এখন পড়ছেন
হোম > Posts tagged "politics"

এনআরসি নিয়ে ক্ষোভ জানিয়ে বিজেপি আর সিপিএমের রাজনীতি করা চিরতরে বন্ধ করার হুমকি অভিষেকের

এনআরসি নিয়ে আতঙ্কে রাজ্যের প্রায় ছয় জন মানুষের মৃত্যু হয়েছে। রবিবার ফলতায় কালাচাঁদ মিদ্যা নামে এক ব্যক্তি আত্মঘাতী হয়েছেন। সোমবার বিকেলে সেই ব্যক্তির বাড়িতে গিয়ে তার পরিবারের পাশে দাঁড়িয়ে তাদের তিন লক্ষ টাকা আর্থিক সাহায্য করলেন ডায়মন্ড হারবারে তৃণমূল সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। পাশাপাশি সেই মৃত ব্যক্তির বাড়িটি যাতে পাকা দোতলা করে

হেভিওয়েট তৃণমূল নেতার পদ কেড়ে নিতেই শুরু তীব্র বাকযুদ্ধ! জেলার রাজনীতিতে নতুন মোড়?

লোকসভা নির্বাচনের আগে থেকেই দক্ষিণ দিনাজপুরে প্রকাশ্যে আসে দলের প্রাক্তন জেলা সভাপতি বিপ্লব মিত্র এবং 2019 সালে সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেসের বালুরঘাট লোকসভা কেন্দ্রের প্রার্থী অর্পিতা ঘোষের মধ্যে দলীয় টিকিট পাওয়া নিয়ে দ্বন্দ্ব। আর এই অন্তর্কলহের জেরে দুজনের মধ্যে তিক্ততা বেড়ে ওঠে। পরবর্তীতে দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তৃণমূল প্রার্থী হিসেবে অর্পিতা

  সিপিএমের হাত ধরে তৃনমূলকে “উৎখাত” করল বিজেপি! তীব্র চাঞ্চল্য রাজ্য – রাজনীতিতে

এবার তৃণমূলকে সরাতে সিপিএমের সাহায্য নিল গেরুয়া শিবির। বামেদেরকে সঙ্গে নিয়ে দাঁতন বিধানসভা কেন্দ্রের মোহনপুরে রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসের একাধিক দলীয় কার্যালয় দখল করার অভিযোগ উঠতে শুরু করল বিজেপির বিরুদ্ধে।তবে দলীয় কার্যালয় দখলের পাশাপাশি তৃণমূলের কর্মীদের এলাকায় চাষও করতে দেওয়া হচ্ছে না বলে অভিযোগ উঠেছে। যে ঘটনায় এখন তীব্র

খুশির ঈদের অনুষ্ঠান মঞ্চে নামাজ! জলপাইগুড়ির ঘটনা শুনলে আপনার চোখেও জল আসবে

ভারত বর্ষ ধর্মনিরপেক্ষ দেশ। এখানে নানা ধর্ম, নানা বর্ণের মানুষ একত্রে বসবাস করে। হিন্দুরা যেমন দুর্গাপুজোতে আনন্দ করে, ঠিক তেমনই মুসলমানরা ঈদে তাদের উৎসব পালন করে। নিজ ধর্মকে সম্মান করেন না এমন ব্যক্তি খুব কমই খুঁজে পাওয়া যাবে এই ভারতভূমিতে। গতকাল সারা দেশ জুড়ে মহাসমারোহে ঈদ পালিত হয়েছে। আর এই ঈদ

চাপ কি বাড়ছে মুকুল রায়ের, জোর জল্পনা রাজ্য রাজনীতিতে, জেনে নিন বিস্তারিত

একসময় তৃণমূলের সেকেন্ড-ইন-কমান্ড ছিলেন তিনি। প্রায় তার চোখ দিয়েই গোটা দল দেখতেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলে তৃণমূলে একসময় প্রচারও হয়েছিল। কিন্তু তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে সেই একদা তৃণমূলের সেকেন্ড-ইন-কমান্ড তথা বর্তমান বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের দূরত্ব বাড়তে শুরু করে সারদা কাণ্ডে সিবিআইয়ের জেরা পর্ব থেকেই‌। যেখানে দলের পক্ষ থেকে সিবিআইয়ের এই

গেরুয়া ঝড় ঠেকাতে ও লোকালয়ের মন বুঝতে বাম আমলের “সফল রণনীতি” ব্যবহারের পরিকল্পনায় শাসকদল

নির্বাচনী বৈতরণী পার হতে সাধারণ মানুষকে পরিষেবা দেওয়াই যে মূল লক্ষ্য হওয়া উচিত- তা বারে বারে দলীয় নেতাদের বলেছেন তৃণমূল সুপ্রিমো তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর এবারে দলনেত্রীর সেই কথাকে মান্যতা দিয়ে জঙ্গলমহলের যে সমস্ত অঞ্চলে খারাপ ফলাফলের সম্মুখীন হয়েছে শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস, সেইখানে বামেদের কায়দায় একটি "পাড়া বৈঠক" করার

Top
error: Content is protected !!