এখন পড়ছেন
হোম > Posts tagged "narendra modi"

বড়সড় উপহার পেলেন দিলীপ ঘোষ সৌজন্যে প্রধানমন্ত্রী , জেনে নিন বিস্তারিত

বাংলা থেকে ১৮ টি আসন পেয়েছে বিজেপি লোকসভা ভোটে। যার ফলে বাংলা থেকে বড়সড় প্রাপ্তি হয়েছে গেরুয়া শিবিরের। আর এদিকে এই সাফল্য পেয়েছে বিজেপি দিলীপ ঘোষের সভাপতিত্বে। তিনি নিজেও সাংসদ হয়েছেন। আর এদিকে শোনা যাচ্ছে তাঁর নেতৃত্বে পাওয়া বাংলায় বিজেপির এই ফলাফলে বেজায় খুশি দিল্লির নেতারা। খুশি মোদিও। আর তাই এবার

লক্ষ্য বাংলা, তাই এবার বাঙালিদের মন জয়ে সাংসদের বড়সড় নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর, জেনে নিন

লোকসভা ভোটে বিপুল সংখ্যক আসন নিয়ে ফিরেছে কেন্দ্রের বিজেপি সরকার। আর অন্যদিকে নজর কেড়েছে বাংলায়। আগে লোকসভা ভোটে থেকে বিজেপি বাংলায় খাতা খুললেও ১৮ টি আসন এই প্রথম বার দখল করলো বিজেপি। আর এর পরেই বাঙলাকে ঘিরে স্বপ্ন দেখছে বিজেপি নেতৃত্ব। তৃণমূল সরকারকে হটিয়ে রাজ্যে ২০২১ এ সরকারে নিজেদের প্রতিঠিত

সরকারকে পঙ্গু করার চেষ্টা করে যাচ্ছেন মোদী-শাহ, বিস্ফোরক অভিযোগ

চূড়ান্ত ডামাডোলের পরিস্থিতি কর্নাটকে। টলমল করছে মুখ্যমন্ত্রী কুমারস্বামীর সিংহাসন।যেকোনো মুহূর্তে পতন ঘটতে পারে কংগ্রেস জেডিএস এর জোট সরকারের। এই পরিস্থিতিতে কংগ্রেস নেতা তথা প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী সিদ্দারামাইয়া তীব্র আক্রমন করলেন কেন্দ্রের বিজেপি সরকারকে। কর্ণাটকের এই অস্থির অবস্থার জন্য সরাসরি নিশানা করলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ এর দিকে। সিদ্দারামাইয়ার বিস্ফোরক

মহুয়ার প্রথম দিনের ভাষণ নিয়ে বিতর্ক, ভাষণ টুকেছেন – এমনই বিস্ফোরক অভিযোগ সংসদের বিরুদ্ধে

সংসদে তাঁর প্রথম ভাষণেই গোটা দেশের প্রশংসা কুড়িয়েছেন তৃণমূল সাংসদ মহুয়া মৈত্র।তাঁর ঝরঝরে ইংরেজি, প্রতিবাদী বাচনভঙ্গী ও ঝাঁঝালো বক্তব্য আগ্রহ ছড়িয়েছে প্রায় সব মহলের মধ্যেই। বিশেষ করে যুবসমাজের একাংশ তাঁর এই 'প্রাথমিক ফ্যাসিবাদের ৭টি লক্ষণ ' বিষয়ক ভাষণকে বছরের শ্রেষ্ঠ বক্তব্যের তকমা দিতেও কসুর করছেনা।কিন্তু দিন কয়েক কাটতে না-কাটতেই তাঁর

এবার বিজেপিতে আসতে চলেছেন হেভিওয়েট সংখ্যালঘু নেতা, জোর শোরগোল

প্রথম ইনিংসে বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠ নিয়ে কেন্দ্রের ক্ষমতায় বিজেপি আসার পর দ্বিতীয় ইনিংসে কে আসবে, তা নিয়ে জাতীয় রাজনীতিতে তীব্র গুঞ্জনের সৃষ্টি হয়। তবে সদ্যসমাপ্ত লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি ফের প্রবল জনসমর্থন নিয়ে ক্ষমতায় আসলে দলবদলের পালা সৃষ্টি হয়। এমনকি বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের পক্ষ থেকে নরেন্দ্র মোদির ভূয়সী প্রশংসাও করা হয়। আর এবার

মমতার হাত ছেড়ে কে কে মোদির হাত ধরছেন আজ দিল্লিতে , জেনে নিন

লোকসভা নির্বাচনে রাজ্যের তৃণমূলের ভরাডুবি হওয়ার পর এই ঘাসফুল শিবিরের অন্দরমহল ভাঙতে শুরু করেছে।লোকসভা নির্বাচনের ফল প্রকাশের পর থেকেই রাজ্যের তৃণমূলের ভরাডুবি এবং বিজেপির উত্থানের পর একের পর এক পৌরসভার কাউন্সিলর এবং বিধানসভার বিধায়করা বিজেপিতে যোগদান করতে শুরু করেন। ইতিমধ্যেই রাজ্যে প্রধান বিরোধী দল হয়ে ওঠা গেরুয়া শিবিরে নাম লেখাতে

মোদি নির্বাচনে জিতলে আমিও থাকব না, আপনারাও থাকবেন না – স্পষ্ট জানালেন মমতা

কেন্দ্রের মসনদ থেকে বিজেপিকে সরাতে লোকসভা নির্বাচনের দামামা বাজার বহু আগে থেকেই দেশজুড়ে বিজেপি বিরোধী মহাজোটের সুতোটা বেঁধেছিলেন তৃণমূল নেত্রী তথা বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর এবার লোকসভা নির্বাচনের প্রচারে গিয়ে মুর্শিদাবাদে দলীয় প্রার্থীর সমর্থনে বক্তব্য রাখতে উঠে যদি নরেন্দ্র মোদি সরকার ফের ক্ষমতায় আসে তাহলে তিনি থাকবেন না বলে

কাশ্মীরে দাঁড়িয়ে বিরোধীদের উড়িয়ে বজ্রকঠিন কন্ঠে নরেন্দ্র মোদি জানালেন- দেশভাগ হতে দেব না

যতই বাধা আসুক না কেন, জম্মু-কাশ্মীরকে তিনি কখনোই আলাদা হতে দেবেন না বলে প্রথম থেকেই নিজের অবস্থান স্পষ্ট করে এসেছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। আর এবার লোকসভা নির্বাচনের মরসুমে আরও একবার নিজের অবস্থানে অনড় থাকার কথাই শোনালেন তিনি। সূত্রের খবর, এদিন জিতেন্দ্র সিংয়ের সমর্থনে কাঠগড়ায় সভায় উপস্থিত হয়ে নরেন্দ্র মোদি ওমর

ধাপ্পা দিয়ে ভোট নিয়ে এখন নতুন অবতার চৌকিদার সেজেছেন- মোদিকে আক্রমণ মমতার

আসন্ন লোকসভা নির্বাচনের আগে নিজেকে "চৌকিদার" বলে ইতিমধ্যেই জোর প্রচার চালাতে শুরু করেছে বিজেপির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। আর নরেন্দ্র মোদির এই "চৌকিদার" স্লোগানকে ঘিরে বিরোধীদের পক্ষ থেকে কংগ্রেস ইতিমধ্যেই স্লোগান তুলতে শুরু করেছে "চৌকিদার চোর হ্যায়।" আর এবার কোচবিহারের মাথাভাঙার সভা থেকে সেই "চৌকিদার" ইস্যুতে নরেন্দ্র মোদিকে কড়া ভাষায় বিঁধলেন

আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির হয়ে ঝড় তুলতে রাজ্যে আসছেন অমিত শাহ

আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে বাংলায় গেরুয়া ঝড় তুলতে বিজেপির মূল ভরসা যে নরেন্দ্র মোদী এবং অমিত শাহ, তা এই নির্বাচনের প্রথম দফার ভোটে এই দুই হেভিওয়েটের সভার দিনক্ষণ নিয়েই ফের আরও একবার স্পষ্ট হয়ে গেল। প্রসঙ্গত, আগামী 3 এপ্রিল কলকাতার ব্রিগেডে এবং উত্তরবঙ্গে দুটি সভা করার কথা রয়েছে প্রধানমন্ত্রীর। আর তারপরই প্রথম

Top
error: Content is protected !!