এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > তৃণমূলকে আরো ভাঙতে সৌমিত্র খাঁকে দলে নিয়ে বড় প্রাপ্তি ঘটানোর পেছনে কি আসল “মাস্টারমাইন্ড” মুকুল রায়?

তৃণমূলকে আরো ভাঙতে সৌমিত্র খাঁকে দলে নিয়ে বড় প্রাপ্তি ঘটানোর পেছনে কি আসল “মাস্টারমাইন্ড” মুকুল রায়?

এক বছর আগে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের একদা ছায়া সঙ্গী ও দলের ২ নম্বর হিসেবে পরিচিত প্রাক্তন তৃণমূল নেতা মুকুল রায় বিজেপিতে যোগদান করে রাজ্য রাজনীতিতে তোলপাড় তুলে দিয়েছিলেন। আর মুকুল রায় বিজেপিতে যোগদান করার পরই নানা মহলে জল্পনা শুরু হয় যে, তৃণমূলের আদ্যপ্রান্ত সমস্ত খবর জানা মুকুলবাবুর হাত দিয়েই কি তাহলে শাসকদলের হেভিওয়েট নেতা মন্ত্রী-সাংসদেরা বিজেপির পতাকা ধরবেন!

এমনকি এই জল্পনা যে কিছুটা হলেও যে সত্যি হতে চলেছে তা গেরুয়া শিবিরের ছাতার তলায় এসে বারে বারে মন্তব্য করে সেই সমস্ত কিছুকে উসকে দিয়েছেন স্বয়ং মুকুল রায় নিজেও। কিন্তু মুকুল রায়ের পর তেমন কোন শাসক দলের হেভিওয়েট নেতাকে বিজেপিতে যোগদান করতে দেখা যায়নি।

তবে গতকালই একটি আশ্চর্য ঘটনায় তোলপাড় হলো রাজ্য রাজনীতি। তৃণমূলের বিষ্ণুপুর লোকসভা কেন্দ্রের সাংসদ সৌমিত্র খাঁ অবশেষে সেই মুকুল রায়ের হাত ধরেই বিজেপিতে যোগদান করলেন। কিন্তু হঠাৎ কি এমন হল যার কারণে সৌমিত্র বাবুকে শাসকদল থেকে বিরোধী দলের পতাকার তলায় আসতে হল?

যেখানে এই রাজ্যে শাসক দল তৃণমূলের বিরুদ্ধে লড়তে গিয়ে কার্যত হিমশিম খেতে হচ্ছে গেরুয়া শিবিরকে সেখানে সেই সৌমিত্র খাঁ বিজেপিতে এসে আদৌ কি তেমন ভাবে কোন লাভ করতে পারবেন! সূত্রের খবর, বিজেপিতে যোগদানের আগে তৃণমূলের প্রাক্তন সাংসদ সৌমিত্র খাঁ বেশ কিছু শর্ত গেরুয়া শিবিরের উদ্দেশ্য ছুড়ে দিয়েছিলেন। যার মধ্যে প্রথম শর্ত হিসেবে 2019 এর লোকসভা নির্বাচনে বিষ্ণুপুর লোকসভা কেন্দ্র থেকে তাকে দাড় করানো এবং দ্বিতীয় শর্ত হিসেবে বিজেপির রাজ্য যুব মোর্চার সভাপতি হিসেবে তাঁকে দায়িত্ব দেওয়া।

 

ফেসবুকের কিছু টেকনিক্যাল প্রবলেমের জন্য সব আপডেট আপনাদের কাছে সবসময় পৌঁচ্ছাছে না। তাই আমাদের সমস্ত খবরের নিয়মিত আপডেট পেতে যোগদিন আমাদের হোয়াটস্যাপ বা টেলিগ্রাম গ্রূপে।

১. আমাদের Telegram গ্রূপ – ক্লিক করুন
২. আমাদের WhatsApp গ্রূপ – ক্লিক করুন
৩. আমাদের Facebook গ্রূপ – ক্লিক করুন
৪. আমাদের Twitter গ্রূপ – ক্লিক করুন
৫. আমাদের YouTube চ্যানেল – ক্লিক করুন

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

জানা গেছে, দ্বিতীয় শর্তে বিজেপির তরফ থেকে খুব একটা সম্মতি না দিলেও প্রথম শর্তে কিছুটা হলেও সম্মতি দিয়েছেন বিজেপি নেতারা। যা দেখে রাজনৈতিক মহলের একাংশের মনে করছেন যে, লোকসভা ভোটের আগে এই সৌমিত্র খাঁয়ের মতো তৃণমূল থেকে আরও হেভিওয়েট নেতা, মন্ত্রীদের বিজেপিকে আনতে সৌমিত্র খাঁ বিজেপিতে আসার সাথেই সাথেই তাকে ভোটে লড়ার ইঙ্গিত দিল গেরুয়া শিবির।

প্রসঙ্গত, মুকুল রায় বিজেপিতে যাওয়ার পর তেমন কোনো পদ না পাওয়ায় শাসক দল তৃণমূলের পক্ষ থেকে তাঁকে উদ্দেশ্য করে তীব্র টিপ্পনী কাটা হয়েছিল। আর এবার তৃণমূল সাংসদ সৌমিত্র খাঁকে দলে যোগদান করিয়ে বিজেপি নেতা মুকুল রায় তৃণমূলের যে সমস্ত নেতা বিজেপিতে এক পা বাড়িয়েও দুপা পিছিয়ে থাকছেন তাদের উদ্দেশ্যেও বিজেপিতে আসার বার্তা দিলেন।

বিজেপির একাংশের মতে, এতদিন রাজ্যের শাসকদলের মুকুল অনুগামী নেতারা দল বদলের কথা চিন্তা করলেও গেরুয়া শিবিরের নাম লেখালে তাঁরা তেমন কিছু লাভ করতে পারবে না এই ভয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গ ত্যাগ করেনি। কিন্তু এবারে সৌমিত্র খাঁকে সেই বিজেপিতে নিয়েই দলের গুরুত্বপূর্ণ পদে বসানোর প্রতিশ্রুতি দিয়ে মুখ না খুলে সেই তৃণমূলের নেতাদেরই লোকসভা ভোটের আগে বিজেপিতে নাম লেখানোর কৌশল নিলেন বঙ্গ রাজনীতির চাণক্য মুকুল রায়। তবে ঠিক কোন দিকে এগোয় এখন বঙ্গ রাজনীতির এই গতিপথ এখন তার জন্য সকলকে নজর রাখতেই হবে খবরের শিরোনামে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!