এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > বিজেপি নেতার উপর হামলা,অভিযোগের তীর তৃনমূলের দিকে

বিজেপি নেতার উপর হামলা,অভিযোগের তীর তৃনমূলের দিকে

উদ্য়নারায়নপুর থানার দক্ষিণ রামপুরে বিজেপির ওবিসি মোর্চার নেতা মোহিত বেরার উপর হামলা ও গাড়ি ভাঙচুরের অভিযোগ উঠেছে ।মোহিত বাবু উলুবেড়িয়া কেন্দ্রের উপনির্বাচনে বিজেপির সম্ভাব্য প্রার্থী ।অভিযোগের তীর তৃনমূলের দিকে।
বিজেপির দলীয় সূত্রে জানা গেছে,মোহিত বেরাকে বিজেপি করার অপরাধে তৃনমূল কর্মী-সমর্থকরা মারধর করে।তাঁকে ঘর থেকেই বেরোতে দিচ্ছে না।বুধবার রাত ৮টা নাগাদ মোহিতবাবুকে দেখে ফিরছিলেন বিজেপির কয়েকজন নেতা। সেইসময় রাস্তায় তৃনমূলের প্রায় ৩০জন সশস্ত্র লোক রাস্তা আটকায়।তাঁদের গাড়িতে এলোপাথাড়ি লোহার রড,টাঙি-বল্লম দিয়ে মারা হয় ।গাড়ির কাঁচ ভেঙে যায়।বিজেপির সমর্থকদের বাইক ভাঙচুরসহ চুরি হয়ে যায়।গুলি চালানো হয় বলেও অভিযোগ।এরপর তারা উদয়নারায়নপুর থানায় আশ্রয় নেয় ।
এই ঘটনার প্রতিবাদে থানায় অভিযোগ দায়ের করে।এরপরই অনুপম মল্লিকসহ অন্যান্যরা পুলিশি সহায়তায় উদয়নারায়নপুর থেকে বেরিয়ে উলুবেড়িয়ার মনসাতলায় ৬নম্বর জাতীয় সড়ক অবরোধ করে।অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের দাবিতে রাত সাড়ে ১০টা নাগাদ প্রচুর বিজেপি-কর্মী সমর্থক সোচ্চার হয়।পুলিশ অবরোধ তুলতে গেলে পুলিশকে ঘিরেও চলে বিক্ষোভ।রাস্তায় কয়েকটি গাড়ির উপর ক্ষিপ্ত বিজেপি সমর্থকরা হামলা চালায় বলে অভিযোগ।এই অবরোধকে ঘিরে এলাকায় প্রবল উত্তেজনার কারণে অবরোধ তুলতে রাফ নামানো হয়।প্রায় আধঘণ্টা অবরোধের পর পুলিশ লাঠি চালিয়ে অবরোধ তুলে দেয়।যদিও পুলিশের পক্ষ থেকে লাঠিচালানোর কথা অস্বীকার করা হয়েছে।এই ঘটনায় অনুপম মল্লিক বলেন,লোকসভা উপনির্বাচনে তৃনমূল কংগ্রেস বিরোধীদের কোনও প্রচার করতে দেবে না,ভোট দিতে দেবে না।তারই প্রস্তুতি হিসেবে এলাকায় সন্ত্রাস শুরু করেছে।উদয়নারায়ন পুরের তৃনমূল কংগ্রেস বিধায়ক সমীর পাঁজা এবং তৃনমূলের হাওড়া গ্রামীন জেলা সভাপতি পুলক রায় বলেন,এই ঘটনার সঙ্গে তৃনমূলের কোনও সম্পর্ক নেই।বিজেপির লোকেরা সশস্ত্র অবস্থায় এলাকায় ঢুকলে স্থানীয় মানুষরা চোর ভেবে তাড়া করলে তাঁরা থানায় গিয়ে আশ্রয় নেয়।পুলিশি সহায়তায় তারা বাড়ি ফিরে যায়।বিজেপি নিশ্চিত পরাজয় জেনে জামানত আটকাতে এসব অপপ্রচার করছে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!