এখন পড়ছেন
হোম > Posts tagged "supreme court"

এবার ‘ক্লিনচিট’ মুখ্যমন্ত্রীকে বড়সড় ধাক্কা সুপ্রিম কোর্টের! বড়সড় জল্পনা শুরু রাজনৈতিক মহলে

মহারাষ্ট্রে সামনে বিধানসভা ভোট। নির্বাচন কমিশন নির্বাচনের নির্ঘণ্ট স্থির করে দিয়েছে। এর মধ্যেই মহারাষ্ট্রে আসন বন্টন নিয়ে জোট শিবির শিবসেনার সাথে মতানৈক্য শুরু হয়েছে। এদিকে মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবিশ-এর নামে চলছিল একটি মামলা - ভুয়ো হলফনামা পেশ করা নিয়ে। সবমিলিয়ে মহারাষ্ট্রে বিজেপি রীতিমত চাপেই পড়েছিল। এবার সেই চাপকে আরেকটু বাড়িয়ে বিজেপি

সুপ্রিম কোর্টে বড়সড় ধাক্কা খেতেই পুজোর মুখে চাকরির নিয়োগপত্র পাঠানো শুরু রাজ্য সরকারের

কথায় আছে, ঠেলায় না পড়লে বিড়াল গাছে ওঠে না। আর এই কথাকেই হয়ত এবার নিজেদের আপ্তবাক্য হিসেবে ধরে নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে ধাক্কা খেতেই পুজোর মুখে চাকরির নিয়োগপত্র পাঠানো শুরু করল রাজ্য সরকার। বস্তুত, সম্প্রতি রাজ্য সরকারের "রিভিউ পিটিশন" খারিজ করেছিল সুপ্রিম কোর্ট। যেখানে শীর্ষ আদালত জানিয়েছিল, গত 2006 সালের নিয়োগ প্রক্রিয়ায়

অযোধ্যা নিয়ে সংখ্যালঘুদের বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে সুপ্রিম কোর্টের পর্যবেক্ষনে চমকে গেল গোটা দেশ

1992 সালের রাম জন্মভূমি আন্দোলনে 6 ডিসেম্বর বাবরি মসজিদ ভেঙে তার চূড়ায় কর সেবকরা গেরুয়া পতাকা তোলে। বাবরি মসজিদের জমি রাম জন্মভূমি হিসেবে দাবি করা হয়। বলা হয়, রাম জন্মভূমি আগে থেকেই ছিল। পরবর্তীতে সেই জমিতে মসজিদ বানায় মোঘলরা। দেশজুড়ে বাবরি মসজিদ ধ্বংস নিয়ে সৃষ্টি হয় আলোড়ন। এবং তা আদালত

অযোধ্যা মামলার শুনানি নিয়ে বড় সিদ্ধান্ত সুপ্রিম কোর্টের – জানুন বিস্তারিত

1992 সালের রাম জন্মভূমি আন্দোলনে 6 ডিসেম্বর বাবরি মসজিদ ভেঙে তার চূড়ায় কর সেবকরা গেরুয়া পতাকা তোলে। বাবরি মসজিদের জমিটিকেই রাম জন্মভূমি হিসেবে দাবি করা হয়। বলা হয়, রাম জন্মভূমি পুরাকাল থেকেই ছিল। পরবর্তীতে মুঘলরা এসে সেই জমিতে মসজিদ বানায়। দেশজুড়ে বাবরি মসজিদ কাণ্ডে তুমুল আলোড়ন সৃষ্টি হয়। আলোড়ন আদালত

প্রাথমিকে নিয়োগ নিয়ে এবার সুপ্রিম কোর্টের রোষের মুখে রাজ্য সরকার

অস্বস্তি যেন কিছুতেই কাটছে না রাজ্য সরকারের। ফের প্রাথমিকে নিয়োগ নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের রোষের মুখে পড়ল রাজ্য। সূত্রের খবর, প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের চাকরি প্রসঙ্গে সংগঠক শিক্ষকদের একগুচ্ছ মামলার শুনানিতে আজ কিছু ব্যাপারে রাজ্য সরকারের কাছে লিখিত জবাব চাইল সুপ্রিম কোর্ট। যেখানে আদালতের প্রশ্ন, স্ক্রুটিনি করে চাকরির যোগ্য বলে বিবেচিত হওয়ার পরেও

বাংলার পরিস্থিতি নিয়ে মোদী এবং শাহকে রিপোর্ট দিলেন রাজ্যপাল, এক ঘন্টারও বেশি বৈঠক, জল্পনা তুঙ্গে

রাজ্যের প্রশাসনিক পরিস্থিতি নিয়ে রাজ্যপালের সঙ্গে কেন্দ্র সরকারের আলোচনা অত্যন্ত স্বাভাবিক একটা বিষয়। আইনত রাজ্যপাল হল রাজ্যের সাংবিধানিক প্রধান এবং রাজ্যে নিযুক্ত কেন্দ্র সরকারের দূতও বটে। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গ রাজ্যে রাজ্য সরকারের সঙ্গে কেন্দ্র সরকারের বিবাদ যখন নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে এবং রাজনৈতিক দলগত অবস্থানের দিক থেকেও কেন্দ্রের শাসক দল ভারতীয় জনতা

জম্মু কাশ্মীর নিয়ে বড়সড় স্বস্তি বিজেপি শিবিরে ,জেনে নিন বিস্তারিত

জম্মু কাশ্মীর নিয়ে স্বস্তির কথা শোনাল সুপ্রীম কোর্ট । উপত্যকায় বেশ কিছুদিন ধরেই অশান্তির ভয়ে প্রশাসন সেখানে ইন্টারনেট পরিষেবা, টেলিফোন সংযোগ বন্ধ রেখেছে, চলছে কার্ফু । এইগুলি যাতে স্বাভাবিক হয় তাই সুপ্রীম কোর্টে স্বতোঃপ্রণোদিত মামলা করেছিলেন সমাজকর্মী তেহসিন পুনাওয়ালা ।   কিন্তু সুপ্রীম কোর্ট পুনাওয়ালা কে হতাশ করে জানিয়ে দিয়েছে কোর্ট কোনোভাবেই

370 ধারা অবলুপ্তি নিয়ে এবার কেন্দ্রের বিরুদ্ধে শীর্ষ আদালতের দ্বারস্থ এই রাজনৈতিক দল, জানুন বিস্তারিত

সম্প্রতি সকলকে মাস্টারস্ট্রোক দিয়ে কেন্দ্রের মোদি সরকার জম্মু-কাশ্মীরে 370 ধারার অবলুপ্তি ঘটিয়েছে। যার পরেই কাশ্মীরকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে। রাজ্যসভার পর লোকসভাতেও অনায়াসেই কাশ্মীরের এই 370 ধারা বাতিলের সিদ্ধান্ত পাস হয়ে যায়। আর তারপরই রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ এই বিলে স্বাক্ষর করেন। আর কাশ্মীরকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল ঘোষণা করার ঠিক আগের

৩৭০ ধারা নিয়ে কেন্দ্রীয় সরকারের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে মামলা জেনে নিন

সম্প্রতি সকলকে মাস্টারস্ট্রোক দিয়ে সংবিধানের 370 ও 35 এ ধারা প্রত্যাহার করে জম্মু-কাশ্মীরে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল ঘোষণা করেছে কেন্দ্রের মোদি সরকার। আর বিজেপি সরকারের এই সাহসী সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানাতে দেখা গেছে দেশের সিংহভাগ মানুষকে। তবে এর বিরুদ্ধে নানা রাজনৈতিক প্রতিক্রিয়াও তৈরি হয়েছিল। বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলোর তরফে গোটা ঘটনাটিকে অসাংবিধানিক বলে এই বিলের

সুপ্রিম কোর্ট এর দিকে তাকিয়ে সৌরভ গাঙ্গুলী জেনে নিন কেন

লোধা প্রস্তাবের বাস্তবায়নে সিএবির পক্ষ থেকে সমস্ত পদক্ষেপই নেওয়া হয়েছিল। শুধু বাকি ছিল একটি বিষয়। যা সম্পূর্ণ হলেই বাংলার ক্রিকেট সংস্থার নির্বাচনের দিকে এগিয়ে যেতে পারবে। আর এবার সেই ব্যাপারে চূড়ান্ত পদক্ষেপ নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিল ক্রিকেট অ্যাসোসিয়েশন অফ বেঙল। জানা গেছে, বর্তমানে সিএবির অধীনস্থ 121 টি সংস্থার হাতে ভোটাধিকার রয়েছে। যার

Top
error: Content is protected !!