এখন পড়ছেন
হোম > Posts tagged "tmc leader"

শাসকদলকে তীব্র অস্বস্তিতে ফেলে দাপুটে নেতার ছায়াসঙ্গী তোলাবাজির অভিযোগে গ্রেপ্তার!

  লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূলের ফলাফল খারাপ হওয়ার পেছনে দলীয় স্তরে তোলাবাজির দাপট যে অনেকাংশেই দায়ী, তা ফলাফল পর্যালোচনায় উঠে এসেছিল। আর নির্বাচনে এই খারাপ ফলাফলের পরই দলের তরফ থেকে কোনো তোলাবাজি বরদাস্ত করা হবেনা বলে জানিয়ে দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু অভ্যাস যদি স্বভাবে পরিণত হয়, তাহলে বড়ই বিপদ। সেই রকমই তৃণমূলের শীর্ষস্তর

লোকসভায় ধাক্কা খেতেই এবার বড়দিনেও ছুটি নেই তৃণমূলীদের! সামনে এল 3 দিনের বড়সড় পরিকল্পনা

  লোকসভা নির্বাচনে সারা উত্তরবঙ্গ জুড়ে তৃণমূলের ধ্বস লক্ষ করা গেছে। উত্তরবঙ্গের আটটি আসনের মধ্যে একটি আসনেও জয়লাভ করতে পারেনি ঘাসফুল শিবির। আর এই পরিস্থিতিতে দলের সংগঠনকে চাঙ্গা করতে এখন বিধানসভা নির্বাচনের আগেই বিভিন্ন কর্মসূচি নিতে শুরু করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। একসময় তৃণমূল কর্মীরা ক্ষমতার দাপটে বিভিন্ন কর্মসূচি থেকে বিরত হয়ে আরাম

নির্বাচনের মুখে শাসকদলের অস্বস্তি বাড়িয়ে তৃণমূল সাংসদ বনাম বিধায়কের দ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে

একসময় সিপিএমের দাপুটে নেতা ছিলেন তিনি। পরবর্তীতে তৃণমূলের ভাঙড়ের তৃণমূল বিধায়ক হয়েছেন রেজ্জাক মোল্লা। তবে শুধু বিধায়ক নয়, বর্তমানে রাজ্যের মন্ত্রীও তিনি। আর ভাঙ্গড়ের এই তৃণমূল বিধায়ক তৃণমূলে যোগদান করার পর থেকেই সেখানকার দুর্দিনের তৃণমূল নেতা হিসেবে পরিচিত আরাবুল ইসলামের সঙ্গে তার দ্বন্দ্ব প্রকাশ্যে চলে আসে। সম্প্রতি সেই দ্বন্দ্ব আরও বৃদ্ধি

দলীয় নেতাকর্মীদের কাছে ছেড়ে না যাওয়ার জন্য কাতর আবেদন মন্ত্রীর, জেনে নিন

  লোকসভা নির্বাচনে 42 এ 42 এর স্লোগান তুলে 22 টি আসন দখল করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। যেখানে বিজেপি 18 টি আসন দখল করে তৃণমূলের ঘাড়ে নিঃশ্বাস ফেলতে শুরু করেছে‌। আর এই পরিস্থিতিতে লোকসভায় তৃণমূলের ফলাফল খারাপ হওয়ার পর প্রশান্ত কিশোর "দিদিকে বলো" কর্মসূচি দিয়ে গোটা তৃণমূল দলের নেতা, মন্ত্রীদের ময়দানে নামিয়ে

দাপুটে নেত্রী বিজেপি যোগ দিতেই তাঁকে নিস্ক্রিয় করার প্রক্রিয়া শুরু করে দিলে স্বয়ং মমতা?

  2011 সালে রাজ্যে ক্ষমতায় আসার পর থেকেই মিনি মহাকরন নিয়ে বিভিন্ন জেলায় ছুটে যেতে দেখা গেছে পশ্চিমবাংলার প্রশাসনিক প্রধান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে। দিনাজপুর থেকে দমদম, সর্বত্রই রাজ্য সরকারের আমলা, জনপ্রতিনিধি সকলকে সঙ্গে নিয়ে এলাকাভিত্তিক উন্নয়নের রূপরেখা স্থির করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।  সেরকমই গত 19 নভেম্বর 2019 দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার প্রশাসনিক বৈঠকে গঙ্গারামপুর

বিতর্ক থামাতে অবশেষে নিজের পাশেই দাপুটে নেতাকে জায়গা করে দিলেন তৃণমূল নেত্রী

  প্রথম থেকে আশঙ্কা ছিল, তিনি মঞ্চে বসবেন, নাকি নিচে বসতে হবে তাঁকে! তবে সেই আশঙ্কাকে দূরীভূত করে অবশেষে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের একদম পাশের আসনে বসলেন মালদহ জেলা পরিষদের সভাধিপতি গৌরচন্দ্র মন্ডল। কিন্তু হঠাৎ এহেন প্রশ্ন তৈরি হয়েছিল কেন! কেন এই আশঙ্কা তৈরি হয়েছিল যে, জেলা পরিষদের সভাধিপতি নিচেও বসতে পারেন!

স্বল্পবসনা নর্তকীর সঙ্গে প্রকাশ্যে উদ্দাম নেচে তীব্র বিতর্কে দাপুটে তৃণমূল নেতা!

  অতীতেও দলের নিচুতলার নেতাকর্মীদের কার্যকলাপে অস্বস্তিতে পড়তে হয়েছে তৃণমূল কংগ্রেসকে। আর লোকসভা নির্বাচনের পর যখন দলকে স্বচ্ছ হিসেবে সাধারণ মানুষের কাছে উপস্থাপিত করতে চাইছে তৃণমূল, ঠিক তখনই তৃণমূলের পঞ্চায়েত প্রধানের পারিবারিক অনুষ্ঠানে নর্তকীর সঙ্গে নাচের আপত্তিকর ভিডিও প্রবল বিরম্বনায় ফেলল রাজ্যের শাসক দলকে। জানা যায়, ধনেখালি 1 পঞ্চায়েতের প্রধান সফিকুল ইসলাম

যুব তৃণমূল নেতার “দাদাগিরির” প্রতিবাদে এককাট্টা হয়ে বৃহত্তর আন্দোলনে 12 পঞ্চায়েতের কর্মীরা

  সাধারণ মানুষ বড্ড নিরীহ। ভোটের সময় তাদের কাছে গিয়ে সমস্ত রাজনৈতিক দলের নেতারাই বুঝিয়ে তাদের ভোট নিতে সক্ষম হন। কিন্তু ভোটের পর সেই তাদেরকেই তাচ্ছিল্য করতে দেখা যায়। তবে কথায় আছে, যারা যত বেশি নিরীহ, তাদের রুদ্রমূর্তি তত কঠিন। নিরীহ মানুষদের ক্ষেত্রেও তাই। জনবিক্ষোভ যে ঠিক কি আকার ধারণ করতে পারে,

বিজেপি-বাম-কংগ্রেসকে একসঙ্গে বাংলা থেকে বিদায়ের কথা কর্মীদের জানালেন তৃণমূল নেত্রী

  সদ্যসমাপ্ত লোকসভা নির্বাচনে 42 এ 42 এর শ্লোগান তুলেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু বিরোধীদের দাপটে 42 টি আসন দখল করা তো দুরস্ত, উল্টে 22 টি আসনেই আটকে যেতে হয়েছে রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসকে। যেখানে দক্ষিণবঙ্গে তৃণমূল কিছুটা ভালো ফল করলেও উত্তরবঙ্গে একটি আসনও দখল করতে পারেনি তারা। কোচবিহার লোকসভা কেন্দ্র

অভিযুক্ত তৃণমূল নেতাদের গ্রেপ্তারির দাবিতে দীর্ঘক্ষন জাতীয় সড়ক অবরোধ

  এবার তৃণমূল নেতাকে গ্রেফতারের দাবিতে দীর্ঘক্ষন ধরে জাতীয় সড়ক অবরোধ রাখতে দেখা গেল সাধারণ মানুষদের। যে ঘটনায় এখন প্রবল চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে এলাকায়। জানা যায়, গত মঙ্গলবার রাতে দুর্গাপুরের 32 নম্বর ওয়ার্ডের পলাশডিহা অঞ্চলে একটি বহুতল আবাসনে নিম্নমানের সামগ্রী এবং শ্রমিক সরবরাহ নিয়ে স্থানীয় আদিবাসীদের সঙ্গে সেখানকার যুবকদের ব্যাপক সংঘর্ষ

Top
error: Content is protected !!