এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > ঠাকুরবাড়িতে বোমাবাজি তীব্র বিতর্কে জড়ালেন বর্তমান ও প্রাক্তন সাংসদ এর অনুগামীরা – জানুন বিস্তারিত

ঠাকুরবাড়িতে বোমাবাজি তীব্র বিতর্কে জড়ালেন বর্তমান ও প্রাক্তন সাংসদ এর অনুগামীরা – জানুন বিস্তারিত



এর লোকসভা ভোটে তৃণমূল গড়ে ভাঙন ধরায় বিজেপি। কোনক্রমে জিতে মান বাঁচায় তৃণমূল। বিজেপি সে অর্থে 18 টি আসন জিতে বাংলা রাজনীতির মঞ্চে স্থায়ী আসন করে নেয়। সংগঠন বাড়িয়ে তাদের পরবর্তী লক্ষ্য 2021 এর বিধানসভা ভোট। কিন্তু লোকসভা ভোটের পর থেকেই রাজনৈতিক হিংসা পশ্চিমবঙ্গে মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে। বিভিন্ন জায়গায় বিজেপি ও তৃণমূলের রাজনৈতিক দ্বন্দ্ব যে হিংসার আকার নিয়েছে তার খবর প্রায়শই পাওয়া যাচ্ছে।

এদিন এমনই একটি ঘটনার সাক্ষী রইল বনগাঁর ঠাকুরনগর এলাকা। মঙ্গলবার ঠাকুরবাড়িতে রাতে কামনা সাগরের পাড়ে বিকট আওয়াজ পাওয়া যায়। স্থানীয় বাসিন্দাদের দাবি এগুলি বোমার শব্দ। ধোঁয়ার চারিদিক ঢেকে যায়।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

এই ঘটনায় বনগাঁর বিজেপি সাংসদ শান্তনু ঠাকুরের ব্যক্তিগত সচিব দাবি করেছেন তৃণমূল আতঙ্কের পরিবেশ তৈরি করছে। বর্তমানে বিজেপি সাংসদ শান্তনু ঠাকুর এলাকায় নেই। অন্যদিকে প্রাক্তন তৃণমূল সাংসদ মমতা ঠাকুর জানান, ‘আমি অসমে এনআরসি প্রতিবাদের সুর চড়িয়েছিলাম। তাই আমাকে এখান থেকে তাড়িয়ে দেওয়ার জন্যই শান্তনু ঠাকুরের অনুগামীরা বোমাবাজি ঘটিয়েছে।’ বোমা বাজি নিয়ে রাজনীতিতে দু’পক্ষেই চলছে রাজনৈতিক চাপানউতোর।

ঠাকুরবাড়ির বড়মা বীণাপাণি দেবীর মৃত্যুর পর থেকেই ঠাকুরবাড়ি পরিবারের মধ্যেই বিজেপি তৃণমূল দ্বন্দ্ব বিস্তার লাভ করেছে। এদিনের বোমাবাজির ঘটনায় তা আবার প্রমাণিত।

এই ঘটনায় কেউ হতাহত হয়নি বলেই জানা গেছে। তবে পুলিশ এখনও কাউকে গ্রেফতার করে উঠতে পারেনি। রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে এই ঘটনা কি গুরুত্ব বয়ে আনে, সে দিকেই তাকিয়ে রাজনৈতিক মহল।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!