এখন পড়ছেন
হোম > Posts tagged "mla-s"

পুরোনো বিধায়কদের প্রার্থী করা হলে হারবে! তৃণমূলের দাপুটে নেতার পোস্টে তুলকালাম দলের মধ্যেই

  লোকসভায় তৃণমূলের ফলাফল খারাপ হয়েছে। আর দলের ফলাফল খারাপ হওয়ার পর দলের শৃংখলার প্রতি বেশি জোর দিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। কিন্তু এবার যত দিন যাচ্ছে, ততই যেন দলীয় নেতা, বিধায়কদের মন্তব্য অস্বস্তিতে ফেলে দিচ্ছে তৃণমূল কংগ্রেসকে। সূত্রের খবর, পূর্ব বর্ধমান জেলা পরিষদের সদস্য নুরুল হাসানের বিতর্কিত পোস্ট এবার প্রবল অস্বস্তিতে ফেলল ঘাসফুল

বিধায়কের বিরুদ্ধে “বিদ্রোহ” ঘোষণা তৃণমূলের এক ঝাঁক জনপ্রতিনিধির! শাসকদলের কোন্দল ঘিরে জল্পনা

কখনও প্রাক্তন চেয়ারম্যান- বর্তমান চেয়ারম্যান দ্বন্দ্ব, কখনও প্রাক্তন জেলা সভাপতি - বর্তমান জেলা সভাপতির দ্বন্দ্ব, আবার কখনও বা দলীয় জনপ্রতিনিধিদের বিধায়কের বিরুদ্ধে ক্ষোভপ্রকাশ, একের পর এক ঘটনায় রাজ্যের সীমান্তবর্তী জেলা হিসেবে পরিচিত মালদহে তৃণমূলের অস্বস্তি দিনকে দিন বাড়তে শুরু করেছে। কিছুদিন আগেই ইংলিশবাজার পৌরসভার ভাইস চেয়ারম্যান দুলাল সরকার মালদহ জেলা তৃণমূলের

গোলাগুলি থামিয়ে এলাকায় শান্তি ফেরাতে দুই বিধায়কের বৈঠক ঘিরে তীব্র জল্পনা শাসকদলের অন্দরেই

দীর্ঘদিন ধরেই সন্ত্রাস চলছে। কিন্তু উত্তর দিনাজপুর জেলার চোপড়া থানার সীমান্তবর্তী লক্ষ্মীপুর, ঘিরনিগাঁও ও দাসপাড়ায় শান্তি ফিরছে না কিছুতেই। মাঝেমধ্যেই রাজনৈতিক হিংসায় এলাকায় তীব্র উত্তেজনা সৃষ্টি হচ্ছে। আর এই এলাকাগুলির মধ্যে সবথেকে বেশি উত্তপ্ত হতে দেখা গেছে লক্ষীপুরকে। কিন্তু সেই সন্ত্রাস আর কতদিন! তাই এবার এলাকায় শান্তি ফেরাতে চোপড়ার তৃনমূল বিধায়ক

কমপক্ষে 50 বিধায়ক বিজেপিতে যাওয়ার জন্য যোগাযোগ রাখছে, বিস্ফোরক বিজেপি নেতা

লোকসভা নির্বাচনের পর থেকেই গেরুয়া শিবিরের সাফল্য এবং বিরোধী দলগুলো সংগঠনের ধ্বস নামতে শুরু করে। মোদি ম্যাজিকে এবার বিজেপি আবারও দ্বিতীয়বারের জন্য তিনশোর বেশি আসন নিয়ে কেন্দ্রের ক্ষমতা দখল করেছে। আর তারপর থেকেই বিভিন্ন জায়গায় বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো থেকে গেরুয়া শিবিরে যোগদানের মাত্রা বৃদ্ধি পায়। সম্প্রতি কর্নাটকে তার কিছুটা হলেও প্রতিফলন

অবশেষে কি পরে যাবে সরকার! জোর চাঞ্চল্য কর্ণাটকের রাজনীতিতে, তাকিয়ে সারা দেশ

একের পর এক বিধায়কের ইস্তফায় কর্নাটকে কংগ্রেস-জেডিএস জোট সরকারের অস্তিত্ব সংকটের মুখে পড়েছিল। আর এবার গোদের উপর বিষফোঁড়া হিসেবে সুপ্রিম কোর্টের রায় সেই কর্নাটকের জোট সরকারকে আরও একধাপ পতনের দিকে এগিয়ে দিল বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। বস্তুত, বিধায়করা স্পিকারের কাছে তাদের ইস্তফা দিলেও স্পিকার তাদের ইস্তফা পত্র সেইভাবে গ্রহণ করছে না

মমতার চাপ বাড়িয়ে বিজেপিতে বিধায়কদের যোগদান সম্পর্কে বিস্ফোরক মুকুল রায়

লোকসভা নির্বাচনের পর থেকেই দলবদলের পালা যেন বঙ্গ রাজনীতিতে স্বাভাবিক ব্যাপার হয়ে দাঁড়িয়েছে। নচিকেতা গেয়েছিলেন, "আজকে যিনি দক্ষিণেতে, কালকে তিনি বামের.." বিশিষ্ট সঙ্গীতশিল্পী তার এই গানকে কিভাবে উপস্থাপিত করেছিলেন তা বলতে পারবেন না কেউই, তবে এর মর্মার্থ যে বর্তমান বঙ্গ রাজনীতির সঙ্গে একেবারে হুবহু মিলে গিয়েছে, সেই ব্যাপারে একপ্রকার নিশ্চিত

দলবদল করেই পুরস্কৃত বিধায়করা, জোর সোরগোল রাজ্যে

সম্প্রতি গোয়ার 15 জন কংগ্রেস বিধায়কের মধ্যে 10 জন কংগ্রেস বিধায়ক ইস্তফা দেন। আর এরপর থেকেই জল্পনা ছড়ায় যে, তাহলে এই বিধায়করা হয়ত বিজেপিতে যোগ দিতে পারে। আর যেমন ভাবা তেমন কাজ। কংগ্রেস থাকা এই চার বিধায়ক গেরুয়া শিবিরে যোগ দেওয়ায় এবার তাদের রাজ্য মন্ত্রিসভায় সামিল করার জল্পনা ছড়িয়ে পড়ল। প্রসঙ্গত,

Top
error: Content is protected !!