এখন পড়ছেন
হোম > Posts tagged "meetings"

দিল্লির বৈঠকে না যাওয়া, এনআরসি বিরোধিতা নিয়ে মমতাকে আক্রমণ কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর, জোর চাঞ্চল্য!

  নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন লাগু হওয়ার পর থেকেই তার চরম বিরোধিতা করা শুরু করেছেন তৃণমূল নেত্রী তথা বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কোনোভাবেই তিনি বাংলায় এনআরসি হতে দেবেন না বলে জানিয়ে দিয়েছেন। পাশাপাশি এই আইন বাতিলের দাবিতে পদযাত্রা সভা-সমিতিতে লাগাতার অংশ নিচ্ছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। যাকে কেন্দ্র করে বিজেপির তরফ সেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে

কলকাতায় হাসিনা-মমতা বৈঠক, শরণার্থী নিয়ে ধন্যবাদ জানালেন ভারতকে

  বর্তমানে গোটা দেশ জাতীয় নাগরিকপঞ্জি নিয়ে উত্তপ্ত। অসমে জাতীয় নাগরিকপঞ্জি তালিকা থেকে প্রচুর হিন্দু বাদ যাওয়ার পরেই বাংলাতেও এনআরসি করা হবে বলে একাংশ দাবি জানাতে থাকে। আর বিজেপি নেতাদের মধ্যে থেকে ওঠা সেই দাবি ভিত্তিহীন বলে দাবি করতে দেখা যায় রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেসকে। ইতিমধ্যেই নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন এবং জাতীয়

সরকারি সভা ভন্ডুল করে দিলেন তৃণমূল নেতা! ক্ষোভে ফুঁটছেন তৃণমূলের জনপ্রতিনিধিরা!

  শাসক দলে আছে তৃণমূল। আর সেই তৃণমূল নেতারাই এবার কিনা সরকারি সভা বন্ধ করে দিলেন। সূত্রের খবর, এবার বিডিও অফিসে সরকারি সভা ভন্ডুল করে দেওয়ার অভিযোগ উঠল ময়নাগুড়ি 2 ব্লক তৃণমূল নেতৃত্বের বিরুদ্ধে। যা নিয়ে এখন প্রবল চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে এলাকায়। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, গত বুধবার ময়নাগুড়িতে প্রশাসনিক বৈঠক ডাকা হয়েছিল। যে

উত্তরবঙ্গ এবং দক্ষিণবঙ্গের দুই মন্ত্রীর ওপর খাড়া নেমে আসতে পারে আজকের মমতার বৈঠকে, নাম নিয়ে জল্পনা তুঙ্গে

  লোকসভায় দলের খারাপ ফলাফল দেখে স্তম্ভিত হয়ে গিয়েছিলেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। 42 এ 42 এর স্লোগান তুলে কিভাবে তাকে 22 এই আটকে যাতে হল, তা নিয়ে নানা পর্যালোচনাও করেছিলেন তিনি। যার ফলশ্রুতি হিসেবে উঠে এসেছিল, দলীয় গোষ্ঠী কোন্দল, জনপ্রতিনিধিদের দুর্নীতি থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষের সঙ্গে সংযোগের অভাব। কিন্তু

প্রধানমন্ত্রীর কাছে কিসের আবেদন করলেন মুখ্যমন্ত্রী? জেনে নিন বিস্তারিত

সদ্যসমাপ্ত লোকসভা নির্বাচনের প্রচারে তিনি প্রধানমন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে নানা কুমন্তব্য করেছিলেন। যার পরে অনেকেই মনে করেছিল, হয়ত বা আর রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী এবং দেশের প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে কোনোরূপ আলোচনাই হওয়া সম্ভব নয়। কিন্তু রাজনীতিতে অসম্ভব বলে কিছু নেই। আর তাই তো একসময় তিনি কোমরে দড়ি পড়াবেন বলে মন্তব্য করলেও এবার রাজ্যের দাবি

আপোষহীন উন্নয়নের লক্ষ্যে কোমর বেঁধে ময়দানে নামতে আজ বিশেষ বৈঠকে শুভেন্দু অধিকারী

সদ্যসমাপ্ত লোকসভা নির্বাচনে কংগ্রেসের শক্ত ঘাঁটি বলে পরিচিত মুর্শিদাবাদের শুভেন্দু অধিকারীর হাত ধরে কিছুটা হলেও ভালো ফল করেছে তৃনমূল। তবে শুভেন্দুবাবুর মূল টার্গেটে থাকা বহরমপুর লোকসভা কেন্দ্র কংগ্রেসের কাছ থেকে ছিনিয়ে নিতে পারেনি শাসকদল। আর এই পরিস্থিতিতে সামনেই 2021 এর বিধানসভা নির্বাচনের আগে এবার মুর্শিদাবাদ জেলার সমস্ত দলীয় জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে আজ

রাজ্য বিজেপি নেতৃত্বের অদল বদল নিয়ে মঙ্গলবার গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক, গেরুয়া শিবির জুড়ে তীব্র জল্পনা

লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি বাংলায় সাফল্য পাওয়ার পর এবার তাদের টার্গেট, আগামী বিধানসভা নির্বাচনকে পাখির চোখ করে দলের সংগঠনকে বৃদ্ধি করা। সে ক্ষেত্রে দলের নেতৃত্বদেরকে ছাড়া তো সংগঠন হবে না। আর তাই এবার রাজ্য সভাপতি থেকে বুথ সভাপতি, সমস্ত ক্ষেত্রে সহমতের ভিত্তিতে নেতা বাছাইয়ের জন্য একটি বিশেষ বৈঠক ডাকল গেরুয়া শিবির। সূত্রের

একাধিক গুরুত্বপূর্ণ নেতাকে নিয়ে কলকাতায় বৈঠকে বসছেন শুভেন্দু অধিকারী, বাড়ছে জল্পনা

লোকসভা নির্বাচনের অনেক আগেই মুর্শিদাবাদে ঘাসফুল ফোটাতে তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সেই জেলার সম্পূর্ণ দায়িত্ব দিয়েছিলেন শুভেন্দু অধিকারীর উপর। আর জেলা পর্যবেক্ষকের দায়িত্ব পাওয়ার পর থেকেই মুর্শিদাবাদ জেলায় গিয়ে দলীয় সংগঠনকে চাঙ্গা করার পাশাপাশি লোকসভা নির্বাচনে এই জেলার তিনটি আসনেই তৃণমূল জিতবে বলে দাবি করেছিলেন শুভেন্দুবাবু। তবে এই দুটি লোকসভা কেন্দ্রে

মন্ত্রীর দলীয় বৈঠকে অনুপস্থিত চার বিধায়ক, বিজেপি যোগের জল্পনা শুরু

তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে আসার পরই বঙ্গ বিজেপি চাণক্য মুকুল রায় ঘাসফুল শিবিরের অন্দরে ভাঙন ধরাতে শুরু করেছিলেন। আর লোকসভা নির্বাচনে বাংলায় তৃণমূলের ভরাডুবি এবং বিজেপির অভাবনীয় উত্থানের পরই সেই মুকুল রায়ের গেম প্ল্যানে শাসকদলের ভাঙন তীব্র থেকে তীব্রতর হয়ে উঠতে থাকে। ইতিমধ্যেই রাজ্যের বেশ কিছু পৌরসভায় তৃণমূল কাউন্সিলর এবং বেশ কিছু

বাংলা নিয়ে কথা বলতে মুখ্যমন্ত্রীকে দিল্লিতে বৈঠকে আমন্ত্রণ জানাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী

লোকসভা নির্বাচনের পর বাংলায় ঘটে চলা লাগাতার সন্ত্রাসের পরিপ্রেক্ষিতে কেন্দ্রের হস্তক্ষেপে বারেবারেই আপত্তি জানিয়েছেন তৃণমূল নেত্রী তথা বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর রবিবার দিল্লিতে সর্বদলীয় বৈঠকে বাংলায় যাতে কেন্দ্র কোনোরূপ হস্তক্ষেপ না করে তার আর্জি জানান সংসদের দুই কক্ষের তৃণমূল নেতা সুদীপ বন্দ্যোপাধ্যায় এবং ডেরেক ও'ব্রায়েন। তবে তারা যখন এই

Top
error: Content is protected !!