এখন পড়ছেন
হোম > Posts tagged "loksbha"

কবে হতে চলেছে রামমন্দির, স্পষ্ট ঘোষণা অমিত শাহের

  দশকের পর দশক থেকে ভারতবর্ষের সবথেকে দীর্ঘকালীন মামলার মধ্যে একটি ছিল রাম জন্মভূমি, বাবরি মসজিদ মামলা। তবে গত 9 নভেম্বর সুপ্রিম কোর্টের রায় রাম মন্দিরের পক্ষে যায়। আর এরপর থেকেই রাম মন্দিরের স্বপক্ষে থাকা রাজনৈতিক দল থেকে শুরু করে ধর্মীয় সংগঠনগুলির মধ্যে অতিসত্বর অযোধ্যায় রাম মন্দির নির্মাণের জন্য তৎপরতা চোখে

লোকসভায় তৈরি হওয়া “গড়” বিধানসভার আগে আরও মজবুত করতে ক্রমশ ঘুটি সাজাচ্ছে বিজেপি

  উত্তরবঙ্গে এবারে ভালো ফল করেছে ভারতীয় জনতা পার্টি। লোকসভা নির্বাচনে উত্তরবঙ্গের আটটি আসনের মধ্যে সাতটি আসন পদ্মফুল শিবিরের দখলেই গেছে। কিন্তু মূল লক্ষ্য 2021 সালের পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচন। তাই সেই অনুযায়ী বিধানসভা নির্বাচনের আগে চরম মাত্রায় সাংগঠনিক প্রস্তুতি এবং নিজেদের ভোটব্যাংক রক্ষা করার কার্যক্রম চালাচ্ছে ভারতীয় জনতা পার্টি। জানা যাচ্ছে, ভারতীয়

লোকসভায় ধাক্কা খেতেই এবার বড়দিনেও ছুটি নেই তৃণমূলীদের! সামনে এল 3 দিনের বড়সড় পরিকল্পনা

  লোকসভা নির্বাচনে সারা উত্তরবঙ্গ জুড়ে তৃণমূলের ধ্বস লক্ষ করা গেছে। উত্তরবঙ্গের আটটি আসনের মধ্যে একটি আসনেও জয়লাভ করতে পারেনি ঘাসফুল শিবির। আর এই পরিস্থিতিতে দলের সংগঠনকে চাঙ্গা করতে এখন বিধানসভা নির্বাচনের আগেই বিভিন্ন কর্মসূচি নিতে শুরু করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। একসময় তৃণমূল কর্মীরা ক্ষমতার দাপটে বিভিন্ন কর্মসূচি থেকে বিরত হয়ে আরাম

লোকসভা-বিধানসভা ভোটের ছায়া এবার ছাত্র সংসদ নির্বাচনেও? সামনে এল বড় তথ্য

  দীর্ঘদিন ধরেই রাজ্যের কলেজ বিশ্ববিদ্যালয়গুলিতে ছাত্র সংসদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় না। যা নিয়ে বিরোধীদের তরফে বিভিন্ন সময় নানা প্রশ্ন তোলা হয়েছিল। তবে অবশেষে প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদ নির্বাচন দিয়ে তার দামামা বাজিয়ে দিয়েছে রাজ্য সরকার। তবে রাজ্যের অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয় এবং কলেজগুলিতে কবে নির্বাচন হবে তা নিয়ে এখন শুরু হয়েছে নানা

লোকসভায় চূড়ান্ত সফল “মহুয়া মডেল” দিয়েই উপনির্বাচনে বাজিমাত করার পরিকল্পনায় ঘাসফুল শিবির

  সদ্যসমাপ্ত লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূল অনেক আসন হারালেও কৃষ্ণনগর লোকসভা কেন্দ্র তাদের দখলেই ছিল। যেখানে তৃণমূল প্রার্থী হিসেবে জয়লাভ করেছেন মহুয়া মৈত্র। জানা যায়, তিনি নিজের ক্যাপাবিলিটিতেই বিভিন্ন জায়গায় সমীক্ষা করে নিজের জয় নিশ্চিত করেছিলেন। তবে মহুয়াদেবীর কেন্দ্র হিসেবে পরিচিত করিমপুর বিধানসভা কেন্দ্রে এবার উপনির্বাচন হওয়ায় তিনি ফের "ওয়ার রুম" তৈরি

লোকসভার ব্যর্থতা ভুলে ঘুরে দাঁড়াতে ব্লকস্তরের সংগঠন প্রায় সাজিয়ে ফেলল ঘাসফুল শিবির

  লোকসভা নির্বাচনে উত্তরবঙ্গের আটটি লোকসভা আসনেই হারতে হয়েছে তৃণমূল কংগ্রেসকে। যেখানে সাতটির মত আসনে পদ্মফুল ফুটিয়েছে বিজেপি। যার মধ্যে অন্যতম রায়গঞ্জ লোকসভা কেন্দ্র। শত চেষ্টা করেও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এখানে তার দলীয় প্রার্থী কানায়ালাল আগরওয়ালকে জয়লাভ করাতে পারেননি। যার কারণ হিসেবে অনেকেই বলছেন, দলের সাংগঠনিক দুর্বলতা এবং জনসংযোগের অভাবের কারণেই এই কেন্দ্রে

বিধানসভা থেকে লোকসভা – ক্রমশ পিছোচ্ছে শাসকদল! পুরভোট নিয়ে ক্রমশ চিন্তা বাড়ছে শাসকশিবিরে

  2016 সালের বিধানসভা নির্বাচন থেকে বালুরঘাটে তৃণমূলের খারাপ দিন শুরু হয়েছিল। বালুরঘাটের বিধায়ক তথা রাজ্যের পূর্তমন্ত্রী হয়ে বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজ করেও আরএসপি প্রার্থী বিশ্বনাথ চৌধুরীর কাছে হেরে যেতে হয়েছিল শংকর চক্রবর্তীকে। সেই সময় দলের গোষ্ঠী কোন্দলকেই দায়ী করেছিল তৃণমূলের একাংশ। পরবর্তীতে সদ্যসমাপ্ত 2019 এর লোকসভা নির্বাচনেও বালুরঘাট বিধানসভা থেকে ব্যাপক ভোটে

লোকসভায় পিছিয়ে থাকলেও বুথস্তর থেকে সংগঠনকে ঝাঁকুনি দিয়ে ঘুরে দাঁড়াতে আসরে হেভিওয়েট মন্ত্রী

লোকসভায় রাজ্যে তৃণমূলের ফলাফল ভালো হয়নি। যার মূল কারণ হিসেবে জনসংযোগের অভাব এবং দুর্নীতিকেই দায়ী করা হয়েছে। কিন্তু লোকসভায় সেই খারাপ ফলাফলের পর বিভিন্ন জেলায় সংগঠনকে চাঙ্গা করতে নেতৃত্ব পরিবর্তন করে দক্ষ নেতাদের দায়িত্ব দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দুর্বল জেলাগুলোর দায়িত্ব দলের নেতাদের দেওয়ার পরই সেই সমস্ত নেতারা সেই

সঠিক সময়ে পুরভোট হচ্ছে ধরে নিয়ে এখন থেকেই আসরে বিজেপি, থাকছে একাধিক “মাস্টারস্ট্রোক”

মেয়াদ ফুরিয়ে গেছে রাজ্যের একাধিক পৌরসভার। সেই সমস্ত জায়গায় দীর্ঘদিন ধরে প্রশাসক এবং সরকার মনোনীত প্যানেল প্রশাসনিক কাজকর্ম দেখাশোনা করছেন। রাজ্যে স্থগিত থাকা পৌরসভা ভোট নিয়ে একাধিকবার প্রশ্নের মুখে দাঁড়াতে হয় শাসক দলকে। রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে অনেকেই দাবি করেন, লোকসভা ভোটে আশানুরূপ ফল না করতে পেরে এবং শাসকদলের কমতে থাকা

লোকসভায় তৃণমূল নেতাদের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে ফের উঠলো ‘জয় শ্রী রাম’ স্লোগান

লোকসভায় তৃণমূল নেতাদের শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠানে ফের উঠলো 'জয় শ্রী রাম' স্লোগান। তৃণমূল নেতারা একে একে শপথ নেন বাংলায়। তাদের নাম ঘোষণা হতেই ' জয় শ্রী রাম' স্লোগান দেওয়া শুরু হয়। তবে সবথেকে বেশি 'জয় শ্রী রাম' স্লোগান দেওয়া হয় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এর শপথ নেওয়ার সময়। এদিকে শপথ নেওয়ার পর

Top
error: Content is protected !!