এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > তৃণমূলের ‘বাঙালি প্রধানমন্ত্রী’র চাপ কাটাতে কি মোদির নেতাজি রাজনীতি? বাড়ছে জল্পনা

তৃণমূলের ‘বাঙালি প্রধানমন্ত্রী’র চাপ কাটাতে কি মোদির নেতাজি রাজনীতি? বাড়ছে জল্পনা

২০১৯ সালে লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূলের সবচেয়ে বড় হাতিয়ার ‘বাঙালি প্রধানমন্ত্রী’। এবার তৃণমূল কংগ্রেসের প্রচারে ট্যাগ লাইনই “একজন বাঙালি প্রধানমন্ত্রী চাই”।আর তৃণমূলের এই অস্ত্রকে রুখতেই নেতাজি কে নিয়ে মোক্ষম চাল দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। আজাদ হিন্দ সরকারের ৭৫ বর্ষপূর্তি উপলক্ষে এদিন লালকেল্লা থেকে নেতাজিকে স্বাধীন ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী হিসেবে ঘোষণা করেন মোদি।

এই লোকসভা নির্বাচনে যে সরকার গড়তে পশ্চিমবঙ্গের ৪২ টি আসনের একটি বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা থাকবে তা সকলেরই জানা ।আর তাই এবার এই 42 টি আসনের ভোট টানতে বাঙালি জাতীয়তাবাদী আবেগকে কাজে লাগাতে চাইছে মোদি।আর এক্ষেত্রে নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুকে ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে ঘোষণা করে মমতাকে অনেকটাই ব্যাকফুটে পাঠাতে চাইছে মোদি ব্রিগেড।আগামী 2019 লোকসভা নির্বাচনে নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর এই প্রসঙ্গ কে একটা বড় ইস্যু হিসেবে তুলে ধরতে চাইছে বিজেপি।

21 অক্টোবর রবিবার আজাদ হিন্দ সরকারের 75 তম প্রতিষ্ঠা দিবস উপলক্ষে লালকেল্লায় জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন প্রধানমন্ত্রী।এবং এখান থেকে দেশবাসীর উদ্দেশ্যে তিনি বার্তা দেন যে অখন্ড ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নেতাজির নামই জানুক ভারতবাসী।গান্ধী নেহেরু অস্তিত্বকে উপেক্ষা করে ভারতের আগামী প্রজন্ম জানুক নেতাজি বীরগাথা।আজাদ হিন্দ সরকার ভারতের প্রথম স্বাধীন সরকার তাই ভারতের প্রথম প্রধানমন্ত্রী হিসেবে প্রচারিত হোক নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসুর নাম।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো  করুন এই লিঙ্কেখবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক

নেতাজিকে সামনে রেখে মোদি-শাহ জুটি যে এক ঢিলে দুই পাখি মারতে চাইছেন এ কথা মনে করছেন অনেক রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞ। প্রথমত এর ফলে তৃণমূল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে ‘প্রথম বাঙালি প্রধানমন্ত্রী’ হিসেবে তুলে ধরে লোকসভা নির্বাচনে বাঙালি আবেগকে কাজে লাগানোর যে প্রচেষ্টা চালাচ্ছিল তা একেবারে মাঠে মারা যাবে। দ্বিতীয়তঃ এই ইস্যু কে সামনে রেখে নিজেদের বাঙালির সঙ্গে সহমর্মী প্রমাণ করার চেষ্টা করছে গেরুয়া শিবির। এদিন লালকেল্লায় প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া এই ভাষণ বাঙালির আবেগকে অনেকটাই নাড়িয়ে দিতে সক্ষম হবে এবং আগামী লোকসভা নির্বাচনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে অনেকটা চাপের মুখেও খেলবে মোদির এই নেতাজী ইস্যু।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!