এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > আইন না মেনেই বহু শিক্ষককে “উচ্চতর স্কেল”- শিক্ষক প্রতি প্রায় 50 লক্ষ অতিরিক্ত খরচ রাজ্য সরকারের

আইন না মেনেই বহু শিক্ষককে “উচ্চতর স্কেল”- শিক্ষক প্রতি প্রায় 50 লক্ষ অতিরিক্ত খরচ রাজ্য সরকারের

অনেকেই ভেবেছিল; শুধু নিয়োগেই হয়ত সমস্যা ছিল। কিন্তু সময় যতই এগোচ্ছে ততই স্পষ্ট হচ্ছে সমস্যার বীজ। এবার শিক্ষা দপ্তরের একটি সিদ্ধান্তের পরিপ্রেক্ষিতে উত্তর দিনাজপুরের সরকারি কোষাগারের কোটি কোটি টাকা ক্ষতি হচ্ছে বলে অভিযোগ তুলেছেন জেলার প্রধান শিক্ষক ফোরাম। কিন্তু কি সেই অভিযোগ? জানা গেছে গত কয়েক বছরে প্রায় 100 জন পাস গ্রাজুয়েট শিক্ষককে উচ্চতর স্কেলে নিয়োগ করা হয়েছে। কিন্তু 2005 সালের দা ওয়েস্ট বেঙ্গল স্কুলস; কন্ট্রোল এন্ড এক্সপেন্ডিচার-14/2 ধারা অনুযায়ী স্পষ্টতই বলা আছে যে; গ্রাজুয়েট টিচার শ্রেণীতে যাদের নিয়োগ হবে তারা কখনোই উচ্চতর বেতন কাঠামোর দাবি করতে পারবেন না।

কিন্তু শিক্ষা দপ্তরের এহেন সিদ্ধান্তকে না মেনে উত্তর দিনাজপুরের জেলা শিক্ষা দপ্তর বহু শিক্ষককেই উচ্চতর বেতন স্কেল দেওয়ায় তৈরি হয়েছে চরম সমস্যা। আর যার জেরে বছরে এই শিক্ষক পিছু দেড় দু লক্ষ টাকা খরচ হওয়ার পাশাপাশি বর্ধিত স্কেল অনুযায়ী পেনশনের টাকা দিতে হবে তাদের। ফলে এই শিক্ষকদের বেতন মেটাতেই আধ কোটির কাছাকাছি অর্থ খরচ হবে রাজ্যের। কিন্তু উচ্চতর বেতন স্কেল লাগুর পেছনেও রয়েছে অন্য কারণ।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো  করুন এই লিঙ্কেখবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক

সূত্রের খবর; 2013-14 সালের পাস কোর্সের অধিকাংশ গ্রেজুয়েট টিচার হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়ে নিজেদের বর্ধিত শিক্ষাগত যোগ্যতা দেখিয়ে উচ্চতর বেতনের দাবি জানান। আর এরপরই আদালতের পক্ষ থেকে বিষয়টি বিবেচনার জন্য ডিআইকে শুনানির নির্দেশ দেওয়া দেওয়া হলে ডিআই পুরো বিষয়টিতে সীলমোহর দেন। আর এইখানেই ডিআইএর এই সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করেন আইনজীবী এক্রামুল বারি। তিনি বলেন; “যেহেতু আদালত ব্যাপারটাকে বাধ্যতামূলক বলেনি সেও তো কন্ট্রোল এন্ড এক্সপেন্ডিচার অ্যাক্ট অনুযায়ী এটি কি বাতিল করা উচিত ছিল ডিআইএর।” জানা গেছে; বেশিরভাগ ডিআই এটি কে বাতিল করলেও উত্তর দিনাজপুরের তৎকালীন ডিআই তা মানেননি। আর এরপরই আদালত শিক্ষা দপ্তরের সমস্ত আইনকে মান্যতা দিয়ে বাতিল করে দিয়েছে শিক্ষকদের এই উচ্চতর স্কেল দেওয়ার সিদ্ধান্ত।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!