এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > শেষ অস্ত্র প্রয়োগের পথেই হাঁটল তৃণমূল, নতুন চ্যালেঞ্জ দিলেন সব্যসাচী, জোর চাপানউতোর রাজ্যে

শেষ অস্ত্র প্রয়োগের পথেই হাঁটল তৃণমূল, নতুন চ্যালেঞ্জ দিলেন সব্যসাচী, জোর চাপানউতোর রাজ্যে



অবশেষে বিধাননগরের মেয়র সব্যসাচী দত্তের বিরুদ্ধে অনাস্থা আনতে চলেছে তৃণমূল। গত শুক্রবার দলের উদ্দেশ্যে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেওয়ার পর রবিবার তৃণমূল ভবনে সেই সব্যসাচী দত্তের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য তিনি বাদে বিধাননগর পৌরসভা সমস্ত কাউন্সিলরকে তৃণমূল ভবনে একটি বৈঠক ডাকেন কলকাতা পৌরসভার মেয়র তথা পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম।

সেখানেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় যে, মেয়র দেখভাল করবেন ডেপুটি মেয়র তাপস চট্টোপাধ্যায়। কিন্তু এরপর বিতর্ক আরও দানা বাঁধে যখন সন্ধ্যায় বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের সঙ্গে আলাপ আলোচনার সারতে দেখা যায়, বিধাননগরের মেয়র তথা রাজারহাট নিউটাউনের তৃণমূল বিধায়ক সব্যসাচী দত্তকে। আর এরপরই তার বিরুদ্ধে তৃণমূলের তরফে কড়া সতর্কবার্তা জারি করা হয়। সব্যসাচী দলে থেকে এইভাবে কাজ করতে পারে না বলে তাকে বেইমান, মীরজাফর বলে কটাক্ষ করেন রাজ্যের পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম।

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

জানা গেছে, তৃণমূল নেতৃত্বের তরফে ফোনে তাকে মেয়র পদ ছেড়ে দেওয়ার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু এইভাবে তিনি মেয়র পদ ছাড়বেন না বলে পাল্টা দলের উদ্দেশে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছেন সেই সব্যসাচী দত্ত। সূত্রের খবর, সোমবার এই প্রসঙ্গে বিধাননগরের মেয়র বলেন, “শোনা কথার কোনো মূল্য আমার কাছে নেই। আমি এখনও মেয়র, পুরভবনে যাব। কারওর যদি ক্ষমতা থাকে তাহলে আটকান।” আর এরপরই বিভিন্ন মহলের তরফে মনে করা হচ্ছিল যে, এবার হয়ত সব্যসাচী দত্তের বিরুদ্ধে নিজেদের মোক্ষম অস্ত্র প্রয়োগ করবে তৃণমূল। আর যেমন ভাবা ঠিক তেমনি কাজ। জানা গেছে, এবার মেয়র পদ থেকে সব্যসাচী দত্তকে সরাতে তার বিরুদ্ধে অনাস্থা আনতে চলেছে তৃণমূল।

সোমবার এই প্রসঙ্গে বিধাননগর পৌরসভার ডেপুটি মেয়র তাপস চট্টোপাধ্যায় বলেন, “সব্যসাচী দত্ত নিজে থেকে ইস্তফা দেন কিনা তা দেখার জন্য অপেক্ষা করছিল। যেহেতু তিনি ইস্তফা দিলেন না, তাই অনাস্থা আনার প্রক্রিয়া শুরু করে দেওয়া হল। ফিরহাদ হাকিম আমাকে ফোন করেছিলেন এবং তার নির্দেশ অনুযায়ী এই সমস্ত কিছু হচ্ছে।” কিন্তু তার বিরুদ্ধে দল শেষ মুহূর্তে মোক্ষম অস্ত্র প্রয়োগ করার কথা বললেও এই ব্যাপারে কার্যত নিষ্ক্রিয় থাকতেই দেখা গেছে সেই সব্যসাচী দত্তকে।

এদিন এই প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “আগে আগে দেখিয়ে হোতা হ্যায় কেয়া।” কিন্তু দল যখন তার বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ নেওয়ার কথা শোনাচ্ছে, তখন কেন সহাস্যে এইরকম জবাব দিলেন সব্যসাচী দত্ত! তাহলে কি তিনি তার ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা করে রেখেছেন! আর সেই কারণেই দলের শত কড়া পদক্ষেপও তার কাছে ফিকে মনে হচ্ছে! জোর জল্পনা রাজনৈতিক মহলে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!