এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > তবে কি তৃণমূল থেকে ক্রমশ ব্রাত্য হচ্ছেন তাপস পাল উঠছে প্রশ্ন

তবে কি তৃণমূল থেকে ক্রমশ ব্রাত্য হচ্ছেন তাপস পাল উঠছে প্রশ্ন

দল কি ক্রমশ ব্রাত্য করে দিচ্ছে এমনি প্রশ্ন উঠছে রাজনৈতিক মহলে  সদ্য রোজভ্যালি কাণ্ডে জামিন পাওয়া তাপস পালকে নিয়ে এমনি চর্চা চলছে , দাবি কলকাতার এক নামি ওয়েব পোর্টালের। তাপস পাল একসময়ের বাংলা সিনেমার দাপুটে অভিনেতা ও অন্যদিকে কৃষ্ণনগরের তৃণমূল সাংসদ। তৃণমূল নেত্রীর প্রিয়পাত্র ও ছিলেন কিন্তু সব হিসাব গুলিয়ে দিলো রোজভ্যালি কাণ্ডে জড়িয়ে যাওয়া ও জেল হওয়াতে। ওই পোর্টালের দাবি অনুযায়ী বিভিন্ন সূত্র থেকে জানা যাচ্ছে যে, তাপসবাবুর ক্ষোভ যে জামিন পেয়ে কটক থেকে কলকাতায় ফেরার পর তাঁর সঙ্গে দলের কেউ যোগাযোগ করেননি। এমনকি নিজের উদ্যোগে দলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের সঙ্গে তাঁর বাড়িতে সস্ত্রীক দেখা করতে গেলেও দেখা মেলেনি। ফোনে যোগাযোগ করার চেষ্টা করা হলেও যোগাযোগ করেননি পার্থবাবু। জেলে থাকাকালীনও এমন অভিযোগ তোলা হয়েছিল তাপসবাবুর পরিবারের তরফে বলে বিভিন্ন সংবাদপত্রে প্রকাশিত খবর থেকে জানা যায়। তাপসবাবুর পরিবারের মূল অভিযোগ ছিল নাকি, সিবিআই হেপাজতে থাকাকালীন কিংবা জেলে থাকাকালীন তাঁর পাশে সেভাবে দাঁড়ায়নি দল। উল্টোদিকে একই অভিযোগে জেলে থাকা লোকসভায় তৃণমূলের দলনেতা সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায়ের পাশে দলের পক্ষ থেকে কিন্তু যথেষ্ট গুরুত্ত্ব দিয়ে সমর্থন জানানো হয়েছিল সেই সময়, এমনকি খোদ দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ভুবনেশ্বরে গিয়ে সুদীপবাবুকে দেখে এলেও তাপস পাল ব্রাত্যই থেকে যান। যদিও এই নিয়ে এখনো পর্যন্ত তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে কোনো সরকারি প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায় নি। তবে এই খবরের সত্যতা বা সূত্র সম্পর্কে ওই ওয়েব পোর্টালে কিছু লেখা নেই, প্রিয়বন্ধু বাংলার তরফেও এই খবরের সত্যতা যাচাই করে দেখা সম্ভব হয় নি। এই প্রবন্ধ সম্পূর্ণরূপে ওই পোর্টালে প্রকাশিত খবরের পরিপ্রেক্ষিতে করা, কোনোভাবেই রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত নয় বা কোনো ব্যক্তি বা দলের সম্মানহানির উদ্দেশ্যে রচিত নয়।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!