এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > শাসকদলের ঘুম উড়িয়ে শাসকদলের সংগঠনই এবার রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে বৃহত্তর আন্দোলনে

শাসকদলের ঘুম উড়িয়ে শাসকদলের সংগঠনই এবার রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে বৃহত্তর আন্দোলনে

এবার কি লোকসভা ভোটের আগে ঘুম উড়তে চলেছে রাজ্যের শাসক দল ঘাসফুল শিবিরের? গ্রাম পঞ্চায়েতের যে কাজ এবং উন্নয়নের উপর ভরসা করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং তাঁর দল ভোটব্যাঙ্ক শক্ত করার কথা বলছেন, সেই 100 দিনের কাজের সাথেই যুক্ত শাসক দলের সমর্থক হিসেবেই পরিচিত সুপারভাইজারদের সংগঠন অবশেষে শাসকের বিরুদ্ধেই বিদ্রোহে নামার সুর চওড়া করলেন।

জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরেই নারেগা সুপারভাইজার অ্যাসোসিয়েশনের তরফ থেকে সরকারের কাছে মাস ভিত্তিক মজুরি বা ভাতার দাবি করলেও সেই ব্যাপারে কোনোরূপ পদক্ষেপই নেওয়া হয়নি। তাঁদের দাবি, রাজ্যের সিভিক ভলেন্টিয়ারদের মত মাসে 8000 টাকা ভাতা এবং স্বাস্থ্য বীমার সুযোগের আওতায় নিয়ে আসতে হবে তাঁদের। আর যদি এই ব্যাপারে সরকার আগামী 9 জানুয়ারির মধ্যে কোনো বিজ্ঞপ্তি জারি না করে তাহলে আগামী 10 তারিখ থেকে শহর কলকাতায় টানা আন্দোলনের পথে নামার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন শাসকদলের সমর্থক সংগঠন।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, রাজ্যের এই 50000 সুপারভাইজারদের জন্যই গ্রাম পঞ্চায়েতের 100 দিনের কাজের গতি ত্বরান্বিত হচ্ছে। আর এই সুপারভাইজারদের দাবি সরকারের পক্ষ থেকে এখনও না রাখায় এবার তাঁরা আন্দোলনের পথকেই বেছে নিচ্ছে। যা রাজ্যের কাছে আগামী লোকসভা ভোটের আগে বড়সড় চিন্তার কারণ হয়ে উঠতে পারে বলেই মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল। সূত্রের খবর, যদি আগামী 9 জানুয়ারির মধ্যে তাঁদের এই সমস্ত দাবি-দাওয়া পূরণ না হয় তাহলে আগামী 10 জানুয়ারি থেকে মৌলালির রামলীলা পার্কে জমায়েত করার পর মিছিল করে ধর্মতলা থেকে চাঁদনির ওয়াকফ বোর্ডের অফিসের সামনের রাস্তায় অবস্থান করবেন তাঁরা।

 

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এখানে

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

এদিন এই প্রসঙ্গে সুপারভাইজার অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক লাল্টু বিশ্বাস বলেন, “গত কয়েক বছর ধরে রাজ্যের 50000 সুপারভাইজারদের পরিশ্রমেই রাজ্য 100 দিনের প্রকল্পে দেশের মধ্যে সেরা হচ্ছে। আমরা এই সরকারকেই সমর্থন করছি। কিন্তু আমাদের কাজের বিনিময়ে সঠিক পারিশ্রমিক দেওয়া হয় না। প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করেও কোনো লাভ হয়নি। তাই দেওয়ালে পিঠ থেকে যাওয়াতেই আমরা এই কর্মসূচি নিতে বাধ্য হয়েছি।”

অন্যদিকে সুপারভাইজারদের এহেন অভিযোগ প্রসঙ্গে তাদের পাওনা না পাওয়ার ব্যাপারটি স্বীকার করে নিয়েছেন রাজ্যের পঞ্চায়েত মন্ত্রী সুব্রত মুখোপাধ্যায়। এদিন এই প্রসঙ্গে কেন্দ্রীয় সরকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে তিনি বলেন, “কেন্দ্র এই সুপারভাইজারদের ভাতা দেওয়া বন্ধ করে দিলেও আমরা ওদের টাকার ব্যবস্থা করেছি। তবে ওদের ভাতা বৃদ্ধি বা সারাবছর পাওয়ার বিষয়টি নিয়ে আমি অর্থ দপ্তরের সাথে কথা বলব। তবে এইভাবে লাগাতার আন্দোলনে বসে যে দাবি আদায় করা যায় না এটা ওদেরও বুঝতে হবে।”

সব মিলিয়ে এবার রাজ্যের 100 দিনের কাজের সঙ্গে যুক্ত শাসক দলেরই সমর্থক বলে পরিচিত সুপারভাইজাররা নিজেদের পাওনা দাবি না পাওয়ায় ফের আন্দোলনে রাস্তায় যাওয়ায় প্রবল অস্বস্তিতে পড়তে চলেছে রাজ্য সরকার।

আপনার মতামত জানান -
Top