এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > তৃণমূল ছাত্র পরিষদের নতুন সভাপতির নাম প্রায় স্থির, ঘোষণা হতে পারে একুশে জুলাই

তৃণমূল ছাত্র পরিষদের নতুন সভাপতির নাম প্রায় স্থির, ঘোষণা হতে পারে একুশে জুলাই

তৃণমূল ছাত্র পরিষদের নতুন সভাপতি খোঁজা নিয়ে দলীয় অন্দরে তোড়জোড় চলছিলো ভালোই। কলেজে ছাত্রভর্তি নিয়ে তোলাবাজি রুখতে কার্যত ব্যর্থ জয়া দত্ত। এমটাই অভিযোগ তুলে খোদ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ই তাকে সভানেত্রীর পদ থেকে অপসারণের সিদ্ধান্তের কথা জানিয়ে দিয়েছিলেন বেশ কিছুদিন আগে। তারপর থেকেই ভালো ভাবমূর্তির ছাত্রনেতা বা নেত্রীর খোঁজ চলছিল। সে খোঁজায় ফুলস্টপ পড়েছে এখন। জয়া দত্তের স্থানে টিএমসিপি-র সভানেত্রীর পদে আসতে চলেছেন পারমিতা সেন। এখনো অব্দি আনুষ্ঠানিক ঘোষণা হয়নি এ সিদ্ধান্তের। তৃণমূলের দলীয় অন্দরের খবর থেকে জানা যাচ্ছে, ২১ জুলাই সমাবেশের পরেই টিএমসিপি-র নতুন রাজ্যসভাপতি পদে পারমিতা সেনের অভিষেক করতে পারেন তৃণমূল নেতৃত্ব। পারমিতা দেবীর রাজ্য সভাপতি হওয়া কার্যত নিশ্চিত। দলনেত্রী সেরকমই বার্তা দিয়েছেন। শেষ মুহূর্তে যদি কোনো রকম রদবদল না হয়,তবে আগামী ২২-২৪ তারিখ নাগাদ এ ঘোষণা হওয়ার প্রবল সম্ভাবনা রয়েছে। এমনটাই জানালেন তৃণমূলের একজন নেতা।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

 এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

এ প্রসঙ্গে প্রশ্ন উঠেছে যে মুখ্যমন্ত্রী যদি টিএমসিপি-র নতুন সভাপতি আনার ব্যাপারে নিশ্চিত ছিলেন তাহলে এতোদিন আনুষ্ঠানিক ঘোষণা করেননি কেন? জবাব পাওয়া গেছে কোলকাতার এক তৃণমূল নেতার তরফ থেকে। তিনি জানিয়েছেন,শঙ্কুদেবের পরে ছাত্র সংগঠনে জেলার কোনো জনপ্রিয় ব্যক্তিত্বই নেই। তাই কাকে সভাপতির দায়িত্বটি দেবেন তা নিয়ে সংশয়ে ছিলেন নেত্রী নিজেও। অনেকের নামই হটলিস্টে ছিল। তবে সব দিক বিবেচনা করে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পারমিতা সেনকেই সভাপতি পদের জন্য উপযুক্ত মনে করেছেন। তবে এ প্রসঙ্গে অন্য আরেক তৃণমূল নেতা আবার কটাক্ষের সঙ্গে মন্তব্য করেছেন,”দলটা তো তৃণমূল!আপাতত পাকা কথা হলেও শেষ মুহূর্তে না বদলে যায়!”

উল্লেখ্য, জানা গেছে পারমিতা সেন জয়া দত্তেরই ঘনিষ্ঠজন। দুজনে অভিন্ন হৃদয়বন্ধু। রবীন্দ্রভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ে দুজনে একসাথে পড়াশুনোও করেছেন। বয়সে সামান্য বড় পারমিতাকে দিদি বলেও সম্বোধণ করেন জয়া। শঙ্কুদেব পান্ডা টিএমসিপি-র রাজ্যসভাপতি থাকাকালীন তাঁরা সংগঠনের নেতৃত্বে উঠে আসেন। উওর ২৪ পরগনা জেলা তৃণমূল সভাপতি তথা খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের বিরোধী গোষ্ঠীর সঙ্গে তাঁদের সখ্যতাও রয়েছে। জেলা তৃণমূলের এক বিধায়ক জানিয়েছেন, জেলায় বালুদা’র প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেও পারমিতাদেবীর সংগঠন টিকে রয়েছে। একাধিক কলেজের সংগঠন দখল করতে বা গোষ্ঠীদ্বন্দ্বেও নাম জড়িয়েছে তাঁর। জেলায় একরকম ‘লড়াকু’ ছাত্রনেত্রী হিসাবেই পরিচিতি আছে পারমিতা সেনের। সম্প্রতি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কালিঘাটের বাসভবনেও ঘুরে এসেছেন পারমিত দেবী। সেখাই মুখ্যমন্ত্রী তাকে নতুন দায়িত্ব দেওয়ার কথা জানিয়ে ভালো কাজ করতে উৎসাহ দিয়েছিলেন। শিক্ষকমহলের একাংশ দাবী করেছেন যে,পারমিতা দেবী টিএমসিপির-রাজ্য সভাপতি হলে বিশ্ববিদ্যালয় এবং জেলাগুলোতে জয়া দত্তের প্রতিপত্তি একইরকম থাকবে। কারণ শাসকদলের অন্দরের রাজনীতিতে জয়ার সায়াসঙ্গী হিসাবেই পরিচিত পারমিতাদেবী। তবে এ ব্যাপারে তাঁদের সঙ্গে ফোন যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে কাউকেই পাওয়া যায়নি।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!