এখন পড়ছেন
হোম > Posts tagged "ncp"

মহারাষ্ট্রে বিজেপি সরকার গড়তে মোদীর ‘টোপের’ কথা ফাঁস করে দিলেন শরদ পাওয়ার

সম্প্রতি মহারাষ্ট্রের রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে বড়সড় পরিবর্তন ঘটে যায়। এক রাতের মধ্যে মুখ্যমন্ত্রী পদের দাবিদারের মুখ বদলে যায়। পরবর্তীতে সুপ্রিমকোর্ট সম্পূর্ণ পরিস্থিতির হাল ধরে এবং মাত্র 80 ঘণ্টার মধ্যে মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবিশ এবং উপমুখ্যমন্ত্রী অজিত পাওয়ারকে ইস্তফা দিতে হয়। পরবর্তীতে মুখ্যমন্ত্রীর পদ গ্রহণ করেন উদ্ধব ঠাকরে। শিবসেনা, এনসিপি ও কংগ্রেস এই

কুর্শির লড়াইয়ে জিত কার ? এবার চোখ সুপ্রীমকোর্টের রায়ের দিকে

মহারাষ্ট্রে রাতারাতি রাজনৈতিক প্রেক্ষাপট বদল ইতিমধ্যে সংবাদ শিরোনামে উঠে এসেছে। দ্বিতীয় ফড়নবিশ সরকারের পতন ঘটাতে ইতিমধ্যে ত্রয়ী জোট সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছেন। শুক্রবার রাত পর্যন্ত যেখানে ঠিক ছিল মহারাষ্ট্রের পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রী হবেন উদ্ধব ঠাকরে, সেখানে সকলের অলক্ষ্যে সিদ্ধান্ত রাতারাতি পরিবর্তন হয়ে পরবর্তী মুখ্যমন্ত্রী হয়ে গেলেন দেবেন্দ্র ফড়নবিশ। এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে

মোদিকে ধন্যবাদ, শরদই নেতা, বিজেপি-এনসিপি জোট সরকার! অজিতের বার্তায় চমকের পর চমক মহারাষ্ট্রে

  প্রতিমুহূর্তে ঘড়ির সেকেন্ডের কাটা চলার শব্দ পাওয়া যাচ্ছে। তবে এক সেকেন্ডের মধ্যে কি ঘটে যাবে, তা নিয়ে চিন্তায় রয়েছে মহারাষ্ট্রের সমস্ত রাজনৈতিক দল। ইতিমধ্যেই নানা সমীকরণকে সরিয়ে রেখে মহারাষ্ট্রে সরকার গড়েছে বিজেপি। যেখানে এনসিপি বিজেপিকে সমর্থন না দেওয়ার কথা জানালেও সেই এনসিপি'র অজিত পাওয়ার বিজেপিকে সমর্থন দিয়েছে। যা নিয়ে নানা

শরদ পাওয়ারের সঙ্গে সাক্ষাতে বিজেপি সাংসদ! মহারাষ্ট্র নিয়ে নতুন করে বাড়ছে জল্পনা!

শনিবার মাঝরাতে মহারাষ্ট্রের রাজনৈতিক প্রেক্ষাপটে নাটকীয় পরিবর্তন দেখেছে দেশবাসী। ঘটনায় স্তম্ভিত রাজনৈতিক মহল থেকে সাধারণ মানুষ প্রত্যেকে। শুক্রবার রাত পর্যন্ত যেখানে ঠিক ছিল মহারাষ্ট্রের শিবসেনার উদ্ধব ঠাকরে মুখ্যমন্ত্রীর আসন গ্রহণ করতে চলেছেন, সেখানে রাতারাতি কি করে দেবেন্দ্র ফড়নবিশ মুখ্যমন্ত্রীর আসন গ্রহণ করলেন, সে নিয়ে সাধারণের মনে নানান প্রশ্ন। কিন্তু এরই

মহারাষ্ট্রে বিজেপিকে সমর্থন এনসিপির, শরদ পাওয়ারের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন

  বেশ অনেকদিন হয়ে গেল, মহারাষ্ট্রের বিধানসভা নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশ হয়েছে। তবে ফলাফল প্রকাশের পর থেকেই শুরু হয়েছিল নাটকীয় পরিস্থিতি। প্রথমদিকে অবস্থা যেদিকে মোড় নিয়েছিল, তাতে আঁচ করা গিয়েছিল যে, বিজেপি- শিবসেনা জোট এই রাজ্যে সরকার গঠন করবে। কিন্তু মন্ত্রিত্বের ব্যাপারে শিবসেনার ফিফটি-ফিফটি ফর্মুলাতে রাজি হয়নি গেরুয়া শিবির। আর তাইতো প্রথম দিকে

মহারাষ্ট্রের নতুন সমীকরণে ভয়ে কাঁপছেন কংগ্রেস হেভিওয়েট নেতা? জল্পনা তীব্র

মহারাষ্ট্রে সরকার গঠনের ছবি এখনো স্পষ্ট হয়নি। বর্তমানে মহারাষ্ট্রে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি হয়েছে। কথা ছিল, এর মধ্যে যে দল সংখ্যাগরিষ্ঠতা দাবি করতে পারবে সেই দলই মহারাষ্ট্রের সরকার গড়বে। কিন্তু জটিলতা এখনো কাটেনি। শিবসেনা ও বিজেপি সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণ করতে পারেনি উভয়েই। ফলে রাষ্ট্রপতি সরকার এখনও অব্যাহত। তবে সূত্রের খবর, শিবসেনা ক্রমাগত

শিবসেনার দাবি নিয়ে এবার মুখ খুললেন অমিত শাহ

সরকার গঠনের নাটকে নয়া মোড় মহারাষ্ট্রে। ইতিমধ্যে শিবসেনা এবং এনসিপিও যথাক্রমে সরকার গঠনের জন্য দাবি পেশ না করতে পারায় মহারাষ্ট্রের রাজ্যপাল রাষ্ট্রপতি শাসনের সুপারিশ করেন এবং মোদির মন্ত্রিসভা তা মেনে নিয়েই মহারাষ্ট্রে আগামী ছয় মাসের জন্য রাষ্ট্রপতি শাসন জারি করে দেওয়া হয়েছে। আর এর পরেই ক্ষোভে ফেটে পড়ে শিবসেনা। তাঁদের

শিবসেনা-এনসিপি সরকারকে সমর্থন নিয়ে চরম দোটানায় কংগ্রেস! ডাকা হল জরুরি বৈঠক

মহারাষ্ট্রের সরকার গঠন এখন অথৈ জলে। বিধানসভার সরকারের মেয়াদ ফুরালেও বিজেপি শিবসেনা সংঘাতে মহারাষ্ট্রের সরকার গঠন ঘিরে জটিলতা চরম আকার ধারণ করেছে। বৃহত্তম দল হিসেবে বিজেপিকে সরকার গঠনের আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন মহারাষ্ট্রের রাজ্যপাল। কিন্তু রবিবার বিজেপি জানিয়ে দিয়েছে, তাঁরা মহারাষ্ট্রের সরকার গঠন করবে না। ফলস্বরূপ দ্বিতীয় বৃহত্তম দল শিবসেনাকে রাজ্যপাল আহ্বান

বিজেপি সঙ্গ ছেড়ে এনসিপির হাত ধরে মহারাষ্ট্রের কুর্শি দখলের পথে আরও এগিয়ে গেল শিবসেনা

সরকার গঠন ঘিরে ফের নয়া জটিলতার মুখে মহারাষ্ট্র। বৃহত্তম দল হিসেবে বিজেপিকে সরকার গঠনের আমন্ত্রণ জানিয়েছিলেন মহারাষ্ট্রের রাজ্যপাল। কিন্তু রবিবার বিজেপি জানিয়ে দিয়েছে যে তাঁরা মহারাষ্ট্রের সরকার গঠন করবে না। ভোটের ফলের দুই সপ্তাহ কেটে গেলেও কোন দল সরকার গড়ার দাবি জানাতে পারেনি এখনো। অন্যদিকে, আড়াই বছর বিজেপি এবং বাকি

জোট সমীকরণ চূড়ান্ত করেই বিজেপিকে হারাতে কোমর বেঁধে আসরে নামলো কংগ্রেস – জেনে নিন বিস্তারিত

2019 এর লোকসভা ভোটে বিপুল জয় লাভ করে একক সংখ্যাগরিষ্ঠ ভাবে বিজেপি দ্বিতীয়বার দিল্লীর মসনদ দখল করে। প্রধানমন্ত্রী হন নরেন্দ্র মোদী। চেষ্টা করেও বিরোধী দলগুলি প্রায় খড়কুটোর মতো উড়ে গেছে বিজেপির সামনে থেকে। এবার মহারাষ্ট্রে আসন্ন বিধানসভা নির্বাচন। আর এই নির্বাচনকে সামনে রেখে বিরোধী দল কংগ্রেস ও এনসিপি এবার জোট

Top
error: Content is protected !!