্দ্যোপাধ্যায়।

জানা যায়, প্রথমে বিজেপির পক্ষ থেকে এই কেন্দ্রে অসীম ঘোষকে প্রার্থী করার ব্যাপারে কথা থাকলেও পরে গেরুয়া শিবির আর এখানে কোনো প্রার্থী দেয়নি। যার ফলে বিজেপির সমস্ত ভোট তৃণমূলের দিকে গিয়েছে বলে মনে করেছিল বিশ্লেষকেরা। আর এই পরিস্থিতিতে বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের এহেন দাবি তৃণমূলকে অনেকটাই অস্বস্তিতে ফেলল বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

অনেকে বলছেন, বর্তমানে গেরুয়া শিবিরের উত্থানে চিন্তিত হয়ে পড়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর তাইতো বিধানসভায় বাম এবং কংগ্রেসের উদ্দেশ্যে জোট বার্তা দিয়েছেন তিনি। কিন্তু আর যাই হোক সেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যারই তো একসময়কার ভাই মুকুল রায়। ভাইয়ের ওপরে ভরসা করেই তো এতদিন দল চালিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর তাই তো প্রাক্তন নেত্রীর হাতকে কি করে দুর্বল করা যায়, তার জন্য ঝানু রাজনীতিবিদ মুকুলবাবু এদিন তার মোক্ষম অস্ত্র প্রয়োগ করলেন।

বিশেষজ্ঞদের একাংশ বলছেন, 2013 সালে বিজেপি এই কেন্দ্রে প্রার্থী না দেওয়ার পেছনে মুকুল রায় আসল কারণ তুলে ধরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে সকলের সামনে প্রশ্ন তুলে দেওয়ার চেষ্টা করলেন। যার ফলে বাম এবং কংগ্রেসের পক্ষ থেকেও যাতে তৃণমূল নেত্রীকে চাপ দিয়ে তার বিশ্বাসযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে তার চেষ্টাও করলেন তিনি। অন্যদিকে সম্প্রতি রাজ্যসভায় ভোটাভুটিতে তৃণমূল প্রার্থী দোলা সেনের 10 থেকে 12 টি ভোট পাওয়ার কথা থাকলেও সেখানে তিনি 90 টি ভোট পেয়েছেন। যার ফলে বিজেপির সমর্থনই দোলাদেবী পেয়েছেন বলে মনে করছে একাংশ।

আর এই প্রসঙ্গেও কংগ্রেসকে হারাতে বিজেপির কাছে সমর্থন চেয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেও বিস্ফোরক মন্তব্য করেন মুকুল রায়। যদিও বা তৃণমূলের তরফে এই অভিযোগ অস্বীকার করা হয়েছে। পাল্টা দোলা সেনের ঘটনা নিয়ে মুকুল রায়ের বিরুদ্ধে তৃণমূল স্বাধীকার ভঙ্গের প্রস্তাব আনতে চলেছে বলে জানা গেছে। সব মিলিয়ে এবার প্রাক্তন দল তৃণমূল কংগ্রেস ও প্রাক্তন নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে রীতিমত বিপাকে ফেলে দিলেন বঙ্গ বিজেপির চাণক্য মুকুল রায়।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!