এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > লোকসভায় আজ ঐতিহাসিক ‘উপহারের’ জন্য দলীয় সব সাংসদের উপস্থিতি বাধ্যতামূলক করল বিজেপি

লোকসভায় আজ ঐতিহাসিক ‘উপহারের’ জন্য দলীয় সব সাংসদের উপস্থিতি বাধ্যতামূলক করল বিজেপি

Priyo Bandhu Media


অবশেষে বৃহস্পতিবার লোকসভার অধিবেশনে তিন তালাক বিলের প্রসঙ্গ উঠতে চলেছে। আর এই গুরুত্বপূর্ণ বিল উত্থাপনের সময় যাতে সংসদে প্রত্যেক সাংসদ উপস্থিত থাকেন সেই ব্যাপারে বিজেপির তরফে দলীয় সাংসদদের উদ্দেশ্যে এক কঠোর নির্দেশনামা জারি করা হয়েছে। সূত্রের খবর, এই তিন তালাক বিল উত্থাপনের সময় যাতে দলের প্রতিটি সাংসদ যাতে সেখানে উপস্থিত থাকেন এবং ভোটাভুটিতে অংশ নেন সেই ব্যাপারে বিজেপির তরফে সমস্ত সাংসদকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, সংখ্যালঘু মহিলাদের তিন তালাক প্রসঙ্গে গত সেপ্টেম্বর মাসে এই আইনে কারাদণ্ডের সংস্থান রেখে একটি অর্ডিন্যান্স জারি করে কেন্দ্র। আর এই অর্ডিন্যান্সকে আইনে পরিণত করতেই সংসদে এই বিল পেশ করা হয়। কিন্তু লোকসভায় এই তিন তালাক বিল পাস হলেও রাজ্যসভায় এই বিলের প্রসঙ্গে বিরোধীদের একাধিক সংশোধনীর দাবিতে তা আটকে যায়। যদিও সরকারের তরফে বিরোধীদের সেই সংশোধনী খারিজ করা হলেও তিন তালাকে জামিনের প্রসঙ্গটি রাখা হয়।

WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

আর এরই ফলে তিন তালাকের একাধিক নিয়ম বদলে যাওয়ায় নতুন করে সেই বিল বৃহস্পতিবার লোকসভায় ফের পেশ করতে চলেছে কেন্দ্র। আর তাই সেই বিলের স্বপক্ষে ভোটাভুটির জন্য দলীয় সাংসদদের উপস্থিত থাকার জন্য কড়া নির্দেশিকা জারি করেছে কেন্দ্রের শাসক দল। পাশাপাশি বিরোধী দল কংগ্রেসের পক্ষ থেকেও এই বিতর্কে অংশ নেওয়ার কথা জানিয়ে দেওয়া হয়েছে। তবে এই ঐতিহাসিক বিল নিয়ে আলোচনা শুরুর আগেই এদিন অধিবেশনের শুরুতেই রাফাল কেলেঙ্কারি নিয়ে তীব্রভাবে উত্তপ্ত হতে দেখা যায় সংসদ ভবনকে। যার জেরে দুপুর পর্যন্ত মুলতুবি হয়ে যায় সংসদ।

ফলে ফের অধিবেশন বসলে তিন তালাক প্রসঙ্গে প্রবল হৈ হট্টগোলের আশঙ্কায় রয়েছেন অনেকেই। এদিন এই প্রসঙ্গে কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ বলেন, “তিন তালাক বিল প্রকৃতিগতভাবে অত্যন্ত বৈষম্যমূলক। এটি শুধু দুটি রাজনৈতিক দলের মতপার্থক্যের বিষয় নয়, এর সঙ্গে সামাজিক সুরক্ষা বিষয়টিও জড়িত”। বিশেষজ্ঞদের মতে, যদি এই তিন তালাক বিলটি এদিনও সংসদে পেশ করতে বাধাপ্রাপ্ত হয় সরকার, তাহলে ফের তাঁদেরকে অর্ডিন্যান্স জারি করতে হবে। ফলে অত্যন্ত স্পর্শকাতর এই বিলটির ভবিষ্যত শেষ পর্যন্ত কি হয় এখন সেদিকেই তাকিয়ে সকলে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!