এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > উর্দু ভাষায় টেট উত্তীর্ণদেরও মিলছে না চাকরি! সংখ্যালঘু মন্ত্রীর বাড়ির সামনেই ধর্না!

উর্দু ভাষায় টেট উত্তীর্ণদেরও মিলছে না চাকরি! সংখ্যালঘু মন্ত্রীর বাড়ির সামনেই ধর্না!

 

এবার চাকরির দাবিতে মন্ত্রীর বাড়ির সামনে ধর্নায় বসে পড়লেন উর্দু মাধ্যমের টেট উত্তীর্ণরা। যাকে ঘিরে এখন চরম চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে সর্বত্র। সূত্রের খবর, রবিবার সকালে চাকরিতে নিয়োগের দাবিতে গোয়ালপুকুরের তৃণমূল বিধায়ক তথা রাষ্ট্রমন্ত্রী গোলাম রব্বানীর ইসলামপুরের বাড়ির সামনে ধর্নায় বসে করেন বেশকিছু চাকরি প্রার্থী। কিন্তু ঠিক কী কারণে মন্ত্রীর বাড়ির সামনে ধর্নায় বসলেন তারা!

জানা যায়, গত 2014 সালে ওয়েস্ট বেঙ্গল বোর্ড অফ প্রাইমারি এডুকেশন দপ্তরের উর্দু মাধ্যমের টেট পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। পরবর্তীতে গত 2016 সালের নভেম্বর মাসে এই রেজাল্ট প্রকাশিত হলে দেখা যায় যে, এই জেলার 215 জন উত্তীর্ণ হলেও তার মধ্যে মোটে 110 জনের চাকরি হয়েছে। আর এরপরই যাদের নিয়োগপত্র দেওয়া হয়নি, তারা নিয়োগের দাবিতে আদালতে একটি মামলা করেন।

জানা যায়, এই মামলার পরিপ্রেক্ষিতে গত 2017 সালের নভেম্বর মাসে আদালতের পক্ষ থেকে রাজ্যকে নিয়োগের নির্দেশ দেওয়া হলেও কাজের কাজ কিছুই হয়নি। আর কেন তাদের নিয়োগ করা হচ্ছে না, এই দাবিতে এদিন স্থানীয় তৃণমূল বিধায়ক তথা মন্ত্রীর বাড়ির সামনে রাতভর বিক্ষোভ করলেন উর্দু মাধ্যমের টেট প্রার্থীরা বলে দাবি করেছেন অনেকে।

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর আরও সহজে হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের যে কোনও এক্সক্লুসিভ সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপে। ক্লিক করুন এখানে – টেলিগ্রাম, হোয়াটস্যাপ, ফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউবফেসবুক পেজ

প্রিয় বন্ধু মিডিয়ায় প্রকাশিত খবরের নোটিফিকেশন আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের ব্রাউসারে সাথে সাথে পেতে, উপরের পপ-আপে অথবা নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।


আপনার মতামত জানান -

এদিনই প্রসঙ্গে বিক্ষোভকারীদের মধ্যে মহম্মদ রফিক আলম বলেন, “উত্তর দিনাজপুরে উচ্চমাধ্যমিকের উত্তীর্ণদের নিয়োগের ব্যাপারে ওয়েবসাইটে যতক্ষণ পর্যন্ত না আসবে, ততক্ষন আমাদের এই বিক্ষোভ ধর্না চলবে। পুলিশ এসে আমাদের গ্রেপ্তার করে নিয়ে গেলেও ছাড়া পেয়ে আমরা আবার এখানে বসব। 2014 সালে উত্তীর্ণ হয়েছি। কিন্তু আমাদের নাম আসেনি। তখন বলা হয়েছিল, শূন্যপদ নেই। এরপরে আমরা জানতে পারি যে 420 টি শূন্যপদ আছে। কিন্তু সরকার 110 জনকে নিয়োগ করে। কেন বাকিদের নিয়োগ করা হল না, তা নিয়ে আদালতে মামলা হয়। আদালত নির্দেশ দেয়। কিন্তু আমরা এখনও নিয়োগপত্র পাইনি। মন্ত্রী থেকে শুরু করে প্রশাসন সবাইকে জানিয়েছি। সকলে আশ্বাস দিয়েছিলেন। কিন্তু কাজের কাজ কিছু হয়নি। তাই আমরা এবার মন্ত্রীর বাড়ির সামনে এসে ধর্নায় বসলাম।”

তবে শুধু তারা প্রশাসনিক কর্তা ব্যক্তি বা মন্ত্রী বিধায়কদের কাছে জানানোই নয়, এই ব্যাপারে “দিদিকে বলোতে” ফোনও করেছিলেন বলে দাবি চাকরিপ্রার্থীদের। জানা যায়, এদিন মন্ত্রী রব্বানী সাহেবের বাড়ির সামনে বেশ কিছু বিক্ষোভকারী বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করলে তাদের কয়েকজনকে ভেতরে নিয়ে গিয়ে তাদের সাথে কথা বলেন মন্ত্রী।

কিন্তু তারপরও সমস্যার সমাধান হয়নি। তবে বিষয়টি যে তিনি উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে জানাবেন, তা এদিন বিক্ষোভকারীদের জানিয়ে দেন গোয়ালপোখরের তৃণমূল বিধায়ক। তবে মন্ত্রী যে কথাই বলুন না কেন, তাদের নিয়োগ না হলে যে তারা অত সহজে ব্যাপারটিকে ছেড়ে দেবে না, তা এদিন বিক্ষোভকারীদের আচরনেই কার্যত পরিষ্কার হয়ে গেল বলে মনে করছে বিশ্লেষকরা। এখন কবে এই উর্দু মাধ্যমে টেট উত্তীর্ণদের পাশে দাঁড়ায় রাজ্য, সেদিকেই তাকিয়ে সকলে।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!