এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > মুখ্যমন্ত্রীর উন্নয়নে ব্রাত্য সিঙ্গুরের তাপসী মালিকের পরিবার, বদলে স্বাগত ‘খুনির’ পরিবার!

মুখ্যমন্ত্রীর উন্নয়নে ব্রাত্য সিঙ্গুরের তাপসী মালিকের পরিবার, বদলে স্বাগত ‘খুনির’ পরিবার!

শাসকদলের অন্যান্য নেতাদের কথা ছেড়ে দেওয়া যাক, তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী তথা রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় স্বয়ং প্রকাশ্যে জানিয়েছেন বাংলার সার্বিক উন্নয়নের স্বার্থে তাঁর এবারের পঞ্চায়েত নির্বাচনে ১০০% আসনে জয় চায়। আর সেই উন্নয়নের যজ্ঞে রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসেই এখন ব্রাত্য তাঁদের শাসকের আসনে বসার অন্যতম আঁতুরঘর সিঙ্গুর, অভিযোগ শাসকের আসনে বসে ঘাসফুল শিবির ব্রাত্য করে দিল দলে ‘শহীদের’ মর্যাদা পাওয়া তাপসী মালিকের পরিবারকে। শেষপর্যন্ত এবারের পঞ্চায়েত নির্বাচনে দলীয় টিকিট না পেয়ে সিঙ্গুরের একটি জেলা পরিষদ আসন থেকে নির্দল হয়েই দাঁড়িয়ে পড়লেন সিঙ্গুরের ‘শহীদ’ তাপসী মালিকের বাবা মনোরঞ্জন মালিক।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

সিঙ্গুর আন্দোলনের অন্যতম পুরোধা তথা সিঙ্গুরের বিধায়ক রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য চেয়েছিলেন সিঙ্গুরের ৪ নম্বর জেলা পরিষদ আসন থেকে এবার প্রতিদ্বন্দ্বিতা করুন মনোরঞ্জনবাবু, আর তাই সেখানে মনোনয়ন জমা দেন তাপসী মালিকের বাবা। কিন্তু, দল সেই দাবি মেনে নিতে রাজি ছিল না, ফলে এই নিয়ে দলের অন্দরেই চলে নজিরবিহীন টানাপোড়েন। শেষপর্যন্ত, দলীয় রাজনীতিতে ব্রাত্য হয়ে পড়েন রবীন্দ্রনাথবাবু বা মনোরঞ্জনবাবু! ২১ শে জুলাইয়ের মঞ্চ ‘আলো করে’ বসে থাকা ‘শহীদের পরিবার’ টিকিট পায় না। তার থেকেও বড় কথা, দলীয় আদেশ ‘অমান্য’ করে নির্দল প্রার্থী হয়ে দাঁড়িয়ে মনোরঞ্জনবাবু সামনে নিয়ে এলেন বিস্ফোরক অভিযোগ। তিনি বলেন, বাজেমিলিয়ায় দলের এমন এক জনকে পঞ্চায়েতের টিকিট দেওয়া হয়েছে, যাঁর কাকাকে তাপসী খুনের ঘটনায় গ্রেফতার করেছিল সিবিআই। এর প্রতিবাদেই আমি নির্দল প্রার্থী হলাম।

আপনার মতামত জানান -
Top
error: Content is protected !!